চাঁদপুর। রোববার ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮। ২৫ ভাদ্র ১৪২৫। ২৮ জিলহজ ১৪৩৯
redcricent
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • --
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৪১-সূরা হা-মীম আস্সাজদাহ,


৫৪ আয়াত, ৬ রুকু, মক্কী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


১৪। যখন তাদের নিকট রাসূলগণ এসেছিলেন তাদের সম্মুখ ও পশ্চাৎ হতে (এবং বলেছিলেন) তোমরা আল্লাহ ব্যতীত কারো ইবাদত কারো না। তখন তারা বলেছিল : আমাদের প্রতিপালকের এইরূপ ইচ্ছা হলে তিনি অবশ্যই ফেরেশতা প্রেরণ করতেন। অতএব তোমরা যেসব সহ প্রেরিত হয়েছো, আমরা তা প্রত্যাখ্যান করছি।


১৫। আর আ'দ সম্প্রদায়ের ব্যাপারে এই যে, তারা পৃথিবীতে অযথা দম্ভ করতো এবং বলতো : আমাদের অপেক্ষা শক্তিশালী কে আছে? তারা কি তবে লক্ষ্য করেনি যে, আল্লাহ, যিনি তাদেরকে সৃষ্টি করেছেন, তিনি তাদের অপেক্ষা শক্তিশালী? অথচ তারা আমার নিদর্শনবলিকে অস্বীকার করতো।


দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


 


 


 


ফুল ফোটে ঝরে যাওয়ার জন্যে।


-চার্লস জি ব্লানডন।


 


পবিত্র হওয়াই ধর্মের অর্থ।


 


 


 


 


ফটো গ্যালারি
দরিদ্র কৃষক বিল্লাল বেপারী থেমে নেই সবজি চাষে
কৃষিকণ্ঠ প্রতিবেদক
০৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


শীতকালীন সবজি সবার কাছেই প্রিয়। আর সেটা যদি হয় টাটকা এবং বিষমুক্ত তবে তো তার মজাই আলাদা। কিছু কিছু সবজি আছে যা সারাবছরই হয়। শীতকালীন সবজি অনেক ভালো হয় এবং এই সময় এ সবজির চাহিদাও অনেক ভালো থাকে। সবজি চাষ করে পারিবারিক চাহিদা মিটিয়ে বাজারজাত করেন কৃষক মোঃ বিল্লাল বেপারী। দরিদ্র হয়েও থেমে নেই তার সবজি চাষ।



চাঁদপুর সদর উপজেলার তরপুরচ-ী গ্রামে তার কৃষিজমি প্রত্যক্ষ করেন এই প্রতিবেদক। তিনি সমস্ত জমিতে শিম, লাউ, কলই ও মরিচের বীজ বপনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন। তার সাথে কথা বলে জানা যায়, তিনি প্রথমে বাড়ির আশপাশে শীতকালীন সবজি চাষ করতেন, পরবর্তীতে ব্যাপক হারে চাষাবাদের সিদ্ধান্ত নেন। তার ইচ্ছে যতটুকু চাষাবাদ করবেন বিষমুক্ত চাষাবাদ করবেন, কোনো রাসায়নিক সার প্রয়োগ করবেন না।



কৃষক বিল্লালের দুই ছেলে, দুই মেয়ে। বড় মেয়ে বিউটি খাতুন বিবাহিত। বড় ছেলে হাফেজ মোঃ নাজমুল হোসেন বেপারী। বর্তমানে একটি মাদ্রাসায় কিতাব বিভাগে পড়ছে। আঃ আহাদ ৭ম শ্রেণিতে পড়ে জিএম ফজলুল হক উচ্চ বিদ্যালয়ে। ছোট মেয়ে খাদিজা ৫ম শ্রেণিতে তরপুরচ-ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়াশোনা করছে। স্ত্রী আলেকা খাতুন গৃহিণী। এদের নিয়েই তার পরিবার। তিনি কৃষি কাজের পাশাপাশি ২টি গরু ও ১টি ছাগলও পালন করছেন। তার এ সকল কাজের আয় দিয়ে সংসার পরিচালনা করেন এবং সন্তানদের পড়াশোনা করাচ্ছেন। তিনি সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা পেলে কৃষিকাজে বিপ্লব ঘটাতে পারতেন বলে বিশ্বাস করেন। ৪০ বছর ধরে কৃষি কাজ করছেন। গ্রামের লোকেরাও তাকে বিল্লাল কৃষক নামেই চিনেন। সবার মাঝে তার আরেকটি পরিচিতি আছে। সে সকল সময়ে সকল ধরনের আগাম সবজি চাষী ও বিক্রেতা। তার উৎপাদিত সবজি বিক্রি করতে



