চাঁদপুর। মঙ্গলবার ১৭ এপ্রিল ২০১৮। ৪ বৈশাখ ১৪২৫। ২৯ রজব ১৪৩৯
redcricent
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৩৭- সূরা আস-সাফফাত


১৮২ আয়াত, ৫ রুকু, মক্কী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


৩২। আমরা তোমাদেরকে পথভ্রষ্ট করেছিলাম। কারণ আমরা নিজেরাই পথভ্রষ্ট ছিলাম।


৩৩। তারা সবাই সেদিন শান্তিতে শরীক হবে।


৩৪। অপরাধীদের সাথে আমি এমনি ব্যবহার করে থাকি।


৩৫। তাদের যখন বলা হত, আল্লাহ ব্যতীত কোন উপাস্য নেই, তখন তারা ঔদ্ধত্য প্রদর্শন করত।


দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


 


 


উৎকৃষ্ট বীজ থেকেই উত্তম বৃক্ষ জন্ম নেয়।


-জনগে।


 


 


 


 


পিতার আনন্দে খোদার আনন্দ এবং পিতার অসন্তুষ্টিতে খোদার অসন্তুষ্টি


 


 


ফটো গ্যালারি
ফরিদগঞ্জের সেরাদের কথা
প্রবীর চক্রবর্তী
১৭ এপ্রিল, ২০১৮ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


বিতর্কের উর্বর ভূমি বলা হয় ফরিদগঞ্জ উপজেলাকে। কারণও আছে। পাঞ্জেরী-চাঁদপুর কণ্ঠ বির্তক প্রতিযোগিতার গত ৯টি আসরে স্কুল ও কলেজ পর্যায়ে মোট ১৮টি চ্যাম্পিয়নশিপের মধ্যে সর্বাধিক ৮টি বাগিয়ে নিয়েছে ফরিদগঞ্জ উপজেলা। এছাড়া বেশ কয়েক বার চ্যাম্পিয়ন হতে না পারলেও রানার্সআপ হয়ে তাক লাগিয়েছে পুরো জেলাকে। বিতর্ক অনুরাগী, বিতর্কের বিচারকসহ এই ৯টি পর্বের অনুষ্ঠানে উপস্থিত লোকজন এক কথায় বলেছেন, পারলে ফরিদগঞ্জই পারবে। তবে এই চ্যাম্পিয়নশিপের সংখ্যা আরো বাড়তো, যদি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো আরো গুরুত্ব নিয়ে প্রতিযোগিতায় কাজ করতো আর রূপসা আহম্মদিয়া উচ্চ বিদ্যালয়, ফরিদগঞ্জ বঙ্গবন্ধু ডিগ্রি কলেজের মতো প্রতিষ্ঠান বিতর্ক থেকে পিছিয়ে না পড়তো। অথবা আয়োজক কর্তৃপক্ষ যদি সংগঠনগুলোর অংশগ্রহণ বন্ধ না করতো। তবে এসব কিছুকেই ছাপিয়ে গেছে বিতার্কিকদের নজরকাড়া উপস্থাপনা এবং তাদের বিতর্ক পরবর্তী অবস্থান। ফরিদগঞ্জ উপজেলার কোনো দল নিয়ে নিজে সেরা হয়েছে, দলকে চ্যাম্পিয়ন করতে সহায়তা করছে এ রকম অন্তত ৫ জন কৃতী বিতার্কিক রয়েছেন। যারা এখনো নিজ অবস্থানে থেকে আলো ছড়াচ্ছেন। অবশ্য এর মধ্যে বিরহ ব্যথাও রয়েছে।



