চাঁদপুর। শনিবার ২০ মে ২০১৭। ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৪। ২৩ শাবান ১৪৩৮

বিজ্ঞাপন দিন

বিজ্ঞাপন দিন

সর্বশেষ খবর :

  • ---------
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

২৮-সূরা কাসাস 


৮৮ আয়াত, ৯ রুকু, ‘মক্কী’


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


২৯। মূসা যখন তাহার মেয়াদ পূর্ণ করিবার পর সপরিবারে যাত্রা করিল, তখন সে তূর পর্বতের দিকে আগুন দেখতে পাইল। সে তাহার পরিজনবর্গকে বলিল, ‘তোমরা অপেক্ষা কর, আমি আগুন দেখিয়াছি, সম্ভবত আমি সেথা হইতে তোমাদের জন্য খবর আনিতে পারি অথবা একখন্ড জ্বলন্ত কাষ্ঠ আনিতে পারি যাহাতে তোমরা আগুন পোহাইতে পার।’


দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


 


প্রকৃতি বিধাতার অমূল্য দান।


-টমাস ফুলার।

যার হৃদয়ে বিন্দু পরিমাণ অহঙ্কার আছে সে কখনো বেহেস্তে প্রবেশ করতে পারবেনা।


রেলওয়ের পুকুর ভরাট প্রসঙ্গ
২০ মে, ২০১৭ ১৮:৪০:৫১
প্রিন্টঅ-অ+
আসাম বেঙ্গল রেলওয়ের প্রবেশদ্বার খ্যাত চাঁদপুরে ব্রিটিশ শাসনামলে প্রয়োজনের অতিরিক্ত  ভূমি অধিগ্রহণ করে রেলওয়ের  যাবতীয় অবকাঠামো গড়ে তোলা হয়। চাঁদপুর শহরের পাঁচ রাস্তার মোড় ‘শপথ চত্বরে’র পশ্চিমাংশ থেকে বড় স্টেশন মোলহেড পর্যন্ত রেলওয়ের বিপুল পরিমাণ সম্পত্তি দেখলে আলাদা একটি সা¤্রাজ্য মনে হয়। এ সা¤্রাজ্যের অধিপতি রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলীয় সর্বোচ্চ কর্মকর্তা (জিএম) হলেও তাঁর তথা রেল মন্ত্রণালয়ের পক্ষে শক্তিশালী কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারী চাঁদপুরে কর্মরত নেই। যারা আছেন, তাদের অবস্থা ঢাল নেই তলোয়ার নেই নিধিরাম সর্দারের মতো। যার ফলে যত্রতত্র রেলওয়ের ভূমি নির্বিচারে, এমনকি নির্বিঘেœ দখল হলেও তাৎক্ষণিক দখলদারদের বিরুদ্ধে কঠিন কোনো পদক্ষেপ নেয়ার সামর্থ্য তারা প্রদর্শন করতে পারেন না। শুধু চেয়ে চেয়ে দেখে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে কাগুজে ম্যাসেজ বা রিপোর্ট প্রদান, বেঙ্গল থানা ও জিআরপি থানায় অভিযোগ দায়ের করা ছাড়া যেনো ওইসব স্থানীয় রেল কর্মকর্তা-কর্মচারীর কিছুই করার থাকে না। এ সময় লোভী কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারীকে আবার দখলদারদের সাথে আপস করা কিংবা তাদের পক্ষে সাফাই গাওয়া, এমনকি পরামর্শক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করতে দেখা যায়।

চাঁদপুরে রেলওয়ের জায়গা দখলের প্রবণতা এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে, শহরের প্রাণকেন্দ্রের নিকটবর্তী স্থান বকুলতলায় পুকুর ভরাট করে দখলের পাঁয়তারায়ও লিপ্ত হয়েছে দখলদার বা ভূমিদস্যুরা, যা নিয়ে বৃহস্পতিবার চাঁদপুর কণ্ঠে সচিত্র বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে। যাতে রেল কর্তৃপক্ষের সুস্পষ্ট বক্তব্য রয়েছে। আমরা প্রকাশিত সংবাদ ও বক্তব্যের আলোকে বকুলতলার পুকুরটি অবৈধভাবে ও জোরপূর্বক ভরাট করে দখল ও বিক্রির যাবতীয় পাঁয়তারা বন্ধে ঊর্ধ্বতন রেল কর্তৃপক্ষ ও রেল মন্ত্রণালয়কে সর্বোচ্চ সক্রিয় ও সোচ্চার হবার আহ্বান জানাতে চাই। ৫ জুন বিশ্ব পরিবেশ দিবসের পূর্বে পরিবেশবান্ধব পুকুর ভরাট বন্ধে শুধু রেল কর্তৃপক্ষ নয়, জেলা প্রশাসন, চাঁদপুর পৌরসভা ও পরিবেশ অধিদপ্তরকেও আমরা সর্বাত্মক পদক্ষেপ গ্রহণের সনির্বন্ধ অনুরোধ জানাচ্ছি।  

 

এই পাতার আরো খবর -
আজকের পাঠকসংখ্যা
৩৩১৯১৬
পুরোন সংখ্যা