চাঁদপুর। বৃহস্পতিবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৬। ১৪ আশ্বিন ১৪২৩। ২৬ জিলহজ ১৪৩৭
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • চাঁদপুর সদর উপজেলায় আক্রান্তের সংখ্যা শত ছাড়ালো : চাঁদপুরে আরো ১৪ জনের করোনা শনাক্ত, জেলা মোট আক্রান্ত ১৮০
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

২৫-সূরা ফুরকান

৭৭ আয়াত, ৬ রুকু, ‘মক্কী’

পরম করুণাাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।

৫৯। তিনি আকাশমন্ডলী, পৃথিবী ও উহাদের মধ্যবর্তী সমস্ত কিছু ছয় দিবসে সৃষ্টি করেন; অতঃপর তিনি ‘আরশে সমাসীন হন। তিনিই ‘রাহমান’ তাহার সম্বন্ধে যে অবগত আছে, তাহাকে জিজ্ঞাসা করিয়া দেখ।  

দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


সুকর্ম কখনো হারিয়ে যায় না।       

-রেসিল।


বিদ্যার মতো চক্ষু আর নেই, সত্যের চেয়ে বড় তপস্যা আর নেই, আসক্তির চেয়ে বড় দুঃখ আর নেই, ত্যাগের চেয়ে সুখ আর কিছুতেই নেই।

 -হযরত মুহাম্মদ (সাঃ)


ফটো গ্যালারি
কৃষকের ভুট্টা, পেঁয়াজ আদা চাষে শতভাগ লাভ
কৃষিপণ্যের দামের উঠানামাই কৃষির বড় সমস্যা : বিআইডিএসের মহাপরিচালক কেএএস মুরশিদ
কৃষিকণ্ঠ প্রতিবেদক
২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


দেশে ধানের ভালো দাম না পাওয়ার অভিযোগ থাকলেও অন্য কিছু ফসল চাষে বিনিয়োগ করলে কৃষক প্রায় দ্বিগুণ অর্থ ফেরৎ পান। বাংলাদেশে পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) সাম্প্রতিক উৎপাদনশীলতা জরিপে দেখা গেছে, ভুট্টা, পেঁয়াজ ও আদা উৎপাদনে ১০০ টাকা বিনিয়োগ করলে কৃষকের লাভ হয় ৮৮ থেকে ১০১ টাকা।



এ তিনটি ফসলের আগে পরিসংখ্যান ব্যুরো কলা, আনারস, হলুদ, ফুলকপি, মরিচ, ও মিষ্টি কুমড়ার ওপর উৎপাদনশীলতা জরিপ করেছিলো। সে জরিপেও দেখা গিয়েছিলো যে, এসব ফসল চাষ করলে প্রতি ১০০ টাকা বিনিয়োগে ৭৬ থেকে ১০৭ টাকা পর্যন্ত লাভ হয়। অবশ্য ধান নিয়ে বিবিএসের এ ধরনের জরিপ এখনো হয়নি।



বিবিএসের কর্মসূচি পরিচালক মোঃ আখতার হোসেন খান কৃষিকণ্ঠকে বলেন, এ ধরনের জরিপ মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) হিসেব তৈরিতে সহায়তা করে। এছাড়া সরকারের বিভিন্ন নীতিনির্ধারণের ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখে।



পরিসংখান ব্যুরো ২০১৩ সালে থেকে বিভিন্ন ফসলের ওপর উৎপাদনশীলতা জরিপ করছে। এসব জরিপে একটি ফসল কতটুকু জমিতে চাষ হয়, উৎপাদনের বিভিন্ন উপকরণের পেছনে কী পরিমাণ অর্থ ব্যয় হয়, এলাকা ও ফসলের বীজের জাতভিত্তিক উৎপাদন ও উৎপাদন খরচ, ফসলের কেজি প্রতি উৎপাদন খরচ ও মূল্যসহ বিভিন্ন দিক উঠে আসে। জানতে চাইলে বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (বিআইডিএস) মহাপরিচালক কেএএস মুরশিদ কৃষিকণ্ঠকে বলেন, এসব জরিপ একটি বিশেষ বছর অথবা মৌসুমকে কেন্দ্র করে করা হয়েছে। তবে কৃষিতে অস্থিতিশীলতা বা ওঠানামা খুব বেশি। গড় বিবেচনায় নিলে হিসেবটি ঠিক আছে। কিন্তু একটি উল্লেখযোগ্যসংখ্যক কৃষক ফসলের গড় দামের চেয়ে কম পায়, অনেকে বেশি পায়। এ দু'য়ে মিলে গড় দামটি ঠিক হয়। তিনি আরো বলেন, কৃষিপণ্যের দামের উঠানামাই কৃষির বড় সমস্যা। আসল কৃষক কতটুকু লাভবান হচ্ছে তা বুঝতে হলে কয়েক বছরের চিত্র দেখা প্রয়োজন।



