চাঁদপুর, রোববার ৮ মার্চ ২০২০, ২৪ ফাল্গুন ১৪২৬, ১২ রজব ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • --
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৬৫-সূরা তালাক


১২ আয়াত, ২ রুকু, মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


১১। এক রাসূল, যে তোমার নিকট আল্লাহর সুস্পষ্ট আয়াতসমূহ আবৃত্তি করে, যাহারা মু'মিন ও সৎকর্মপরায়ণ তাহাদিগকে অন্ধকার হইতে আলোতে আনিবার জন্য। যে কেহ আল্লাহে বিশ্বাস করে ও সৎকর্ম করে তিনি তাহাকে দাখিল করিবেন জান্নাতে, যাহার পাদদেশে নদী প্রবাহিত, সেথায় তাহারা চিরস্থায়ী হইবে; আল্লাহ তাহাকে উত্তম রিয্ক দিবেন।


 


প্রতিভাই শক্তি কিন্তু কৌশল হচ্ছে দক্ষতা।


-ডাবিস্নউ পি স্কারজিল।


 


অভ্যাগত অতিথির যথাসাধ্য সম্মান করা প্রত্যেক মুসলমানের অবশ্য কর্তব্য।


ফটো গ্যালারি
সাক্ষাৎকার : স্বাধীনতা পদকপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা ডাঃ সৈয়দা বদরুননাহার চৌধুরী
নারীরা এখন অনেক সচেতন
০৮ মার্চ, ২০২০ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


বাংলাদেশে যে কজন নারী মুক্তিযোদ্ধা রয়েছেন তার মধ্যে চাঁদপুরের স্বাধীনতা পদকপ্রাপ্ত ডাঃ সৈয়দা বদরুননাহার অন্যতম। তাঁর মুখোমুখি হয়েছেন মুহাম্মদ ফরিদ হাসান।



 



একাত্তরে আপনি কী করতেন?



ডাঃ সৈয়দা বদরুননাহার চৌধুরী : আমি স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় ঢাকা মেডিকেল কলেজে পড়তাম। আমি পঞ্চম বর্ষের ছাত্রী ছিলাম।



 



স্বাধীনতা যুদ্ধে কীভাবে জড়িয়ে পড়লেন?



ডাঃ সৈয়দা বদরুননাহার চৌধুরী : আমি এবং আমার স্বামী অ্যাডভোকেট তাফাজ্জল হায়দার নসু চৌধুরী বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ শুনেছিলাম। আমাদের তখনই মনে হয়েছিলো দেশের জন্যে কিছু করার। অনুভব করেছিলাম 'স্বাধীনতা' চাই, চাই-ই। ২৫ মার্চ যুদ্ধ শুরু হলে আমি আমার এলাকা হাজীগঞ্জে চলে আসি। এখান থেকেই আমি মুক্তিবাহিনীতৈ যোগ দেই।



 



যুদ্ধের সময় মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে আপনি কী করতেন?



ডাঃ সৈয়দা বদরুননাহার চৌধুরী : আমি যুদ্ধে সরাসরি অংশগ্রহণ করেছিলাম। এছাড়াও যেহেতু আমি ডাক্তারি পড়ছিলাম, স্বাভাবিকভাবেই চিকিৎসাসেবার ভার ছিলো আমার উপর।



 



যুদ্ধকালীন কোনো উল্লেখযোগ্য স্মৃতি সম্পর্কে আমাদের বলুন।



ডাঃ সৈয়দা বদরুননাহার চৌধুরী : ১৯৭১-এর একটি দিনের কথা আমার এখনো স্পষ্ট মনে আছে। সেদিন ছিলো ২৯ সেপ্টেম্বর। বিকেল বেলা, গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হচ্ছিলো। আমরা সবাই নৌকায় ছিলাম। আমাদের ক্যাপ্টেন ছিলো জহিরুল হক খান। সেদিন শাহরাস্তির অফিস চিতোষীতে পাকবাহিনীর ক্যাম্পে আমাদের যোদ্ধারা আক্রমণ চালায়। এ আক্রমণে আমরাই বিজয়ী হই। ক্যাম্প দখল করা হলে আমাকে যখন খবর দেয়া হলো, আমি ক্যাম্পের ভেতরে গেলাম। আগেই আমাদের কাছে খবর ছিলো এ ক্যাম্পে পাকিস্তানীরা কয়েকজন মেয়েকে ধরে এনেছে। যখন আমি ভেতরে গেলাম, দেখলাম ক্যাম্পের একটা অংশে কতগুলো মেয়ে, তাদের গায়ে কোনো বস্ত্র ছিলো না, সারা শরীরে পাশবিক নির্যাতনের চিহ্ন। পরবর্তীতে আমি আমার সঙ্গীয় মুক্তিযোদ্ধাদের কাছ থেকে তাদের জামা নিয়ে মেয়েদের পরতে দিলাম। ওই সময় আমার সাথে কোনো ঔষধপত্র ছিলো না। আমরা তখন মেয়েদের নিয়ে পানিয়ারার দিকে চলে গেলাম। সেখানে ক্যাম্পে আমি তাদের সেবা-শুশ্রুষা করি। জানা গেলো মেয়েদের বাড়ি চাঁদপুরের পার্শ্ববর্তী জেলা শরীয়তপুরে। তারা কিছুটা সুস্থ হলে আমরা তাদের বাড়ি পাঠিয়ে দেই। এ ঘটনাটা আমার প্রায়ই মনে পড়ে।



