চাঁদপুর, শনিবার ৬ এপ্রিল ২০১৯, ২৩ চৈত্র ১৪২৫, ২৯ রজব ১৪৪০
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৪৮-সূরা ফাত্হ্

২৯ আয়াত, ৪ রুকু, মাদানী

১৫। তোমরা যখন যুদ্ধলব্ধ সম্পদ সংগ্রহের জন্য যাইবে তখন যাহারা পশ্চাতে রহিয়া গিয়াছিল, তাহারা বলিবে, ‘আমাদিগকে তোমাদের সঙ্গে যাইতে দাও।’ উহারা আল্লাহর প্রতিশ্রুতি পরিবর্তন করিতে চায়। বল, ‘তোমরা কিছুতেই আমাদের সংগী হইতে পারিবে না। আল্লাহ পূর্বেই এইরূপ ঘোষণা করিয়াছেন।’ উহারা অবশ্যই বলিবে, ‘তোমরা তো আমাদের প্রতি বিদ্বেষ পোষণ করিতেছ।’ বস্তুত উহাদের বোধশক্তি সামান্য।


assets/data_files/web

অপ্রয়োজনে প্রকৃতি কিছুই সৃষ্টি করে না। -শংকর।


 


 


কবর এবং গোসলখানা ব্যতীত সমগ্র দুনিয়াই নামাজের স্থান।


 


 


 


ফটো গ্যালারি
নিষ্ঠাবান দায়িত্বপ্রাপ্ত শিক্ষকের কথা
বিদ্যমান নিয়মনীতি, শৃঙ্খলা ও সময়নিষ্ঠা অটুট থাকুক
তাজুল ইসলাম
০৬ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


তাজুল ইসলাম শাহরাস্তি ন্যাশনাল ভিক্টোরি স্কুল এন্ড কলেজ প্রাথমিক পর্যায়ের বিতর্ক দলের দায়িত্বপ্রাপ্ত শিক্ষক। তিনি মনে করেন, বিতর্ক কখনোই সত্যিকারভাবে ক্লান্তিকর হতে পারে না। তিনি বলেন, বিতর্কে লেগে থাকার জন্যে পরিবারিক এবং প্রাতিষ্ঠানিক উৎসাহ প্রয়োজন। সম্প্রতি বিতর্কের নানা বিষয় নিয়ে তার সাথে কথা হয় 'বিতর্কায়নে'র। সে কথামালার নির্বাচিত অংশ আজ প্রকাশিত হলো।



বিতর্কায়ন : বিতর্কের জন্যে আপনার দলকে নিয়ে এতোটা পথ পাড়ি দিয়ে কি আপনি ক্লান্ত, না উজ্জীবিত?



তাজুল ইসলাম : বিতর্ক কখনোই সত্যিকার ভাবে ক্লান্তিকর হতে পারে না। অবশ্যই আমি উজ্জীবিত। এভাবেই বিতর্কের সাথে সব সময় জড়িত হতে পারলে নিজেকে ভাগ্যবান মনে করবো।



বিতর্কায়ন : বিতর্ক নিয়ে আপনার আনন্দ ও বেদনার অভিজ্ঞতাগুলো কী কী?



তাজুল ইসলাম : বিতর্কে যখন আমার স্কুলের শিক্ষার্থীরা বিজয় অর্জন করে, তখন আনন্দে আত্মহারা হয়ে পড়ি। একাদশ পাঞ্জেরী-চাঁদপুর কণ্ঠ বিতর্কে শাহরাস্তিতে চ্যাম্পিয়ন হওয়া তার মাঝে একটি। কিন্তু বিজিত হলেও এটা বেদনা পাওয়ার মতো কিছু হতো না।



বিতর্কায়ন : কতোদিন বিতর্কের সাথে থাকতে চান? বিতর্কে লেগে থাকার জন্যে আসলে কী করা প্রয়োজন?



তাজুল ইসলাম : যতোদিন বেঁচে আছি ততোদিন থাকতে চাই। বিতর্কে লেগে থাকার জন্যে প্রথম প্রয়োজন পারিবারিক এবং প্রতিষ্ঠানের উৎসাহ। এছাড়াও পর্যাপ্ত সময়ের প্রয়োজন।



বিতর্কায়ন : পাঞ্জেরী-চাঁদপুর কণ্ঠ বিতর্কের মান বৃদ্ধিতে আপনার কোনো পরামর্শ আছে কি?



তাজুল ইসলাম : অবশ্যই আছে। এক্ষেত্রে বিতর্কের মান বৃদ্ধিতে প্রত্যেক উপজেলায় বিতর্কের ওপর প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা প্রয়োজন। জেলা পর্যায়ের বাইরে জাতীয় পর্যায়ে বিতর্কের ব্যবস্থা করা।



বিতর্কায়ন : উপরোক্ত প্রশ্নমালার বাইরে আপনার কোনো বক্তব্য থাকলে বলুন।



তাজুল ইসলাম : চাঁদপুর কণ্ঠ ও পাঞ্জেরী বিতর্ক যথেষ্ট উন্নত পর্যায়ে রয়েছে। বিদ্যমান নিয়মনীতি, শৃঙ্খলা, সময়নিষ্ঠা অটুট থাকুক। এটা সবসময় চাই।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৬০৯৫২৭
পুরোন সংখ্যা