চাঁদপুর, বুধবার ৬ নভেম্বর ২০১৯, ২১ কার্তিক ১৪২৬, ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫৭-সূরা হাদীদ


২৯ আয়াত, ৪ রুকু, মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


২১। তোমরা অগ্রণী হও তোমাদের প্রতিপালকের ক্ষমা ও সেই জান্নাত লাভের প্রয়াসে যাহা প্রশস্ততায় আকাশ ও পৃথিবীর মত, যাহা প্রস্তুত করা হইয়াছে তাহাদের জন্য যাহারা আল্লাহ ও তাঁহার রসূলগণে ঈমান আনে। ইহা আল্লাহর অনুগ্রহ, যাহাকে ইচ্ছা তিনি ইহা দান করেন; আল্লাহ মহাঅনুগ্রহশীল।


 


 


 


 


 


যারা কখনো ক্ষতিগ্রস্ত হতে চায় না, তারা কোনোদিন লাভবান হতে পারে না। -ডেভিড জেফারসন।


 


 


নামাজ হৃদয়ের জ্যোতি, সদকা (বদান্যতা) উহার আলো এবং সবুর উহার উজ্জ্বলতা।


 


 


 


 


ফটো গ্যালারি
শিক্ষক আমি শ্রেষ্ঠ সবার
ইউনুস পাটোয়ারী
০৬ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


'শিক্ষক আমি শ্রেষ্ঠ সবার।' আসুন শিক্ষক হিসেবে আমরা আমাদের নৈতিক মান বজায় রাখতে সচেষ্ট হই।



শিক্ষকের নৈতিক দায়িত্ব : শিক্ষক যখন শিক্ষকতা পেশা গ্রহণ করেছেন তখন এ পেশার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট বেশ কিছু দায়িত্ব নীতিগতভাবে তাঁর উপর বর্তায়। এ সকল নৈতিক দায়িত্ব তাকেই পালন করতে হয়। যেমন :



 



(ক) পেশার প্রতি অঙ্গীকারাবদ্ধ ও একাগ্র থাকা : শিক্ষককে তাঁর শিক্ষকতার দায়িত্ব পালনে অঙ্গীকারাবদ্ধ হতে হবে। তিনি সুষ্ঠু ও যথাযথভাবে তাঁর এ দায়িত্ব পালন করবেন। মনে প্রাণে এটাকে গ্রহণ করে নিয়ে তাঁর দায়িত্ব পালনে শিথিলতা আসলে ভবিষ্যত প্রজন্মের ক্ষেত্রে যে ক্ষতি হবে সেটা জাতীয় ক্ষতি, অতএব এটা তিনি হতে দিবেন না। তাঁর ভিতর এ নৈতিক অঙ্গীকার থাকবে। অতএব তিনি একাগ্রভাবে তার দায়িত্ব পালন করবেন।



 



(খ) দায়িত্ব পালনে সচেতন থাকা : তিনি শিক্ষক অতএব সমাজ, জাতি, অভিভাবক ও তার প্রিয় শিক্ষার্থী তাঁর নিকট কী আশা করে, তাঁর শিক্ষার্থীর প্রতি তাঁর দায়িত্বটা কী_ এসব উপলব্ধি তাঁর ভিতর থাকতে হবে। অতএব দায়িত্ব পালন করে তাঁর কর্মের উদ্দেশ্য সাধন ক'রে লক্ষ্যে পৌছার জন্য সচেতন থাকা তাঁর নৈতিক দায়িত্ব।



 



(গ) কর্মে দক্ষতা প্রদর্শন : শিক্ষক তাঁর শিক্ষকতা পেশায় তাঁর দায়িত্ব সুচারুরূপে সম্পন্ন করার জন্য দক্ষতা অর্জন করবেন এবং দক্ষতা প্রদর্শন করবেন; অদক্ষ শিক্ষকের নিকট থেকে শিক্ষার্থীরা এবং প্রতিষ্ঠান যথাযথ সেবা পায় না, আশানুরূপ উপকারও পাবে না। অতএব দক্ষতা অর্জন এবং তার প্রয়োগ শিক্ষকের নৈতিক দায়িত্ব।



