চাঁদপুর। মঙ্গলবার ২৫ ডিসেম্বর ২০১৮। ১১ পৌষ ১৪২৫। ১৭ রবিউস সানি ১৪৪০
redcricent
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • চাঁদপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য ডাঃ দীপু মনি শিক্ষামন্ত্রীর দায়িত্ব পেয়েছেন || চাঁদপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য দীপু মনি শিক্ষামন্ত্রীর দায়িত্ব পেয়েছেন || *
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৪৫-সূরা জাছিয়া :

৩৭ আয়াত, ৪ রুকু, মক্কী

পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।

৩১। পক্ষান্তরে যাহারা কুফরী করে তাহাদিগকে বলা হইবে, তোমাদের নিকট কি আমার আয়াতসমূহ পাঠ করা হয় নাই? কিন্তু তোমরা ঔদ্ধত্য প্রকাশ করিয়াছিলে এবং তোমরা ছিলে এক অপরাধী সম্প্রদায়।  

 


assets/data_files/web

অসৎ আনন্দের চেয়ে পবিত্র বেদনা মহৎ।

-হোমার


দোলনা থেকে কবর পর্যন্ত জ্ঞান চর্চায় নিজেকে উৎসর্গ করো।

 


ফটো গ্যালারি
মোহাম্মদ আলাউদ্দিন
আমার দেখা সেরা শিক্ষক
আমজাদ হোসাইন
২৫ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


শিক্ষা জীবনের শুরু থেকে অর্থাৎ সেই প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত অসাধারণ অনেক ভালো শিক্ষকের ছাত্র হতে পেরেছি। কিন্তু যদি আমার দেখা সবচেয়ে সেরা শিক্ষক সম্পর্কে বলতে হয় তাহলে একজন শিক্ষকের কথাই আমি বলব। যিনি আমার এই ক্ষুদ্র জীবনের চলার পথে সবচেয়ে বেশি প্রেরণা ও উৎসাহ জুগিয়েছেন। আমার সেই প্রিয় শিক্ষকের নাম মোহাম্মদ আলাউদ্দিন। আমার পড়াশোনার হাতেখড়ি হয় বাবা মায়ের কাছে। বাবা-মা দুজন ছিলেন প্রাইমারি স্কুল শিক্ষক। আর সে স্কুলেই শেষ হয় আমার প্রাথমিক শিক্ষা। এরপর বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান পেরিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের গ-ি শেষ করে শিক্ষা জীবনের পড়ন্তলগ্নে যখন সেরা শিক্ষকের সন্ধান করি তখনি বাবা-মায়ের পর এই শিক্ষকের কথা মনে পড়ে যায়।



তিনি হলেন চাঁদপুর সরকারি কলেজ সমাজকর্ম বিভাগের বিভাগীয় প্রধান। শিক্ষার্থীদের কাছে তিনি কেবলই একজন শিক্ষক নন, তিনি একজন ভালো বন্ধুও বটে। তাই তিনি আমার মতো হাজারো ছাত্রের প্রিয় শিক্ষক, কারো কারো অভিভাবকতুল্য মানুষ। শিক্ষকদের কাছেও সমানভাবে জনপ্রিয়। পুরো প্রতিষ্ঠানে এমন শিক্ষার্থী খুব কমই আছে যারা তাঁকে চিনেন না। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজকল্যাণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট থেকে বিএসএস ও এমএসএস শেষ করে পাবলিক সার্ভিস কমিশনের মাধ্যমে স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের অধীনে খাগড়াছড়ি জেলায় তার কর্মজীবন শুরু করেন। কিছুদিন চাকরি করার পর তার মনে হলো এখানে থেকে তিনি দেশ ও জাতি গঠনে যতটুকু শ্রম দিতে পারেছেন শিক্ষকতা পেশা হিসেবে পেলে হয়তো এর চেয়েও বেশি শ্রম দিতে পারবেন। এ প্রসঙ্গে একদিন গল্প করতে গিয়ে স্যার বলেন, 'জীবন সায়াহ্নে এসে যখন নিজেকে প্রশ্ন করবো, দেশ ও জাতির জন্য কী করতে পেরেছি? তখন হয়তো নিজের সক্ষমতা নিয়ে অনুতপ্ত হবো। তাই বিবেকের তাড়নায় শিক্ষকতা পেশায় আসার সিদ্ধান্ত নেই। পরবর্তীতে ১৪তম বিসিএস-এর মাধ্যমে সাধারণ শিক্ষা ক্যাডারে শিক্ষক হিসেবে কর্মজীবন শুরু করি।'



অতঃপর তিনি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে অধ্যাপনা করে সর্বশেষ ২০১১ সালে চাঁদপুর সরকারি কলেজে যোগদান করেন। সমাজকর্ম বিভাগের বিভাগীয় প্রধানের দায়িত্ব পাওয়ার পর তিনি বিভাগটিকে নিজের মতো করে সাজিয়ে তোলেন।



পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের মেধা বিকাশে নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করেন। ধীরে ধীরে উক্ত বিভাগটি শিক্ষার্থীদের ভালো ফলাফলের পাশাপাশি বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, সেমিনার ও শিক্ষা ভ্রমণের মাধ্যমে পুরো কলেজের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে সক্ষম হয়। তার এমন নিবেদিত কর্মকা-ে সন্তুষ্ট হয়ে কলেজের অধ্যক্ষ মহোদয় তাঁকে উক্ত কলেজের ছাত্রীদের জন্য একমাত্র আবাসিক হল শেখ হাসিনা ছাত্রী নিবাসের দায়িত্ব অর্পণ করেন।



তিনি তার পাঠদান শুধুমাত্র সিলেবাস কিংবা শ্রেণিকক্ষে সীমাবদ্ধ রাখেন না। জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে একজন দক্ষ নাগরিক হিসেবে নিজেকে তৈরি করার সব ধরনের মন্ত্র শিখিয়ে দেন। প্রতিষ্ঠান ও প্রতিষ্ঠানের বাইরে তিনি নিজেকে একজন ভালো বন্ধু হিসেবে শিক্ষার্থীদের মাঝে মিশে যান। যা তাকে অন্যদের থেকে আলাদা করে দেখার সুযোগ করে দেয়। একজন শিক্ষার্থীর দৃষ্টিতে সেরা শিক্ষক হওয়ার গৌরব অর্জনে অন্যতম প্রধান ভূমিকা পালন করে। ১৯৯৩ সালের ১৫ নভেম্বর তিনি লক্ষ্মীপুর সরকারি কলেজে যোগদানের মাধ্যমে শিক্ষকতা পেশা হিসেবে গ্রহণ করেন। তাঁর শিক্ষকতা পেশার গৌরবোজ্জ্বল ২৫ বছর পূর্তিতে তার একজন নগণ্য ছাত্র হিসেবে জানাচ্ছি বিনম্র শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা।



 



লেখক : সমাজকর্মী।



 



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৪১৬৪৬২
পুরোন সংখ্যা