চাঁদপুর, শুক্রবার ১ নভেম্বরর ২০১৯, ১৬ কার্তিক ১৪২৬, ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫৭-সূরা হাদীদ


২৯ আয়াত, ৪ রুকু, মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


 


১৬। যাহারা ঈমান আনে তাহাদের হৃদয় ভক্তি-বিগলিত হইবার সময় কি আসে নাই, আল্লাহর স্মরণে এবং যে সত্য অবতীর্ণ হইয়াছে তাহাতে? এবং পূর্বে যাহাদিগকে কিতাব দেওয়া হইয়াছিল তাহাদের মত যেন উহারা না হয়-বহুকাল অতিক্রান্ত হইয়া গেলে যাহাদের অন্তঃকরণ কঠিন হইয়া পড়িয়াছিল। উহাদের অধিকাংশই সত্যত্যাগী।


 


 


 


জীবকে যে ভালোবাসে, সে স্বাধীনতাকেও ভালোবাসে। -হুইটিয়ার।


 


 


যে ধনী বিখ্যাত হবার জন্য দান করে, সে প্রথমে দোজখে প্রবেশ করবে।


 


ফটো গ্যালারি
আজব বুড়ি
অমৃত ফরহাদ
০১ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


এক গ্রামে ছিলো এক আজব বুড়ি। নাম তার ফুলমতির নেছা। সে এলাকার সবাইকে নাছিয়ে ছাড়ে। তার কথার অত্যাচারে সবাই অতিষ্ঠ। একজন ঝড়গাটে মহিলা হিসেবে এলাকায় তার বেশ দুর্নাম আছে। ফুলমতির নেছার ছিলো তিনটি ছেলে। সময়ের ব্যবধানে সে তার তিনটি ছেলেকেই বিয়ে করায়। কিন্তু ছেলের বৌদের সাথে তার কোনো রকমের মিল ছিলো না। প্রায়ই তারা ঝগড়া-ঝাটি করতো। বার মাসে তের ঝগড়া। পার্থক্য এর মাত্রা কখনো বেশি আবার কখনো কম। এ যেন বৌ শাশুড়ির যুদ্ধ। কেউ কাউকে ছাড় দিতো না। পৃথক পৃথক ঝগড়ায় সব সময়ই ফুলমতির নেছারই জিত হতো।



শাশুড়িকে ঝগড়ায় হারানোর লক্ষ্যে তিনজনের মধ্যে একটি জোট হয়েছে। জোটের নাম তিন বৌয়ের ঐক্যজোট। সস্নোগান 'আসুন আমরা শাশুড়িকে হারিয়ে দিই'। এখন থেকে ফুলমতির নেছা যদি কোনো বৌয়ের সাথে ঝগড়া লাগে, তাহলে তিন বৌ এক হয়ে শাশুড়ির বিপক্ষে অবস্থান নেয়। এতে করে ফুলমতির নেছা কোণঠাসা হয়ে পড়ে। একদিকে বয়সের ভার অন্যদিকে ঐক্যজোটের কারণে পেরে উঠছে না। তিন বৌর সাথে পেরে উঠতে না পেরে বুড়ি দুধের সাধ ঘোলে মিটানোর চেষ্টা করে। সে তিন বৌর নামের পাশে তিনটি বিশেষণ যোগ করে দেয়। বড় বৌ'র নাম রাখে 'কাঁশের বাইদানি'। মেঝ বৌ'র নাম 'ঢোল পিটানি'। আর ছোট বৌ'র নাম দেন 'বংশী বাদক'।



তার আরো বেশ কিছু আজব কা- রয়েছে। সে দিনের বেলা থেকে রাতের বেলায় চলাফেরা করতো বেশি স্বাছন্দ্যবোধ করতো। মানুষের সাথে অকারণে ঝগড়া করতো। এ কারণে তাকে সবাই ঝগড়াটে বুড়ি নামে ডাকতো।



সে নামাজের নিয়ত, রোজার নিয়ত তার মতো করে করতো। এ বিষয় নিয়ে অন্যদের সাথে বিতর্ক জড়িয়ে পড়তো। বুড়ি বলতো অন্যরা সব ভুল বলে। তারটাই ঠিক। সে রোজার নিয়ত এভাবে করতো।



 



রোজার নামে হোঁজা



নিয়তের নামে ঢেঁই,



অগ্গা রোজার নিয়ত করলাম



আল্লার কাছে ঠেঁই।



 



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
১৩৪৪০৯
পুরোন সংখ্যা