ভুট্টা নিয়ে বিবিএসের জরিপে দেখা যায়, দেশে ২০১৪ সালে মোট ৭ লাখ ২৫ হাজার ৭শ' একর জমিতে ভুট্টার আবাদ হয়েছে। প্রতি একর আবাদে খরচ হয়েছে গড়ে ২৩ হাজার ৮০৫ টাকা। এক একর জমিতে গড়ে ২ হাজার ৮৪৬ কেজি ভুট্টা উৎপাদিত হয়েছে। এতে প্রতি কেজিতে খরচ পড়েছে গড়ে ৮ টাকা ৩৬ পয়সা। বিবিএসের হিসেবে আলোচ্য বছরে কৃষকরা প্রতি কেজির মূল্য হিসেবে গড়ে ১৬ টাকা ৫৫ পয়সা পেয়েছেন। ফলে প্রতি ১০০ টাকা বিনিয়োগ করে রিটার্ন বা ফেরৎ পাওয়া গেছে ১৯৭ টাকা। অর্থাৎ কৃষকের লাভ হয়েছে ৯৭ টাকা।



দেশে প্রতিবছর ভুট্টা উৎপাদনও বাড়ছে। বিবিএসের হিসেবে ২০০৮-২০০৯ অর্থবছরে দেশে ১১ লাখ ৩৭ হাজার টন ভুট্টা উৎপাদিত হয়েছিলো। ২০১৫-২০১৬ অর্থবছরে উৎপাদিত হয়েছে ২৫ লাখ ৭২ হাজার টন।



জরিপ অনুযায়ী, ২০১৪ সালে দেশে ২ লাখ ৯৬ হাজার ৪১৪ একর জমিতে পেঁয়াজের আবাদ হয়েছে। প্রতি একরে খরচ হয়েছে ৫৩ হাজার ৩৯৯ টাকা। একর প্রতি গড় উৎপাদন ৪ হাজার ৬৬৮ কেজি। এ হিসেবে প্রতি কেজির উৎপাদন খরচ ১১ টাকা ৪৪ পয়সা। কৃষক বিক্রি করতে পেরেছেন প্রতি কেজি গড়ে ২২ টাকা ৯৩ পয়সা দরে। এতে ১০০ টাকা বিনিয়োগে ফেরৎ এসেছে ২০১ টাকা। দেশে পেঁয়াজের উৎপাদনও বাড়ছে। বিবিএসের হিসেবে ২০১১-২০১২ অর্থবছরে দেশে ১১ লাখ ৫৯ হাজার টন পেঁয়াজ উৎপাদিত হয়েছিলো। ২০১৪-২০১৫ অর্থবছরে হয়েছে ১৭ লাখ ৪ হাজার টন।



বিবিএসের জরিপ অনুযায়ী, ২০১৫ সালে দেশে ৩৬ হাজার ৪৪৭ একর জমিতে আদার আবাদ হয়েছে। একর প্রতি গড়ে ৭৮ হাজার ১৯৫ টাকা খরচ করে ২ হাজার ৫৫১ কেজি আদা উৎপাদন করা গেছে। প্রতি কেজির উৎপাদন খরচ পড়েছে ৩০ টাকা ৬৫ পয়সা। যা গড়ে ৫৭ টাকা ৬৪ পয়সা দরে বিক্রি করতে পেরেছেন কৃষকেরা। জরিপ অনুযায়ী, প্রতি ১০০ টাকা বিনিয়োগ করে কৃষক ১৮৮ টাকা ফেরৎ পেয়েছেন, লাভ হয়েছে ৮৮ টাকা।



বিবিএসের হিসেবে ২০১২-২০১৩ অর্থবছরে দেশে ৬৯ হাজার ৫০৮ টন আদা উৎপাদন হয়েছিলো।২০১৪-২০১৫ অর্থবছরে উৎপাদিত হয়েছে ৮৩ হাজার টন আদা।



২০১৪ সালে করা বিবিএসের আরও কয়েকটি উৎপাদনশীলতা জরিপ বলছে, প্রতি ১০০ টাকা বিনিয়োগে ফুলকপিতে ১০৭ টাকা, মরিচে ১১৯ টাকা, মিষ্টি কুমড়ায় ১৩৫ টাকা, হলুদে ৮৬ থেকে ১০৭ টাকা, কলায় ২০৭ টাকা ও আনারসে ৭৬ টাকা লাভ হয় কৃষকদের। অবশ্য এসব হিসেব করা হয়েছে সংশ্লিষ্ট বছরগুলোর উৎপাদন খরচ ও বাজারদরের ওপর ভিত্তি করে।



ভুট্টা, পেঁয়াজ ও আদা চাষে চাঁদপুরের কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-সহকারী কর্মকর্তা মোঃ অব্দুল মান্ন্নানের সাথে আলাপকালে কৃষিকণ্ঠ'কে বলেন, চাঁদপুরে ২০১৫-২০১৬ অর্থবছরে ভুট্টার আবাদ হয়েছে ৪ হাজার ৬শ' ৫০ হেক্টর। উৎপাদন হয়েছে ৩০ হাজার ৯শ' মেট্রিক টন। আর পেঁয়াজের আবাদ হয়েছে ৮শ' ৯০ হেক্টর। উৎপাদন হয়েছে ৭ হাজার ৬শ' মেট্রিক টন। আদা চাষে চাঁদপুরের কৃষকরা অনাগ্রহী। তবে মতলব উত্তরে কিছু কিছু কৃষক আমাদের পরামর্শে আদা চাষ শুরু করেছে।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৬৩৬৩২১
পুরোন সংখ্যা