 



বাজারে নিতে হয় না। জমি থেকেই স্থানীয়রা বা খুচরা বিক্রেতারা নিয়ে যান।



বিল্লাল বেপারী কৃষিকণ্ঠকে বলেন, আমি সরকারি সহযোগিতা পেতে চাই। আমাকে সে ব্যবস্থা করে দিন। পরে মুঠোফোনে কৃষি অফিসারকে অবগত করলে তিনি সার ও বীজ দেবেন বলে আশ্বস্ত করেন। বিল্লাল বেপারীর নিজস্ব সাড়ে ১০ শতাংশ জমি। মেঘনা নদীর পাড়ে হওয়ায় বালুর কারণে সেখানে কোনো ফসল উৎপাদন হয় না। গ্রামের অন্য ব্যক্তিদের জমি পোষানি (ইজারা) নিয়ে প্রায় ৫০ শতাংশ জমিতে সবজি চাষ করেন। আলু, লাল শাক, পেঁয়াজ, রসুন, সরিষা, কুমড়া, টমেটো, ধনিয়া পাতা, ফুলকপি, মুলাসহ বিভিন্ন ফসলের চাষাবাদ করেন।



তরপুরচ-ী ইউনিয়নের উপ-সহকারী কৃষি অফিসার মোঃ দেলোয়ার হোসেন বলেন, সবজি চাষ করতে তেমন একটা খরচের প্রয়োজন হয় না। তাই আমরা বাড়ির আশপাশে সবজি চাষ করতে পারি। এতে করে বাড়ির আশপাশে সামান্য যে জায়গা পড়ে আছে তারও সঠিক ব্যবহার হয়ে যায়। এভাবে আমরা পারিবারিক সবজির চাহিদা পূরণ করতে পারি।



এ কর্মকর্তা আরো জানান, শিমের শুটির বীজে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন ও শ্বেতসার থাকে বলে খাদ্য হিসেবে এটি খুবই উপকারী। এছাড়া শিমে যথেষ্ট পরিমাণে ক্যালসিয়াম, ফসফরাস এবং ভিটামিন এ, বি ও সি থাকে। লাউয়ে ১৭ ধরনের অ্যামাইনো এসিড, ভিটামিন সি, রাইবেফ্লাভিন, জিংক, থায়ামিন, লৌহ, মাগনেসিয়াম ও ম্যাঙ্গানিজ থাকে। এতে ফ্যাট ও কোলস্টেরল থাকে না। লাউ ও শিমের বীজ মাচা করে রোপণ করতে হয়। এ মাচাতে পর্যাপ্ত পরিমাণে গোবর (জৈব) সার, ইউরিয়া, টিএসপি প্রয়োগ করতে হবে। মধ্য সেপ্টেম্বর থেকে মধ্য অক্টোবর এসব সবজি বপনের উপযুক্ত সময়। বীজ রোপণের গভীরতা লাউয়ের জন্যে ২-২.৫ সেন্টিমিটার এবং শিমের জন্যে ২.৫-৩ সেন্টিমিটার। এসব সবজি অতিরিক্ত জলাবদ্ধতা সহ্য করতে পারে না। তবে যদি মাটি শুকিয়ে যায় বা মাটিতে রস কম হয় তবে পানি সেচ দিতে হবে। এসব সবজি লতানো, তাই বাঁশ দ্বারা মাচা তৈরি করে দিতে হবে। চারা গাছের আশপাশে আগাছা হলে তা পরিষ্কার করে দিতে হবে।



 



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৬৫২৭৬
পুরোন সংখ্যা