 



(ঘ) নিরলস জ্ঞান চর্চা : শিক্ষককে নিরলসভাবে জ্ঞান চর্চা করতেই হবে। শিক্ষার শেষ নেই আর শিক্ষকের জ্ঞান অর্জন ও দক্ষতা অর্জন কখনও শেষ হয়ে যায় না। যে শিক্ষক জ্ঞান চর্চা করেন নিঃসন্দেহে তিনি দক্ষ ও অভিজ্ঞ হয়ে উঠেন এবং তাঁর সাহচর্যে তাঁর শিক্ষার্থীরা অজান্তেই অনেক কিছু তাঁর নিকট থেকে শিখে থাকে। তিনি নিজেও উপকৃত হন। জ্ঞান দান ও জ্ঞান অর্জন যুগপৎ ভাবে অবস্থান করে। অতএব শিক্ষকের জন্য জ্ঞান চর্চা করার কোন বিকল্প নেই। এটা তাঁর একটি নৈতিক দায়িত্ব।



(ঙ) ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি লালন ও জাগ্রত করা : শিক্ষক তাঁর শিক্ষকতা পেশাকে বড় করে দেখবেন। অন্য যে কোন পেশার চেয়ে শিক্ষকতা পেশা একটি আদর্শ, মর্যাদাবান ও মহৎ পেশা হিসেবে এটাকে মনে প্রাণে আঁকড়ে ধরবেন। 'শিক্ষক' অর্থই 'আদর্শ ব্যক্তি' অতএব সকল পেশার ঊর্ধ্বে এ পেশা। সে হিসেবে এ পেশার মান ও মর্যাদা রক্ষা করে চলা শিক্ষকের নৈতিক দায়িত্ব।



 



(চ) সমাজে সচেতন থাকা ও সামাজিক কমর্কা-ে অবদান রাখার প্রত্যয় রাখা : শিক্ষক সমাজের একজন ব্যক্তি। আদর্শ ব্যক্তি হিসেবে তিনি পরিচিত। তাঁর এই মর্যাদা অক্ষণ্ন রাখার জন্য তিনি সচেতন থাকবেন। অন্যদিকে তিনি সমাজের মর্যাদাবান ব্যক্তি হিসেবে সমাজ পরিচালনায় ভূমিকা রাখবেন। সামাজিক কর্মকাণ্ডে নিজেকে সম্পৃক্ত রাখবেন। অন্যায় ও অনাদর্শ কাজ থেকে সম্ভব মত অন্যকে বিরত রাখার চেষ্টা করা তাঁর যেমন নৈতিক দায়িত্ব তেমনি সামাজিক উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডে অংশগ্রহণ করাও তার নৈতিক দায়িত্ব। তাছাড়া একজন শিক্ষক সমাজ সংস্কারক এবং সমাজ শাসক হিসাবেও দায়িত্ব পালন করে থাকেন।



তাঁর দায়িত্বসমূহ হল : ১। সমাজ সংস্কারক হিসাবে



২। নিরক্ষরতা দূরীকরণ



৩। কুসংস্কার দূরীকরণ



৪। স্বাস্থ্য সচেতনতা জাগ্রত করা



৫। পরিবেশ সচেতনতা জাগ্রতকরণ



৬। পরিকল্পনা প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন



৭। সমাজের উন্নয়ন সাধন। আসুন শিক্ষক হিসেবে আমরা আমাদের নৈতিক মান বজায় রাখতে সচেষ্ট হই। 'শিক্ষক আমি, শ্রেষ্ঠ সবার।'



 



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
১৩৪৭৭৮
পুরোন সংখ্যা