চাঁদপুর, বুধবার ১৩ জানুয়ারি ২০১৬। ৩০ পৌষ ১৪২২। ২ রবিউস সানি ১৪৩৭
ckdf

বিজ্ঞাপন দিন

সর্বশেষ খবর :

  • --
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

২২-হাজ্জ

৭৮ আয়াত, ১০ রুকূ, মাদানী

পরম করুণাাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।



১/ হে মানুষ! ভয় কর তোমাদের প্রতিপালককে; কিয়ামতের প্রকম্পন এক ভয়ংকর ব্যাপার!

২/ যে দিন তোমরা উহা প্রত্যক্ষ করিবে সেই দিন প্রত্যেক স্তন্যদাত্রী বিস্মৃত হইবে তাহার দুগ্ধপোষ্য শিশুকে এবং প্রত্যেক গর্ভবতী তাহার গর্ভপাত করিয়া ফেলিবে; মানুষকে দেখিবে নেশাগ্রস্ত সদৃশ, যদিও উহারা নেশাগ্রস্ত নহে। বস্তুত আল্লাহ্র শাস্তি কঠিন।  

দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন

 


বিপদের বন্ধুই প্রকৃত বন্ধু।

              -ইংরেজি প্রবাদ।       

                            

 



 


যে ধনী বিখ্যাত হওয়ার জন্য দান করে সে প্রথমে দোজখে প্রবেশ করবে।

                   -হযরত মুহাম্মদ (সাঃ)

 


শিক্ষার্থী সাক্ষাৎকার : মোঃ আব্দুর রহমান
সার্টিফিকেটের জন্যে নয় জ্ঞান অর্জনের লক্ষ্যেই সকলের পড়া উচিত
১৩ জানুয়ারি, ২০১৬ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


মোঃ আব্দুর রহমান। পড়াশোনা করছেন চাঁসক সমাজকর্ম বিভাগে। তার সাথে কলেজ জীবনের নানা বিষয় নিয়ে কথা হয় ক্যাম্পাস বিভাগের। তার সাক্ষাৎকারটি আজ প্রকাশিত হলো :



 



চাঁ.স.ক ক্যাম্পাস : চাঁদপুর সরকারি কলেজে পড়তে কেমন লাগছে?



 



মোঃ আব্দুর রহমান : এক সময় যখন চাঁদপুর সরকারি কলজের পাস দিয়ে হেঁটে যেতাম, কলেজের ভবনগুলোর দিকে হাঁ করে তাকিয়ে থাকতাম। আর ভাবতাম, কোনোদিন এই কলেজে পড়তে পারবো কি না? নিজেকে একজন শিক্ষার্থী হিসেবে সফল মনে করতে পেরেছি যখন চাঁদপুর সরকারি কলেজে একজন শিক্ষার্থী হিসেবে পদার্পণ করেছি। সুতরাং বলা চলে যে, চাঁদপুর সরকারি কলেজে পড়তে পারাটা আমার একটা স্বপ্নপূরণ।



 



চাঁ.স.ক ক্যাম্পাস : কলেজের যে বিষয়টি আপনার খুব ভালো লাগে_



মোঃ আব্দুর রহমান : কলেজের অনেক দিকই ভালো লাগে। তবে যখন কোনো শিক্ষক আমার নাম ধরে ডাকেন তখন খুব ভালো লাগে। কলেজের অসংখ্য ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে আমার নামটা মনে রাখার ব্যাপারটা রীতিমত অবাক লাগে।



 



চাঁ.স.ক ক্যাম্পাস : এবার আপনার প্রিয় শিক্ষকের কথা বলুন।



 



মোঃ আব্দুর রহমান : আমার বিভাগে আমার প্রিয় শিক্ষক দু'জন। একজন হলেন শ্রদ্ধেয় আলাউদ্দিন স্যার এবং অন্যজন আমাদের ফাতেমা ম্যাডাম। তাদেরকে আমার অনেক ভালো লাগে। তাদের পাঠদান দক্ষতা ও স্নেহ আমাকে অভিভূত করে।



 



চাঁ.স.ক ক্যাম্পাস : কলেজে লাইব্রেরি সম্পর্কে আপনার মূল্যায়ন কি ?



