চাঁদপুর, মঙ্গলবার ৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ২১ মাঘ ১৪২৬, ৯ জমাদিউস সানি ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৬৩-সূরা মুনাফিকূন


১১ আয়াত, ২ রুকু, মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


৫। যখন উহাদিগকে বলা হয়, 'তোমরা আইস, আল্লাহর রাসূল তোমাদের জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করিবেন, তখন উহারা মাথা ফিরাইয়া লয় এবং তুমি উহাদিগকে দেখিতে পাও, উহারা দম্ভভরে ফিরিয়া যায়।


 


সভ্যতাই সভ্য মানুষ তৈরির যন্ত্র।


-জন রাসকিন।


 


 


প্রভু, তুমি যেমন আমার আকৃতি পরম সুন্দর করে গঠন করেছো, আমার স্বভাবও তদ্রূপ সুন্দর করো।


ফটো গ্যালারি
আমাদের হিসাববিজ্ঞান বিভাগ
আবদুর রাজ্জাক
০৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


শুরুতে সবাইকে জানাই আমার সালাম ও আন্তরিক ভালোবাসা। ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বর মাসে যখন স্নাতক (সম্মান) শ্রেণির জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি বিজ্ঞপ্তি দেয় সাথে সাথে কোনো কিছু চিন্তা না করে চাঁদপুর সরকারি কলেজে হিসাববিজ্ঞান বিষয়টি আমার ১ম পছন্দের তালিকায় দিয়ে দিই। আমার আর কোনো বিষয় পছন্দের তালিকায় ছিলো না। যখন রেজাল্ট প্রকাশিত হবে জানতে পারলাম তখন অনেক চিন্তায় পড়ে গেলাম। আমি তো মাত্র একটি বিষয় পছন্দ দিয়েছি, আমার বিষয় কি আসবে? যখন রেজাল্ট প্রকাশিত হলো তখন দেখলাম, আমি প্রথম মেরিট লিস্টে চাঁদপুর সরকারি কলেজে হিসাববিজ্ঞান বিষয় নিয়ে পড়ার জন্যে মনোনীত হয়েছি। তারপর ১৫ নভেম্বর ভর্তি হওয়ার জন্যে চলে আসলাম। সাথে ছিলো আমার সবচেয়ে কাছের বন্ধু ইব্রাহিম চৌধুরী (অন্তু) আমার রোল হলো ২৭৬৮ আর অন্তুর হলো ২৭৬৯। এভাবে আমার হিসাববিজ্ঞান বিভাগের সাথে পথচলা শুরু হয়। ২০১৫ সালে পহেলা ডিসেম্বর ছিলো আমাদের নবীন বরণ। যখন ক্লাসে প্রবেশ করলাম, তখন নিজেকে অনেক অসহায় মনে হলো। কারণ তখন আমি কাউকে চিনি না, জানি না। প্রথমে আমাদের ক্লাসে আসলেন সাজ্জাদ স্যার। তিনি তার পরিচয় দিয়ে আমাদের সাথে অনেকক্ষণ কথা বলেন। তারপর সকল স্যারদের সাথে পরিচয় করিয়ে দেন আমাদের বিভাগীয় প্রধান বেলাল হোসাইন স্যার। প্রথম বর্ষে আমার বেশি ক্লাস করা হয়নি। তাই কোনো স্যারের সাথে সেভাবে পরিচিত হতে পারিনি। ২য় বর্ষ থেকে আমার হিসাববিজ্ঞান বিভাগের প্রতি বেশি আবেগ আর ভালোবাসা কাজ করতে শুরু করে। কোনোদিন ক্লাস না করতে পারলে আমার ভালো লাগতো না। স্যারদের সাথে আস্তে আস্তে পরিচিতি বাড়তে থাকলো। স্যাররাও আমাকে অনেক কাছে টেনে নিতে শুরু করলো। আস্তে আস্তে