সময় কাল ২০১০। পাঞ্জেরী-চাঁদপুর কণ্ঠ বিতর্ক প্রতিযোগিতার দ্বিতীয় আসরের ফাইনাল চলছে। স্কুল পর্যায়ের ফাইনালে ফরিদগঞ্জ উপজেলার দুটি দল রূপসা আহম্মদিয়া উচ্চ বিদ্যালয় ও বিআর হাজী আব্দুল আহাদ উচ্চ বিদ্যালয়। একেবারে প্রথম রাউন্ড থেকে যে মেয়েটি নিজের যোগ্যতা দিয়ে দলকে ফাইনাল পর্যন্ত নিয়ে গেছেন, তিনি আর কেউ নন জান্নাতুল রাফেয়া। ফাইনালেও তিনি বাজিমাত করেন। দলকে এনে দেন চ্যাম্পিয়নের স্বাদ। ফাইনালে উপস্থিত চাঁদপুর কণ্ঠ পত্রিকার প্রতিষ্ঠাতা ও সম্পাদক অ্যাডঃ ইকবাল-বিন-বাশার তাঁর বিতর্ক শুনে এতোটাই মুগ্ধ হলেন যে, তিনি তাঁর বক্তব্যের সময় জান্নাতুল রাফেয়ার কাছ থেকে ওয়াদা নিলেন যে, বিতর্ক ছাড়া যাবে না এবং নিজের ইচ্ছেমত পড়ালেখা করবে। কথা রেখেছেন রাফেয়া। তিনি স্কুলের গ-ি পেরিয়ে ঢাকার হলিক্রস স্কুল এন্ড কলেজে পড়ার সময় শ্রেষ্ঠ বিতার্কিক নির্বাচিত হন। ২০১৪ সালে টিআইবির বিতর্কে অংশ নিয়ে হন দেশসেরা বিতার্কিক। থেমে থাকেননি তিনি। বর্তমানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে মাইক্রোবাইলোজি নিয়ে পড়ছেন। ইতিমধ্যেই অনার্সে ফার্স্ট ক্লাস সেকেন্ড হয়েছেন। ২০১৭ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রোকেয়া স্বর্ণপদক অর্জন করে রাফেয়া ২০১০ সালে বির্তক প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে যে জয়যাত্রা শুরু করেছিলেন তার ধারাবাহিকতা ও সাফল্য বজায় রেখেছেন। তবে এখানেই থেমে থাকতে রাজি নন তিনি। তার বাবা ফরিদগঞ্জ উপজেলার বড়গাঁও উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রফিক উল্যা জানান, রাফেয়া বিতর্ক শিল্প নিয়ে আরো কাজ করতে আগ্রহী। পাঞ্জেরী-চাঁদপুর কণ্ঠ তাকে যেভাবে উঠিয়ে এনেছে, তার যোগ্যতার স্বাক্ষর রাখতে চায় তার ভবিষ্যৎ জীবনেও।



হাওয়া আক্তার। তিনি ফরিদগঞ্জ বঙ্গবন্ধু ডিগ্রি কলেজ থেকে ২ বার বিতর্কে অংশগ্রহণ করেন। প্রথম পাঞ্জেরী-চাঁদপুর কণ্ঠ বিতর্কে অংশ নিয়ে তিনি দলকে চ্যাম্পিয়ন করেছিলেন। ২য় বার তার দল রানার্সআপ হয়। অসম্ভব মেধাবী এই কৃতী বিতার্কিকটি অকালেই শিক্ষাজীবন থেকে বিদায় নিয়েছিলেন। তার পরিবার তাকে কলেজজীবন শেষের আগেই পাত্রস্থ করে। ফলে তার লেখাপড়ায় ভাটা পড়ে। কিন্তু বিয়ের পর তার কাঙ্ক্ষিত সুখ মেলেনি। দুর্ভাগ্য তাকে জড়িয়ে ধরেছে। বিয়ের কয়েক বছরের মধ্যেই তিনি স্বামীকে চিরতরে হারান। কিন্তু থেমে থাকেন নি তিনি। বর্তমানে ঢাকার ফার্মগেটে তার স্বামীর বাড়িতে থেকে বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় তেজগাঁও কলেজ ক্যাম্পাসে বিএসএস প্রোগ্রামের ১ম বর্ষে অধ্যয়নরত। এক সন্তানের জননী হাওয়া এখন লেখাপড়া ও সন্তান নিয়ে ব্যস্ত থাকেন।



পাঞ্জেরী-চাঁদপুর কণ্ঠ বিতর্ক প্রতিযোগিতায় এখনো বলতে গেলে মেয়েদের জয়জয়কার। তারপরও বিশেষ করে টানা তিন ফাইনালে একমাত্র পুরুষ বিতার্কিক হিসেবে উপস্থিত হওয়া শামিম হাসান তার প্রতিভার স্বাক্ষর রেখেছেন। শামিম বিতর্কে অংশ নেন ফরিদগঞ্জ বঙ্গবন্ধু ডিগ্রি কলেজ ও ফরিদগঞ্জ লেখক ফোরাম থেকে। বহুবার চ্যাম্পিয়ন টিমের গর্বিত সদস্য তিনি। ফরিদগঞ্জ বঙ্গবন্ধু ডিগ্রি কলেজ থেকে স্নাতক পাস করার পর চাঁদপুর সরকারি কলেজ থেকে মাস্টার্স করে তিনি ধানুয়া জনতা উচ্চ বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক হিসেবে কর্মরত। এছাড়া নিজে ধানুয়া প্রি-ক্যাডেট একাডেমি নামে একটি কিন্ডারগার্টেন পরিচালনা করছেন। বিতর্ক তাকে অনেক দূর নিয়ে গেছে উল্লেখ করে শামীম হাসান জানান, বিতর্ক আমার হৃদয়ের মণিকোঠায় স্থান করে নিয়েছে। চেষ্টা থাকবে যে প্রতিষ্ঠানে চাকুরি করছি, সেখানে ভালো মানের বিতার্কিক তৈরি করা।



