চাঁদপুর। শুক্রবার ১০ আগস্ট ২০১৮। ২৬ শ্রাবণ ১৪২৫। ২৭ জিলকদ ১৪৩৯
redcricent
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৪০-সূরা আল মু’মিন

৮৫ আয়াত, ৯ রুকু, মক্কী

পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।

৩৪। ইতিপূর্বে তোমাদের কাছে ইউসুফ সুস্পষ্ট প্রমাণাদিসহ আগমন করেছিলো, অতঃপর তোমরা তার আনীত বিষয়ে সন্দেহই পোষণ করতে। অবশেষে যখন সে মারা গেলো, তখন তোমরা বলতে শুরু করলে, আল্লাহ ইউসুফের পরে আর কাউকে রসূলরূপে পাঠাবেন না। এমনিভাবে আল্লাহ সীমালঙ্গনকারী, সংশয়ী ব্যক্তিকে পথভ্রষ্ট করেন।

৩৫। যারা নিজেদের কাছে আগত কোনো দলিল ছাড়াই আল্লাহর আয়াত সম্পর্কে বিতর্ক করে, তাদের একজন আল্লাহ ও মুমিনদের কাছে খুবই অসন্তোষজনক। এমনিভাবে আল্লাহ প্রত্যেক অহঙ্কারী-স্বৈরাচারী ব্যক্তির অন্তরে মোহর এঁটে দেন।

দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


উপন্যাস মানুষকে জীবন সম্পর্কে সচেতন করে তোলে।

 -রবার্ট হেনরিক।


কাউকে অভিশাপ দেওয়া সত্যপরায়ণ ব্যক্তির উচিত নয়।



 


ফটো গ্যালারি
প্রাণিসম্পদ দপ্তরে এতোটা জনবল সঙ্কট কেনো?
১০ আগস্ট, ২০১৮ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+

চাঁদপুর জেলার প্রাণিসম্পদ বিভাগে বিদ্যমান ৯৯ পদের বিপরীতে ৩৫টি পদ শূন্য বলে মঙ্গলবার দৈনিক চাঁদপুর কণ্ঠের প্রথম পৃষ্ঠায় চার কলামে অনেক বড় খবর বেরিয়েছে। এক তৃতীয়াংশেরও বেশি জনবল যে বিভাগে নেই সে বিভাগের সেবার চিত্র যে কতোটা করুণ হতে পারে সেটাই তুলে ধরেছেন প্রতিবেদক মুহাম্মদ আবদুর রহমান গাজী। তিনি উক্ত খবরে উদ্ধৃতি দিয়েছেন উক্ত জনবল সঙ্কটে ক্ষতিগ্রস্ত ক'জন ব্যক্তির। এদের মধ্যে একজন হচ্ছেন চাঁদপুর শহরের কোড়ালিয়ার বাসিন্দা মোঃ হাবিবুর রহমান বেপারী। তিনি গরুর খামারের মাধ্যমে স্বাবলম্বী হতে পারলেও অধিকাংশ সময়ই দুশ্চিন্তাগ্রস্ত থাকতে হয়। তিনি জানান, প্রায় সময়ই গরুর বিভিন্ন রোগবালাইসহ নানা সমস্যা হলেও জনবল সঙ্কটহেতু প্রাণিসম্পদ কার্যালয়ের পক্ষ থেকে কোনো সহযোগিতা পাওয়া যায় না। বিশেষ করে শুক্র, শনিবার ও সরকারি ছুটির দিন প্রাণিসম্পদ হাসপাতালে কোনো চিকিৎসক খুঁজে পাওয়া যায় না। এমতাবস্থায় তিনি ইতঃমধ্যে অনেক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। তার মতো ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন হাইমচরের শেখ জাকির। গত শীত মৌসুমে বিনা চিকিৎসায় তার ১৫০টি হাঁস মারা যায়। এমন জনবল সঙ্কটে বিভিন্ন উপজেলার প্রত্যন্ত এলাকা ও চরাঞ্চলের গ্রামগুলোর অনেক বাড়িতে গবাদি পশু, পাখিসহ অন্যান্য প্রাণীর চিকিৎসায় সমস্যা প্রকট আকার ধারণ করেছে। শুধু জনবল সঙ্কটই নয়, রয়েছে প্রয়োজনীয় ও আধুনিক যন্ত্রপাতির অভাবও।

চাঁদপুর সদর, হাইমচর, মতলব ও মতবল উত্তর উপজেলায় দুর্গম ও প্রত্যন্ত চরাঞ্চল রয়েছে, যেখানে গবাদি পশু ও পাখির প্রচুর খামার রয়েছে। কিন্তু প্রাণিসম্পদ বিভাগে জনবল সঙ্কট থাকায় পশু-পাখির নিয়মিত টিকাদান, চিকিৎসাসেবা, কৃত্রিম প্রজনন ও গরু মোটাতাজাকরণ কার্যক্রম চরমভাবে ব্যাহত হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। চরাঞ্চলে প্রয়োজনীয় চিকিৎসাকেন্দ্র না থাকায় গরু-ছাগল-মহিষ, হাঁস-মুরগির কোনো ধরনের রোগবালাই হলে ইঞ্জিনচালিত নৌকা বা অন্য যানবাহনযোগে জেলা সদরে নিয়ে আসতে হয়, যা অনেক কষ্টসাধ্য ও ব্যয়বহুল। আবার জেলা সদরস্থ প্রাণিসম্পদ হাসপাতালে নিয়ে আসলেও ঔষধ ও উপকরণের অভাবে যথার্থ চিকিৎসা না পাওয়ায় খামারীরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। মতলব উত্তরের চিরারচরের জনৈক রুহুল আমিন জানান, গত ২০ জুলাই আমি উক্ত হাসপাতালে গিয়ে টিকা না পাওয়ায় আমার ৩৫টি মুরগি মারা গেছে।

জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা জানান যে, কর্মকর্তা-কর্মচারীর শূন্য পদগুলো পূরণের জন্যে তিনি একাধিকবার ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে লিখিত ও মৌখিকভাবে যোগাযোগ করেছেন। প্রধান কার্যালয় থেকে জনবল সঙ্কট নিরসনের জন্যে দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণের আশ্বাসও দেয়া হয়েছে। তাঁর এ বক্তব্য যদি সঠিক হয়, তাহলে আমরা প্রদত্ত আশ্বাস পূরণে প্রাণিসম্পদের প্রধান কার্যালয়ের সর্বোচ্চ কর্তাব্যক্তির আন্তরিক সহযোগিতা ও পদক্ষেপ প্রত্যাশা করছি। সাথে সাথে স্থানীয় সংসদ সদস্য ডাঃ দীপু মনি ও জেলা প্রশাসকের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। আমরা মনে করি, মৎস্য ও কৃষিক্ষেত্রে চাঁদপুর জেলার আশাব্যঞ্জক এগিয়ে থাকাতেই কেবল তুষ্ট থাকলে চলবে না, প্রাণিসম্পদের ক্ষেত্রেও জনবল সঙ্কট দূর করে এগিয়ে যাওয়ার প্রয়াস চালাতে হবে।

এই পাতার আরো খবর -
আজকের পাঠকসংখ্যা
৪৪৫৯৯৬
পুরোন সংখ্যা