চাঁদপুর, সোমবার ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ২৯ মাঘ ১৪২৫, ৫ জমাদিউস সানি ১৪৪০
redcricent
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৪৯-সূরা হুজুরাত


১৮ আয়াত, ২ রুকু, 'মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


৪। যাহারা ঘরের বাহির হইতে তোমাকে উচ্চস্বরে ডাকে, তাহাদের অধিকাংশই নির্বোধ,


৫। তুমি বাহির হইয়া উহাদের নিকট আসা পর্যন্ত যদি উহারা ধৈর্য ধারণ করিত, তাহাই উহাদের জন্য উত্তম হইত। আল্লাহ ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু।


 


 


assets/data_files/web

কোনো বড় কাজই উৎসাহ ছাড়া লাভ হয়নি। -ইমারসন।


 


 


 


নিঃসন্দেহে তিন প্রকার লোকের দোয়া কবুল হয়-পিতার দোয়া, মোসাফিরের দোয়া এবং অত্যাচারিত ব্যক্তির দোয়া।


 


 


ফটো গ্যালারি
বাণী
১১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


যুক্তি চর্চার অনবদ্য ও কার্যকর শিল্প বিতর্ক। মানসম্মত বিতর্ক চর্চাই পারে 'যুক্তির আলোয় মানুষের মুক্তি খুঁজে' দিতে। বিতর্ক প্রতিযোগিতার মাধ্যমে বিতার্কিকগণ যুক্তির শুদ্ধতা, বক্তব্যের সাবলীলতা, তত্ত্ব ও তথ্যনিষ্ঠার মাধ্যমে একে অপরের সাথে নিজেকে মেলে ধরতে পারে। বিতর্ক বিশুদ্ধ জ্ঞানার্জন ও মুক্তবুদ্ধির চর্চাকারী একটি প্রজন্ম তৈরিতে কার্যকর ভূমিকা রেখে থাকে।



বিতর্ক একটি বাচিক শিল্প। এই শিল্পকে আয়ত্তে আনতে প্রচুর পড়াশোনা করতে হয়, মেধা খাটাতে হয় এবং প্রত্যুৎপন্নমতিত্বের পরিচয় দিতে হয়। এতে একদিকে শিক্ষার্থীদের সৃজনশীলতার বিকাশ হয়, পরমতসহিষ্ণুতার মত



 



বিরল গুণ অর্জিত হয়, অন্যদিকে তাদের ক্যারিয়ারেও ইতিবাচক প্রভাব ফেলে। উদাহরণস্বরূপ, আজকের মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী একজন মেধাবী শিক্ষার্থীর পাশাপাশি একজন দক্ষ বিতার্কিকও ছিলেন।



একসময় আমাদের দেশে বিতর্ক চর্চা নগরকেন্দ্রিক শিক্ষার্থীদের মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল। মফস্বল বা গ্রাম পর্য়ায়ের শিক্ষার্থীদের বিতর্ক চর্চায় প্রতিনিধিত্ব ছিল একেবারে নগণ্য। অথচ গণতান্ত্রিক ও শোষণমুক্ত মানবিক সমাজ প্রতিষ্ঠাকল্পে শহর-গ্রাম নির্বিশেষে যুক্তিনির্ভর ও যুক্তিমনস্ক প্রজন্ম গড়ে তোলা জরুরি। সৃষ্টিশীল ও মেধা বিকাশের ক্ষেত্র হিসেবে বিতর্ক চর্চাকে কেন্দ্র থেকে প্রান্তিক পর্য়ায়ে ছড়িয়ে দেয়া অত্যাবশ্যক। নানা বাধার বিন্ধ্যাচল পেরিয়ে চাঁদপুর জেলায় শ্রমসাধ্য এই কর্মযজ্ঞটি দীর্ঘ এগারো বছর যাবৎ সাফল্যের সাথে পরিচালনা করে যাচ্ছে দৈনিক চাঁদপুর কণ্ঠ 'পাঞ্জেরী-চাঁদপুর কণ্ঠ বিতর্ক প্রতিযোগিতা'র মাধ্যমে। জেলা পর্যায়ে দীর্ঘদিন ধরে এরূপ ধারাবাহিক প্রতিযোগিতা সত্যিই বিরল।



বিতর্ক প্রতিযোগিতা ছাড়াও জেলার যে কোনো প্রান্তে সব ধরণের সৃজনশীল ও মহৎ কাজে চাঁদপুর কণ্ঠ সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয় সবার আগে, যা সত্যিই অনুপ্রেরণাদায়ক। আমি 'পাঞ্জেরী-চাঁদপুর কণ্ঠ বিতর্ক প্রতিযোগিতা'র এগারো বছরের এই আয়োজনের সার্বিক সাফল্য কামনা করছি। নতুন বিতার্কিক তৈরির সূতিকাগার এই বিতর্ক প্রতিযোগিতা উত্তরোত্তর সমৃদ্ধি হোক এই কামনা করছি।



মোহাম্মদ হাবিব উল্লাহ মারুফ



উপজেলা নির্বাহী অফিসার



শাহ্রাস্তি, চাঁদপুর।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
১৬২১১৬
পুরোন সংখ্যা