 



আপনি তো ২০১২ সালে স্বাধীনতা পদক পেয়েছেন। এ পদক প্রাপ্তির অনুভূতি সম্পর্কে আমাদের কিছু বলুন।



ডাঃ সৈয়দা বদরুননাহার চৌধুরী : স্বাধীনতার এতো বছর পর স্বাধীনতার স্বপক্ষের সরকার মুক্তিযোদ্ধাদের মূল্যায়ন করেছে_এটা ভাবতেই ভালো লাগে। স্বাধীনতা পদক প্রাপ্তি আমাকে আনন্দিত করেছে। আমাকে এ স্বীকৃতি দেয়ার জন্যে সরকারকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।



 



বর্তমানে আপনি কী করছেন? আপনার সময় কীভাবে কাটছে?



ডাঃ সৈয়দা বদরুননাহার চৌধুরী : আগেই বলেছি, যুদ্ধকালীন সময়ে আমি মেডিকেলের ছাত্রী ছিলাম। যুদ্ধ শেষ হলে আমি ডাক্তারি পাস করি। চিকিৎসক হিসেবে কর্মজীবন শুরু করি। এখনো এ পেশায়ই আছি। এছাড়া বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক কর্মকা-ের সাথে যুক্ত আছি। এভাবেই সময় বেশ কেটে যাচ্ছে।



 



বর্তমান সময়ে নারীদের আপনি কীভাবে মূল্যায়ন করবেন?



ডাঃ সৈয়দা বদরুননাহার চৌধুরী : একটা সময় ছিলো নারীদের পদচারণা বাসন-কোসন সাদা আর রান্না-বান্নার ভেতর সীমাবদ্ধ ছিলো। সময়ের সাথে নারীরা পাল্টেছে। তারা শিক্ষা-দীক্ষায়, জ্ঞান-বিজ্ঞানে, চাকুরি ক্ষেত্রে অনেক এগিয়েছে। আমি বলবো, দশ-পনের বছর আগেরকার সময় থেকে নারীরা এখন অনেক বেশি সচেতন। তারা তাদের অধিকার সম্পর্কে জানে।



 



নারীদের এগিয়ে চলার পথে কী প্রতিবন্ধকতা আপনার চোখে পড়ে?



ডাঃ সৈয়দা বদরুননাহার চৌধুরী : নারী বৈষম্য বাংলাদেশে আইনগতভাবে দূর হয়েছে। কিন্তু মনের বৈষম্য এখনো দূর হয়নি। নারীর কোনো কীর্তিকে স্বতঃস্ফূর্তভাবে অভিভাদন জানানোর পরিবেশ এখনো ভালোভাবে সৃষ্টি হয়নি। তবে আমার মনে হয়, আগামী কবছরের মধ্যেই এ অবস্থার উত্তরণ ঘটতে পারে।



 



তরুণদের উদ্দেশ্যে কিছু বলুন?



ডাঃ সৈয়দা বদরুননাহার চৌধুরী : এক সাগর রক্তের বিনিময়ে আমাদের বাংলাদেশ। আর তরুণ-তরুণীরাই এদেশের প্রাণশক্তি। তারা স্বাধীনতার ধারক ও বাহক। তারা স্বাধীনতার চেতনা যেমন সঞ্চার করবে, তেমনি অন্যদের মাঝে সঞ্চারিতও করাবে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী হলেই সোনার বাংলা গড়া সম্ভব।



 



 


করোনা পরিস্থিতি
বাংলাদেশ বিশ্ব
আক্রান্ত ৩,৮৭,২৯৫ ৩,৯৬,৩৮,১৮৮
সুস্থ ৩,০২,২৯৮ ২,৯৬,৭৮,৪৪৬
মৃত্যু ৫,৬৪৬ ১১,০৯,৮৩৮
দেশ ২১৩
সূত্র: আইইডিসিআর ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।
আজকের পাঠকসংখ্যা
২৫৩৯৯৪
পুরোন সংখ্যা