 



মোঃ আব্দুর রহমান :A Library is a store house of knowledge. তবে কলেজের লাইব্রেরিটা নিঃসন্দেহে আমার একটি প্রিয় জায়গা। লাইব্রেরিতে গেলে নিজেকে কখনো একা মনে হয় না। কারণ সাথে তো বই আছেই!!



 



চাঁ.স.ক ক্যাম্পাস : আপনি কলেজের কোন দিকটার পরিবর্তন চান?



 



মোঃ আব্দুর রহমান : কলেজ লাইব্রেরির আয়তন আরো বৃদ্ধি করা প্রয়োজন বলে আমি মনে করি। লাইব্রেরিতে টেবিলের সংখ্যা আরো অনেক বাড়ানো দরকার আছে।



 



চাঁ.স.ক ক্যাম্পাস : আপনার বন্ধুদের সম্পর্কে কিছু বলুন।



 



মোঃ আব্দুর রহমান : বন্ধু ছাড়া দুনিয়া অচল। আমার বেশ কিছু প্রিয় বন্ধু আছে। তাদের নিয়ে আমার পথচলা। বিভাগের আমার ইয়ারের প্রায় সবাই আমার ভালো বন্ধু। তাদের সাথে থাকা সময়টা আমি খুব উপভোগ করি।



 



চাঁ.স.ক ক্যাম্পাস : কলেজের খেলাধুলায় আপনি কি অংশগ্রহণ করেন?



 



মোঃ আব্দুর রহমান : খেলাধুলায় অংশগ্রহণ আমি তেমন একটা করি না। তবে কলেজ মাঠে বন্ধুদের সাথে দাঁড়িয়ে খেলা দেখতে আমার ভালোই লাগে।



চাঁ.স.ক ক্যাম্পাস : পড়াশোনার বাইরে আর কি কি করেন?



 



মোঃ আব্দুর রহমান : এর বাইরে টিউশনি করি।



 



চাঁ.স.ক ক্যাম্পাস : আপনার জীবনের লক্ষ্য কি?



 



মোঃ আব্দুর রহমান : পড়শোনা শেষ করে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীতে কাজ করতে চাই।



চাঁ.স.ক ক্যাম্পাস : সামাজিক দায়বোধক কীভাবে মূল্যায়ন করবেন?



 



মোঃ আব্দুর রহমান : সামাজিক দায়বোধ না থাকলে মানুষকে মানুষ বলা কঠিন।



চাঁ.স.ক ক্যাম্পাস : শিক্ষকদের উদ্দেশ্যে কি বলবেন?



 



মোঃ আব্দুর রহমান : শিক্ষকরা আমাদের সাথে সহানুভূতিশীল, সহযোগিতামূলক ও সমপ্রীতিমূলক আচরণ করে থাকেন। আমরা চাই এটা অব্যাহত থাকুক।



 



চাঁ.স.ক ক্যাম্পাস : অবসর সময় কি করেন?



 



মোঃ আব্দুর রহমান : গান শুনি, টিভি দেখি, বই পড়ি।



 



চাঁ.স.ক ক্যাম্পাস : সবশেষে শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে কি বলবেন?



 



মোঃ আব্দুর রহমান : আমরা সবাই পড়ি। তবে এ পড়া হয়তো সার্টিফিকেটের জন্যে পড়া। সার্টিফিকেটের জন্যে নয় জ্ঞান অর্জনের লক্ষ্যেই সকলের পড়া উচিত। সার্টিফিকেট দিয়ে তো দক্ষতা অর্জন হয় না। আমি শিক্ষার্থীদের সর্বাত্মক মঙ্গল কামনা করি।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৪৬৩৯৩৪
পুরোন সংখ্যা