বিভাগের বিভিন্ন অনুষ্ঠানের দায়িত্ব নেয়া শুরু করলাম। এভাবে চলে গেলো ২য় বর্ষটি। শুরু হলো ৩য় বর্ষ। আমাদের ৭ম ব্যাচ প্রথমবারের মতো স্যারদের সহযোগিতায় স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে কুইজ প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। তারপর আমাদের মাঝে আসেন আমাদের শ্রদ্ধাভাজন শিক্ষক শাহজালাল স্যার। স্যার আমাকে অনেক পছন্দ করেন। স্যারের সাথে যেদিন প্রথম আমার পরিচয় হয় সেদিন আমি ইনকোর্স পরীক্ষা দিচ্ছিলাম। ৩য় বর্ষ পরীক্ষার শেষে হিসাববিজ্ঞান বিভাগের সাথে আমার প্রথম শিক্ষা সফর। আমার জীবনে দিনটি খুবই স্মরণীয় হয়ে থাকবে। স্যাররা ছাত্র-ছাত্রীদের সাথে এতোটা মিশতে পারে তা আমি শিক্ষা সফরে না গেলে বুঝতে পারতাম না। সেদিনের সবচেয়ে মজার বিষয় ছিলো আমি আর মফিজ স্যার এক সাথে নাচ করেছিলাম। সত্য কথা বলতে কি আমি হিসাববিজ্ঞান বিভাগ থেকে অনেক কিছু অর্জন করেছি যা মাঝে মাঝে মনে করে কল্পনার রাজ্যে হারিয়ে যাই। ৪র্থ বর্ষ শুরু হওয়ার পর থেকে কেনো জানি মনের ভেতর একটু একটু করে বেদনার চিহ্ন দেখা দেয়। কারণ আমার বিবিএ-জীবন থেকে ৩টা বছর চলে গেলো। আর মাত্র ১ বছর বাকি। কোনো দিন ক্লাস মিস করতাম না। স্যারদের আমার রোল তো মুখস্ত হয়ে গেছে। স্যাররা আমার হাজিরা ডাকার সময় আমাকে হাজিরা দিতে হতো না। স্যার এমনেই দিয়ে দিতেন। ৪র্থ বর্ষের শেষদিন ছিলো আমার জীবনের সবচেয়ে কষ্টের দিন। ওইদিন স্যাররা আমাদের সাথে ৫ বিষয় ক্লাস করেন। দিনটি ছিলো অক্টোবরের ৩০ তারিখ। ক্লাস শেষ করে যখন বাসার আসলাম তখন আমার কান্না দেখে রুমমেটরা সবাই বলে ভাইয়া কান্না করেন কেনো। কান্নাজড়িত কণ্ঠে বললাম, আজ আমার বিবিএ-জীবনে শেষ ক্লাস। তাই অনেক কষ্ট লাগে। এ চার বছরে আমি অনেক স্যারকে পাই যাদের কথা আমি জীবনে কোনোদিন ভুলতে পারবো না। যেমন শ্রদ্ধেয় বেলাল স্যার, বেদারুল আলম স্যার, মফিজুর রহমান স্যার, জাকির স্যার, আতিক স্যার, মহসিন স্যার, সাজ্জাদ স্যার, শাহজালাল স্যার। এ চার বছরে আমি আমার অনেক বন্ধুদের মাঝে ঋণী হয়ে থাকবো তারা আমাকে বিভিন্নভাবে অনেক সহযোগিতা করেছে। তাদের মাঝে অন্যতম হরো অন্তু, জান্নাতুল ফেরদাউস (তমা), নুসরাত জাহান, রাসেল, তানভীর, মাসুম, ইমরান, মহিউদ্দিন, মেহেদী, নূরের নাহার, নিজাম শেখ, আকাশ, তানজিল, অন্তরসহ আরো অনেকে। এ চার বছরে পেয়েছি অনেক বড় ভাইদের কাছ থেকে ভালোবাসা আর ছোট ভাইদের কাছে সম্মান। অবশেষে সকল স্যার ও বন্ধুদের প্রতি আমার শুভেচ্ছা ও ভালোবাসা রইলো।



 



 



 



 



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৫৫৮৭৪০
পুরোন সংখ্যা