স্কুল পর্যায়ে যে মেয়েটি নিজের স্কুলকে টানা দুই বার পাঞ্জেরী-চাঁদপুর কণ্ঠ বিতর্ক প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন করতে সমর্থ হয়েছেন, তিনি আর কেউ নন, তামান্না নাছরিন বৃষ্টি। প্রতিযোগিতার চতুর্থ ও পঞ্চম আসরে তার কৃতিত্বেই চ্যাম্পিয়ন হয় ফরিদগঞ্জ এআর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়। ফাইনালে তিনি হন সেরাদের সেরা। দুদক বিতর্কে তিনি তার দল নিয়ে অনেক দূর গিয়েছিলেন। ধানমন্ডি আইডিয়াল স্কুল এন্ড কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করার পর বর্তমানে তিনি ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে ৬ষ্ঠ সেমিস্টারে অধ্যয়নরত। সম্প্রতি তার বাবা আলী আজমকে হারিয়ে ফেলেন। তারপরও তিনি বিতর্ক প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে যেই জয়যাত্রা শুরু করেছিলেন তা অব্যাহত রাখতে আগ্রহী।



সবশেষে যার বিষয়ে লিখবো, তিনি প্রতিনিয়ত নিজেকে নিজে ছাড়িয়ে যাচ্ছেন। বিতর্কসহ পুরো সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রে এবং কর্মক্ষেত্রে যেখানেই যাচ্ছেন, তার প্রতিভার স্বাক্ষর রাখছেন। তিনি হচ্ছেন বহুল পরিচিত রাসেল হাসান। পাঞ্জেরী-চাঁদপুর কণ্ঠ বিতর্ক দিয়ে যিনি তার জাত চিনিয়েছিলেন। পাঞ্জেরী-চাঁদপুর কণ্ঠে তার নেতৃত্বাধীন দল টানা ২ বার চ্যাম্পিয়ন হয়। সেই সাথে দুদক বিতর্কে টেলিভশন পর্যায় পর্যন্ত নিয়ে যান নিজের দলকে।



একজন ভালো ছড়াকার, আবৃত্তি শিল্পী, কথাশিল্পী রাসেল চাঁদপুর জেলা ও ফরিদগঞ্জ উপজেলার নামে দুটি গান লিখে আলোড়ন সৃষ্টি করেছেন। সম্প্রতি ফরিদগঞ্জের গাজীপুর মুসলিম উচ্চ বিদ্যালয়ের এক ছাত্রী তার চাঁদপুর জেলা নিয়ে লিখা গানটি গেয়ে উপস্থিত সংসদ সদস্যসহ সকলের প্রশংসা কুড়িয়েছে। রাসেল ফরিদগঞ্জ এ. আর. পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক, গৃদকালিন্দিয়া হাজেরা হাসমত ডিগ্রি কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক এবং চাঁদপুর সরকারি কলেজের রসায়নবিজ্ঞান বিভাগ হতে অনার্স শেষ করেছেন। পড়ালেখার পাশাপাশি তিনি ফরিদগঞ্জ এ. আর. পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ে ৪ বছর শিক্ষকতা করেন। বর্তমানে চাঁদপুর শহরের গণি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক হিসেবে চাকুরি করছেন। এছাড়া তিনি চাঁদপুরের ইতিহাসে বিতর্ক শিল্পকে এগিয়ে নিতে গড়ে ওঠা চাঁদপুর বিতর্ক একাডেমির উপাধ্যক্ষ হিসেবে কাজ করছেন। তবে অনন্য এই প্রতিভাকে নষ্ট করতে বহু চেষ্টা করেছে কথিত প্রগতিশীল চক্র। কিন্তু তাদের শত বাধা পেরিয়ে রাসেল এগিয়ে যাচ্ছেন স্বমহিমায়। তার ইচ্ছা প্রিয় প্রতিষ্ঠান চাঁদপুর কণ্ঠের মাধ্যমেই বিতর্ক শিল্পকে আরো অনেক কিছু দেয়ার।



 



 



 



 



 



 



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
১৪৮৩২৯
পুরোন সংখ্যা