চাঁদপুর, বৃহস্পতিবার ১৬ মে ২০১৯, ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ১০ রমজান ১৪৪০
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫৯-সূরা হাশ্র


২৪ আয়াত, ৩ রুকু, মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


৪। ইহা এইজন্য যে, উহারা আল্লাহ ও তাঁহার রাসূলের বিরুদ্ধাচরণ করিয়াছিল, এবং কেহ আল্লাহর বিরুদ্ধাচরণ করিলে আল্লাহ তো শাস্তিদানে কঠোর।


 


 


assets/data_files/web

আকৃতি ভিন্ন ধরনের হলেও গৃহ গৃহই। -এন্ড্রি উল্যাং।


 


 


স্বদেশপ্রেম ঈমানের অঙ্গ।


 


 


ফটো গ্যালারি
অটোবাইকের এঙ্গেল এবং আত্মনিয়ন্ত্রণ ও আত্মসংশোধন প্রসঙ্গ
১৬ মে, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


চাঁদপুর শহরে চলমান অটোবাইকের মূল বডির সাথে সামনে অবৈধভাবে লাগানো লোহার এঙ্গেলটি খুলে ফেলে বাজেয়াপ্ত করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। বিশ্ব নিরাপদ সড়ক সপ্তাহ উদ্যাপন অনুষ্ঠানে চাঁদপুরের জেলা প্রশাসন ও পুলিশ বিভাগ এবং পৌরসভার যৌথভাবে নেয়া এই সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়। এই এঙ্গেলের শক্তিতে অটোবাইকগুলোকে বেপরোয়া গতিতে চালিয়ে চালকরা দুর্ঘটনার প্রবণতায় ভুগছিল। এ নিয়ে সম্প্রতি চাঁদপুর কণ্ঠে প্রকাশিত হয় একাধিক সচিত্র প্রতিবেদন। এই প্রতিবেদনের আলোকে উদ্ভূত প্রতিক্রিয়ার ফলস্বরূপ উক্ত এঙ্গেলের বিরুদ্ধে ব্যবস্থাগ্রহণের প্রাগুক্ত সিদ্ধান্ত হয়। এই সিদ্ধান্তের বিষয়টি গত শনিবার চাঁদপুর কণ্ঠের শীর্ষ সংবাদ হিসেবে স্থান পেলে এবং পৌরসভার পক্ষে মাইকিং হলে অটোবাইক মালিক ও চালকদের মধ্যে ব্যাপক জানাজানি হয়। তারপর মাত্র দুদিনের মধ্যে অটোবাইকের সম্মুখ থেকে অবৈধ লোহার এঙ্গেল উধাও হয়ে যায়। সোমবার বিকেল থেকে চাঁদপুর শহরে চলমান কোনো অটোবাইকে এখন খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না সেই অবৈধ লোহার এঙ্গেল।



খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মালিক ও চালকরা উপরোক্ত সিদ্ধান্ত অবহিত হয়ে সচেতন হয়ে যান এবং নিজ দায়িত্বে স্ব স্ব অটোবাইক থেকে এঙ্গেলগুলো খুলে নেন। এটা নিঃসন্দেহে নিজেদের ভুল সম্পর্কে জেনে আত্মনিয়ন্ত্রণ ও আত্মসংশোধনের কাজই তারা করেছেন। এজন্যে তারা অবশ্যই সাধুবাদ পাওয়ার যোগ্য। তাদের আরো কিছু সংশোধনের প্রয়োজন রয়েছে। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে : যত্রতত্র যাত্রী নামিয়ে এবং অটোবাইক থামিয়ে তারপর ভাড়া আদায় করার মাধ্যমে পেছনের যানবাহনের গতিরোধ না করা। চলমান অবস্থায় একটু আওয়াজ তুলে যাত্রীদের ভাড়া প্রদানের অনুরোধ জানালে অটোবাইক দ্বারা উক্ত গতিরোধের বিষয়টির এড়ানো যায় বলে আমরা মনে করি।



ব্যক্তির আত্মনিয়ন্ত্রণ ও আত্মসংশোধনে স্বীয় বিবেকই মূলত কাজ করে। মানুষের জন্যে তার বিবেকই যে শ্রেষ্ঠ আদালত সেটা খোলসা করে বলার প্রয়োজন পড়ে না। এই বিবেককে জাগ্রত করার জন্যে মানুষের সামনে তার ভুল-ত্রুটি উপস্থাপনে কাউকে না কাউকে মুখ্য ভূমিকা পালন করতে হয়। এই ভূমিকা পালনকারীর মধ্যে গণমাধ্যম যে অত্যন্ত কার্যকর সেটা চাঁদপুর শহরে চলমান অটোবাইকের অবৈধ লোহার এঙ্গেল সংশ্লিষ্টদের স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে অপসারণের ঘটনাতে ভালোভাবেই প্রমাণিত হলো। আমরা মনে করি, সমাজের সর্বত্র পরিশুদ্ধি আনয়নে আত্মনিয়ন্ত্রণ ও আত্মসংশোধনের অনেক বেশি প্রয়োজন রয়েছে। আইনের খড়গ উঁচিয়ে অর্থদ- ও কারাদ- দিয়ে যতোটা কাজ হয়, তারচে' বেশি, এমনকি টেকসই কাজ হয় মানুষের বিবেককে জাগ্রত করার মাধ্যমে আত্মনিয়ন্ত্রণ ও আত্মসংশোধনের ক্ষেত্র যদি তৈরি করা যায়। আশা করি এ বিষয়টি আইন প্রয়োগের সাথে সংশ্লিষ্ট সকলে মনে রাখবেন এবং টেকসই ফলপ্রাপ্তিকে গুরুত্ব দেবেন।



 


এই পাতার আরো খবর -
আজকের পাঠকসংখ্যা
৮৪৯৮৯১
পুরোন সংখ্যা