চাঁদপুর। বুধবার ২১ জুন ২০১৭। ৭ আষাঢ় ১৪২৪। ২৫ রমজান ১৪৩৮

বিজ্ঞাপন দিন

বিজ্ঞাপন দিন

সর্বশেষ খবর :

  • আজ ভোরে অ্যাডঃ এ.বি.এম. মোনাওয়ার উল্লা মৃত্যুবরন করেছেন (ইন্নালিল্লাহে.....রাজেউন)। তাঁর মৃত্যুতে চাঁদপুর রোটারী ক্লাব ও চাঁদপুর ডায়াবেটিক সমিতির পক্ষ থেকে গভীর শোক জানিয়েছেন
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

২৮-সূরা কাসাস 


৮৮ আয়াত, ৯ রুকু, ‘মক্কী’


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


৬২। এবং সেই দিন তিনি উহাদিগকে আহ্বান করিয়া বলিবেন, ‘তোমরা যাহাদিগকে আমার শরীক গণ্য করিতে, তাহারা কোথায়?’


দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


 


স্বপ্নে রাজা হয়েছে, এমন লোকের সংখ্যা কম নয়।                    -জজ ওয়েস্ট স্টোন।


 


যারা পয়গম্বরদের (নবীদের) কবর পূজা করে, তারা অভিশপ্ত হোক। 


 

মনতলা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ
স্টাফ রিপোর্টার
২১ জুন, ২০১৭ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+

ফরিদগঞ্জের মনতলা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মনোনীত, আর্থিক অনিময়সহ নানা দুর্নীতির অভিযোগ পাওয়া গেছে। সম্প্রতি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হারুনুর রশিদ-এর বিরুদ্ধে এ সংক্রান্ত একটি লিখিত অভিযোগ পাওয়া যায়।

লিখিত অভিযোগসূত্রে জানা যায়, গত ১৪ই মে ম্যানেজিং কমিটির সভায় প্রধান শিক্ষক হারুনুর রশিদ কমিটির সকল সদস্য ও শিক্ষক প্রতিনিধিদের কাছ থেকে রেজুলেশনের প্রয়োজন বলে রেজুলেশন বইয়ের অলিখিত পাতায় স্বাক্ষর নিয়ে নেন। এ স্বাক্ষর ব্যবহার করিই তিনি ফরিদগঞ্জ এ.আর. উচ্চ বিদ্যালয়ের বর্তমান প্রধান শিক্ষক রুহুল আমিন কাজলকে সভাপতি মনোনীত করে বোর্ডে প্রস্তাব প্রেরণ করেন। অথচ এ বিষয়ে কমিটির কেউই অবগত ছিলেন না।

এছাড়া অভিযোগ রয়েছে স্কুল পরিচালনা কমিটির সদস্য নাছির উদ্দিন পাটোয়ারী প্রধান শিক্ষকের ইঙ্গিতে ও উপস্থিতিতে বিদ্যালয়ের অফিস কক্ষে ইংরেজির সহকারী শিক্ষক মোঃ নুরুল আমিনকে অশালীন ভাষায় আক্রমণ করেন।

দৈনিক চাঁদপুর কণ্ঠের কাছে আসা মনতলা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও এলাকাবাসীর লিখিত অভিযোগে আরো বলা হয়েছে, প্রধান শিক্ষক প্রতিষ্ঠানের আয়, ব্যয়ের সঠিক হিসাব রাখছেন না। ফলে স্কুলটি তলাবিহীন ঝুড়িতে পরিণত হয়েছে। এছাড়াও প্রধান শিক্ষকের বদান্যতায় দুর্নীতিবাজ সদস্য নাছির উদ্দিন পাটোয়ারী ও বিধান চন্দ্রকে অর্থ কমিটির সদস্য পদে নেয়া হয়েছে।

নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক বিদ্যালয়ের একজন অভিভাবক বলেন, স্কুল নিয়ে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে সহকারী শিক্ষক ও এলাকাবাসীর অভিযোগের শেষ নেই। তিনি জালিয়াতি করে সভাপতি পদে রুহুল আমিন কাজলের নাম প্রস্তাব করে বোর্ডে কাগজপত্র পাঠান। পরিচালনা কমিটির সদস্য নাছির উদ্দিন পাটোয়ারী তাকে স্কুলের দুর্নীতি ও অনিয়মের কাজে সহযোগিতা করেন। আমরা চাই ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপে স্কুল থেকে অনিয়ম দূর হোক।

নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক স্কুল পরিচালনা কমিটির এক সদস্য বলেন, প্রধান শিক্ষক হারুনুর রশীদ ম্যানেজিং কমিটির নতুন সভাপতির নাম প্রস্তাব করে বোর্ডে পাঠিয়েছেন, অথচ আমরা ম্যানেজিং কমিটির সদস্য কেউই জানি না। তিনি আমাদের সাথে এ বিষয়ে কোনো আলাপ-আলোচনা করেননি। এছাড়া তিনি আট-নয় মাস হয়ে গেলেও কমিটির কাছে অর্থ সংক্রান্ত কোনো হিসাব দেননি।

স্কুলের প্রধান শিক্ষক মোঃ হারুনুর রশিদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি সকল অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমি এককভাবে ম্যানেজিং কমিটির নাম প্রস্তাব করে বোর্ডে পাঠাইনি। কমিটির সভাপতি ড. মোঃ শামসুল হক ভঁূইয়া এমপি ও উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোস্তাফিজুর রহমানসহ কমিটির সকল সদস্যের উপস্থিতিতে এবং সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক রুহুল আমিন কাজলকে সভাপতি মনোনীত করে বোর্ডে নাম পাঠানো হয়েছে। আমার কাছে সে সভার উপস্থিতি স্বাক্ষর রয়েছে। আর্থিক অনিয়মের অভিযোগও মিথ্যা বলে তিনি দাবি করেন।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, আমার উপস্থিতিতেই সভাপতি মনোনয়ের সভা অনুষ্ঠিত হয়। সে সভার সাক্ষরও রয়েছে। জালিয়াতির এমন অভিযোগ সত্য নয়।

আজকের পাঠকসংখ্যা
৪৩১৪২৪
পুরোন সংখ্যা