চাঁদপুর। রোববার ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৭। ৭ ফাল্গুন ১৪২৩। ২১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৮

বিজ্ঞাপন দিন

jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ বাজারে অগ্নিকান্ডে পুড়ে গেছে ১০টি দোকান।
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

২৭-সূরা নাম্ল 


৯৩ আয়াত, ৭ রুকু, ‘মক্কী’


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


২১। ‘সে উপযুক্ত কারণ না দর্শাইলে আমি অবশ্যই উহাকে কঠিন শাস্তি দিব অথবা যবেহ্ করিব।


দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন

assets/data_files/web

পরিশ্রমী লোকের নিকট সবচেয়ে সুখপ্রদ জিনিস হচ্ছে ঘুম।

  -জনবুলিয়ান।


মজুরের গায়ের ঘাম শুকাবার আগে তার মজুরি দিয়ে দাও।


ফটো গ্যালারি
৪৫ হাজার ৬শ' ৬৬ হেক্টর জমিতে আলু চাষ
চাঁদপুরে আলুর বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা ন্যায্য দাম পাওয়া নিয়ে শঙ্কায় কৃষকরা
কৃষিকণ্ঠ প্রতিবেদক
১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


চাঁদপুরের বিভিন্ন উপজেলায় আগাম আলু ক্ষেত পরিচর্যাসহ বাম্পার ফলন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। বর্তমানে কিছু কিছু জমির আলু উত্তোলন চলছে। এ বছর আলু ভালো দামে বিক্রি হবে না বলে কৃষকরা শঙ্কায় আছে। কৃষকদের শঙ্কা, এ বছর আলু চাষে তারা ভালো মুনাফা অর্জন করতে পারবে না। কৃষকরা জানান, এখন বাজারে আলুর দাম কম। প্রতিটি ফসলের আলু উঠতে শুরু করছে। এতে করে দাম আরো কমে গেছে। অপরদিকে কোল্ডস্টোরেজে আগাম আলু চাষীরা রাখতে শুরু করেছে। আর এ বছর আলুর চাষ এমনিতেই বেশি হয়েছে।



সরজমিনে চাঁদপুর সদর উপজেলার রাজরাজেশ্বর, হানারচর, কল্যাণপুর, তরপুরচ-ী, শাহমাহমুদপুর, মৈশাদী ও বালিয়া ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, আলু চাষীরা এখন ব্যস্ত। শাহমাহমুদপুর ইউনিয়নের শাহআলম বলেন, তিনি এ বছর ৩০ শতক জমিতে গ্রেনুলা জাতের আলু লাগিয়েছেন। আর কিছুদিন পরে আলু উঠবে। বিষ্ণুদীর জিটি রোডস্থ আনোয়ার হোসেন গাজী ১৪০ শতক জমির উপর আলু চাষ করেছেন। এছাড়া জেলার মতলব দক্ষিণ উপজেলায় আলু চাষ বেশি হয়েছে। আলু চাষে পিছিয়ে পড়েছে শাহরাস্তি উপজেলা। আর অন্যান্য উপজেলায় গত বছর থেকে এবছর আলু চাষ বেশি হয়েছে।



কৃষকরা জানান, আগাম আলু ওঠানোর কারণে ফলন একটু কম হবে। তারপরও দাম একটু বেশি পাওয়ার আশায় আগাম বিক্রি করছি। বেশি প্রতি ২৭ শতক জমিতে ২০ বস্তা করে আলু উৎপাদনের সম্ভাবনা রয়েছে। প্রতি বস্তা (৫৫ কেজি) আলু সাড়ে ৫শ' টাকা পর্যন্ত বিক্রি হবে। স্থানীয় হাট-বাজারগুলোতে নতুন আলু উঠতে শুরু করেছে। প্রতি কেজি আলু (নতুন) ১০-১২ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। এ অবস্থা থাকলে আমাদের আলু চাষে লোকসান গুণতে হবে।



চাঁদপুর উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা আঃ মান্নান বলেন, আগাম আলু চাষে উৎপাদন খরচ কম, মুনাফা বেশি। তিনি বলেন, গ্রেনুলা জাতের আলু ৬০-৭০ দিনের মধ্যেই তোলা সম্ভব হলে চাঁদপুরে আলুর বাম্পার ফলন হবে বলে তিনি আশা করছেন। এ বছর চাঁদপুরে ৪৫ হাজার ৬শ' ৬৬ হেক্টর জমিতে আলু চাষ হয়েছে। তবে আবহাওয়া অনুকূলে থাকলেও আলুর হিমাগার বৃদ্ধি করা হলে আলু নিয়ে কৃষকের শঙ্কা কমে যাবে।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
১৭৭১১১
পুরোন সংখ্যা