চাঁদপুর, শুক্রবার ১২ জুলাই ২০১৯, ২৮ আষাঢ় ১৪২৬, ৮ জিলকদ ১৪৪০
jibon dip
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫৩-সূরা নাজম


৬২ আয়াত, ৩ রুকু, মক্কী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


 


assets/data_files/web

মনের যাতনা দেহের যাতনার চেয়ে বেশি। -উইলিয়াম হ্যাজলিট।


 


ঝগড়াটে ব্যক্তি আল্লাহর নিকট অধিক ক্রোধের পাত্র।


 


 


ফটো গ্যালারি
মতলব উত্তরের ওসির ব্যতিক্রম কাজ
১২ জুলাই, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


সাধারণ্যে পুলিশ স্টেশন অর্থাৎ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের সম্পর্কে ভালো ধারণা বিদ্যমান নেই। অনেকেই মনে করেন, ওসি মানেই অবাধে ঘুষ খাওয়ার সরকারি একটি পদ। এই মনে করার পেছনে 'নবাবগঞ্জের ওসি মোস্তফা কামালের আলিশান বাড়ি' শীর্ষক সংবাদের ন্যায় আরো প্রকাশ্য-অপ্রকাশ্য কিংবা ওপেন সিক্রেট কিছু সংবাদ উদ্দীপক হিসেবে কাজ করে। সাম্প্রতিক সময়ে ফেনীর মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাতের যৌন হয়রানির মামলা নিয়ে সোনাগাজীর ওসি মোয়াজ্জেমের আপত্তিকর ভূমিকা এবং তার আশ্রয়-প্রশ্রয়ে মাদ্রাসার অধ্যক্ষের ইন্ধনে দুর্বৃত্তদের দেয়া আগুনে নুসরাতের মৃত্যুর ঘটনায় থানার ওসি পদটি মারাত্মক ইমেজ সঙ্কটে পড়ে। পরবর্তীতে এই ওসি বরখাস্ত ও গ্রেফতার হওয়ায় জনমনে সরকার, বিচার ও পুলিশ প্রশাসনের প্রতি সাধারণ মানুষের আস্থা বেড়েছে। এই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই রাজশাহীর মোহনপুর থানার ওসি আবুল হোসেনের আপত্তিকর কর্মকা-ে স্তম্ভিত হয় দেশবাসী। দেশের প্রাচীন দৈনিক 'ইত্তেফাকে' তাকে নিয়ে সংবাদ বের হয় 'ধর্ষণের মামলা করতে যাওয়ায় বর্ষার বাবার দাঁত ভেঙ্গে দিতে চেয়েছিলো মোহনপুরের ওসি' শিরোনামে। এ সংবাদে লিখা হয়, বাবার অপমান, অপহরণের মামলার আসামীর স্বজনের হুমকি আর ধারাবাহিক অপমানের গ্লানি থেকে মুক্তির জন্যে স্কুলছাত্রী সুমাইয়া আকতার বর্ষা গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহননের পথ বেছে নেয়। পরে এই ওসিকে বরখাস্ত করা হলেও সারাদেশে সৃষ্ট নিন্দার ঝড় থামে।



অতি সম্প্রতি ওসি মোয়াজ্জেমের জামিনের আবেদনের প্রেক্ষিতে হাইকোর্টের বিচারকের 'কিছু কিছু ওসি ডিসি নিজেদেরকে জমিদার মনে করে, সবাই কিন্তু না।...অনেক দেশেই এমন আছে, তবে আমাদের দেশে বেশি' এমন মন্তব্যে দেশব্যাপী আলোড়ন সৃষ্টি হয়। 'ওসি'দেরকে জমিদার না বললেও অনেক বেশি ক্ষমতাধর হিসেবে চিহ্নিত করেছিলেন বিএনপির প্রয়াত নেতা কুমিল্লার কর্নেল আকবর হোসেন। তিনি বলেছিলেন, ইউএনও এবং ওসিকে হাতে রাখা গেলে নির্বাচনের কাঙ্ক্ষিত ফলাফল করায়ত্ত করা যায়।



থানার ওসিদের মারাত্মক ইমেজ সঙ্কটের চলমান দুঃসময়ে বিরল হলেও কোনো কোনো ওসি এমন কিছু ভালো কাজ করছেন, যা জেনে ও শুনে থমকে দাঁড়াতে হয় এবং অকপটে বলতে হয়, আসলেই তিনি ব্যতিক্রম। চাঁদপুরে এমন একজন ব্যতিক্রম ওসির সন্ধান পাওয়া গেছে, যিনি হচ্ছেন মোঃ মিজানুর রহমান। বর্তমানে মতলব উত্তর থানায় কর্মরত। তিনি ইতঃমধ্যে একবার চাঁদপুরের পুলিশ সুপার কর্তৃক জেলার শ্রেষ্ঠ ওসি হিসেবে পুরস্কৃত হয়েছেন। ঈদকেন্দ্রিক আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় এই মিজানুর রহমানের উদ্ভাবনী কাজের প্রশংসা করে এই সম্পাদকীয় নিবন্ধে পূর্বে একবার আমরা লিখেছিলাম। আজও লিখছি একটি ব্যতিক্রম কাজের জন্যে। সেটি হচ্ছে : মতলব উত্তর উপজেলায় যে ২১ জন নারী-পুলিশ মাত্র ১০৩ টাকা খরচ করে সম্পূর্ণ স্বীয় যোগ্যতার ভিত্তিতে পুলিশ কনস্টেবল পদে চাকুরি পেয়েছেন, উক্ত ওসি তাদেরকে বাড়ি বাড়ি গিয়ে মিষ্টিমুখ করিয়েছেন এবং ফুলেল শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। তাঁর এই ব্যতিক্রম কাজটি গণমাধ্যমে উঠে এসেছে আশাব্যঞ্জকভাবে।



একটি থানার ওসি মানেই স্থানীয় অপরাধীদের কাছে মূর্তিমান আতঙ্ক এবং আইনী সেবা প্রত্যাশীদের নিকট আশীর্বাদ। তিনি অপরাধীদের ধরবেন, পাকড়াও করবেন, সার্বিক আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখবেন, আইনমান্যতার সংস্কৃতিতে অভ্যস্ত হতে সাধারণ মানুষকে তাগিদ দিবেন, উদ্বুদ্ধ করবেন, থানা এলাকায় সুন্দর ও নিরাপদ পরিবেশ বজায় রাখবেন_এটাই তার রুটিন কাজ। এই রুটিনের বাইরে যে ওসি মানবীয় সুন্দর গুণাবলির প্রকাশ ঘটান, স্বীয় উদ্ভাবনী চিন্তা-চেতনায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় বিশেষ কাজ করেন, তিনি শুধু ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তার নজর কাড়েন না, সাধারণ মানুষসহ সমাজের সুধীজনেরও মন জয় করেন। মতলব উত্তর থানার বর্তমান ওসি মিজানুর রহমানকে এমন একজন বললে অত্যুক্তি হবে না বলে আমাদের বিশ্বাস। তাঁর মতো অন্যান্য থানার ওসিরা যদি হন, তাহলে ওসিদের নিয়ে সাম্প্রতিক সময়ে সৃষ্ট মারাত্মক ইমেজ সঙ্কট ক্রমশ কাটবে বলে আমাদের ধারণা।



 



 



 


এই পাতার আরো খবর -
আজকের পাঠকসংখ্যা
৬৭৮৫১৩
পুরোন সংখ্যা