চাঁদপুর। শুক্রবার ৬ জুলাই ২০১৮। ২২ আষাঢ় ১৪২৫। ২১ শাওয়াল ১৪৩৯
redcricent
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • হাজীগঞ্জে আটককৃত বিএনপি'র ১৭ নেতাকর্মীকে জেলহাজতে প্রেরন
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৩৯-সূরা আয্-যুমার

৭৫ আয়াত, ৮ রুকু, মক্কী

পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।

২৬। অতঃপর আল্লাহ তাদেরকে পার্থিব জীবনে লাঞ্ছনার স্বাদ আস্বাদন করালেন, আর পরকালের আযাব হবে আরও গুরুতর, যদি তারা জানত!

২৭। আমি এ কোরআনে মানুষের জন্যে সব দৃষ্টান্তই বর্ণনা করেছি, যাতে তারা অনুধাবন করে;

২৮। আরবী ভাষায় এ কোরআন বক্রতামুক্ত যাতে তারা সাবধান হয়ে চলে।

দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


সৌভাগ্যবান হওয়ার চেয়ে জ্ঞানী হওয়া ভালো।

-ডাবলিউ জি বেনহাম।


যে ব্যক্তি সবুর করে আল্লাহ তাকে তার শক্তি দেন, সবুরের শক্তির মতো বড় নেয়ামত আর কিছু নেই।    





                         


ফটো গ্যালারি
বর্ষায় শিশুর যত্ন
ডাঃ পীযূষ কান্তি বড়ুয়া
০৬ জুলাই, ২০১৮ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+

বর্ষা ও শিশু উভয়ই আমাদের জীবনে বিধাতার অপার করুণাসিক্ত দান। তবে বর্ষা শিশুদের জন্যে কখনো কখনো নিয়ে আসে রোগব্যাধি। একটু সচেতন থাকলেই এইসব বর্ষাকালীন রোগব্যাধি হতে শিশুদের নিরাপদ রাখা যায় সহজেই।

বর্ষাকালীন রোগ-ব্যাধি

বর্ষাকালে শিশুদের সর্দি-কাশি সাধারণ সমস্যা হয়ে উদ্ভূত হয়। বর্ষার বৃষ্টিতে শিশু যাতে না ভিজে সেদিকে নজর দেয়া জরুরি। ভিজলেই ঠিকমতো মাথা মুছিয়ে শুকনো করে তোলা সচেতন অভিভাবকের গুরুদায়িত্ব।

জলবাহিত রোগের প্রকোপ এই সময় বেশি হয়। পানিবাহিত হেপাটাইটিস বি ভাইরাসে এ সময় আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেশি। আবার জীবাণু সংক্রমণজনিত ডায়রিয়া, কলেরা ইত্যাদিও দেখা দেয়। বর্ষার ধারাজলের কারণে মলমূত্র ও পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থার বিপর্যয় দেখা দেয়। এতে এন্টেরিক ফিভার বা টাইফয়েডের সংক্রমণ ঘটে।

আবার ময়লা ও দূষিত পানিতে পা চুবিয়ে ত্বকের সংক্রমণ ও প্রদাহ এবং বিবিধ চর্মরোগ তৈরি হয়। যে সকল শিশু অ্যাজমা ও শ্বাসকষ্টে ভোগে তাদের জন্যে বিশেষ যত্নশীল হওয়া জরুরি। এইসব শিশুদের যাতে গরম-ঠান্ডার মিশ্রণ না ঘটে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। বর্ষায় নানা রকমের পোকামাকড়ের প্রজনন ঘটে ও আক্রমণ বৃদ্ধি পায়। ম্যালেরিয়া জীবাণু ও ডেঙ্গু সংক্রমণ যাতে না বাড়ে সেজন্যে আবদ্ধ ও জমে থাকা পানি ফেলে দিন। সন্ধ্যার দিকে জানালা বন্ধ করলে মশার উপদ্রব কিছুটা কমবে বা লাঘব হবে। বর্ষায় সাপের কামড়ের প্রাদুর্ভাব হয়। ঘরের চারিদিকে ফেনল বা কার্বলিক অ্যাসিড ছিটিয়ে রাখা উচিৎ। এতে সাপের উপদ্রব কমবে। বৃষ্টির পর স্যাঁতস্যাঁতে আবহাওয়ার কারণে স্ক্যাবিজ নামে চুলকানির রোগ হতে পারে যা পরিবারে অন্যান্য সদস্যকেও আক্রান্ত করতে পারে।

শিশুদের দূরে রাখার উপায়

যে সকল শিশু অ্যাজমা রোগী, তাদের বর্ষা শুরুর আগে থেকে কিটোটিফেন সিরাপ বা ট্যাবলেট শুরু করা উচিৎ। যাদের বৃষ্টিসিক্ত হওয়ার কারণে সর্দিকাশি হয় তাদের অ্যান্টি হিস্টামিন সেবন করতে দিন। পানি সর্বদা ফুটানোর পর স্বাভাবিক তাপমাত্রায় এনে পান করুন। পানীয় জলের উৎসে বৃষ্টির ময়লা জল যাতে না মিশে সেদিকে নজর দিন। জলবাহিত হেপাটাইটিস বি ভাইরাসের সংক্রমণ হতে রক্ষা পেতে শিশুদের হেপাটাইটিস বি ভাইরাসের টিকা প্রাপ্তি নিশ্চিত করুন। এন্টেরিক ফিভার বা টাইফয়েড হলে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হোন। সংক্রমণজনিত ডায়রিয়া ও কলেরায় স্বাভাবিক খাবার ও বিশুদ্ধ পানীয় খেতে দিন। ডিহাইড্রেশন রোধে শিশুকে প্রতিবার পাতলা পায়খানা ও বমির পরে রাইস স্যালাইন বা বড় শিশুদের ক্ষেত্রে ওরস্যালাইন খেতে দিন। কলেরা রোধে অ্যাজিথ্রোমাইসিন স্বাভাবিকের চেয়ে দ্বিগুণ মাত্রায় একডোজ খাইয়ে দিন। সংক্রমণজনিত ডায়রিয়ায় সিপ্রোফ্লঙ্াসিন, নিটাজঙ্ানাইড কিংবা মেট্রোনিডাজল দিন। মুখে জিংক ট্যাবলেট গুঁড়ো করে বা জিংকের সিরাপ সেবন করতে দিন। যাদের ছয় মাসের নিচে বয়স, তাদের রোটা ভাইরাসের টিকা প্রাপ্তি নিশ্চিত করুন। স্ক্যাবিজাক্রান্ত হলে তাকে পার্মিথ্রিন ক্রিম গলা হতে সারা গায়ে পর পর তিন রাত লাগাতে দিন। তিনদিনে সম্পূর্ণ টিউব ঔষধ ব্যবহার করা নিশ্চিত করুন। চর্মরোগ সংক্রমণ মোকাবেলায় শিশুদের ময়লা পানিতে নামা হতে বিরত রাখুন।

আজকের পাঠকসংখ্যা
১১৫০৯৩৭
পুরোন সংখ্যা