চাঁদপুর, মঙ্গলবার ৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ৫ রবিউস সানি ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫৮-সূরা মুজাদালা


২২ আয়াত, ৩ রুকু, মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


১৮। যে দিন আল্লাহ পুনরুত্থিত করিবেন উহাদের সকলকে, তখন উহারা আল্লাহর নিকট সেইরূপ শপথ করিবে যেইরূপ শপথ তোমাদের নিকট করে এবং উহারা মনে করে যে, ইহাতে উহারা ভালো কিছুর উপর রহিয়াছে। সাবধান! উহারাই তো প্রকৃত মিথ্যাবাদী।


 


 


দুর্বলের পক্ষে সবলের অনুকরণ ভয়াবহ। -দ্বিজেন্দ্রনাথ ঠাকুর।


 


 


 


দোলনা থেকে কবর পর্যন্ত জ্ঞান চর্চায় নিজেকে উৎসর্গ করো।


 


 


 


ফটো গ্যালারি
ভালো মানুষ হবার তাগিদ, তবে-
০৩ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+

গত মঙ্গলবার ঢাকাস্থ ফরিদগঞ্জ সমিতি ২০১৯ সালের এসএসসি, এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় জিপিএ-৫ প্রাপ্ত কৃতী শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা, বিশেষ সম্মাননা সনদ ও শিক্ষাবৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। ফরিদগঞ্জ উপজেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার মোঃ আবদুল মান্নান। তিনি প্রধামন্ত্রীকে উদ্ধৃত করে বলেন, ভালো শিক্ষার্থী হবার সাথে সাথে ভালো মানুষ হওয়াটাও জরুরি। কারণ, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ভালো ছাত্র হওয়ার সাথে সাথে ভালো মানুষ ছিলেন বলেই ১৯৭১ সালে তাঁর ডাকে ৭ কোটি বাঙালি স্বাধীনতার জন্যে একতাবদ্ধ হয়েছিলেন।

একদিন পর বৃহস্পতিবার শিক্ষাবৃত্তি-২০১৯ প্রদান অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয় রাজারবাগ পুলিশ লাইন্সে। এখানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় আইজিপি ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী মানবিক গুণের অধিকারী ভালো মানুষ হওয়ার জন্যে শিক্ষার্থীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল বলেন, শিক্ষার আসল উদ্দেশ্য হলো ভালো মানুষ হওয়া। একজন ভালো মানুষই একটি সমাজ ও দেশকে এগিয়ে নিতে পারে। মোবাইল ফোনের আসক্তি থেকে মুক্ত থাকতে তিনি শিক্ষার্থীদের বই পড়ার উপদেশ দেন। তিনি বলেন, তোমাদের মস্তিষ্ককে ব্যবহার করতে হবে। বই পড়লে মস্তিষ্কের সঠিক ব্যবহার হয়।

সাম্প্রতিক সময়ে মেধাবী কিছু সংখ্যক শিক্ষার্থীদের দ্বারা সংঘটিত বহুবিধ কর্মকা-ের প্রেক্ষিতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, দেশের শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি, শিক্ষাবিদসহ বুদ্ধিজীবীগণ বিভিন্ন উপলক্ষে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে প্রদত্ত বক্তৃতায় শিক্ষার্থীদের ভালো মানুষ হবার তাগিদ দিয়ে চলছেন। এটা ইতিবাচক দিক। কিন্তু অত্যন্ত দুঃখজনক হলেও সত্য এই যে, যেসব অনুষ্ঠানে তাঁরা এমন তাগিদ দেন, সেসব অনুষ্ঠানে শুধুমাত্র জিপিএ-৫ তথা ভালো নম্বর প্রাপ্তির বিষয়টি বিবেচনা করেই কিছু শিক্ষার্থীকে গড়পরতা পুরস্কৃত করা হয়। এসব অনুষ্ঠানে যদি জিপিএ-৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের মধ্যে কাউকে কাউকে শিক্ষা সহায়ক ক্রীড়া, সাহিত্য ও সংস্কৃতিসহ যাবতীয় সৃজনশীল কর্মকা-ে কৃতিত্ব ও মানবীয় গুণাবলি বিবেচনা করে বিশেষভাবে পুরস্কৃত করা হতো, তাহলে এটি অনুপ্রেরণা হিসেবে অন্যান্য শিক্ষার্থীর মধ্যে সঞ্চারিত হতো। এছাড়া দারিদ্র্য ও শারীরিক প্রতিবন্ধকতা সত্ত্বেও প্রতিকূলতার মধ্যেও অদম্য মেধাবী হিসেবে যে সকল শিক্ষার্থী ভালো ফলাফল করেছে, তাদেরকে এসব অনুষ্ঠানে মূল্যায়ন করা হতো, তাহলেও প্রেরণার বিষয়টি গুরুত্ব পেতো। কিন্তু এমনটি সাধারণত করা হয় না বলেই অভিভাবকসহ শিক্ষার্থীরা যে কোনো উপায়ে পরীক্ষার ফলাফলে জিপিএ-৫ প্রাপ্তির জন্যে মরিয়া হয়ে ওঠে। এজন্যে প্রশ্নপত্র ফাঁস, পরীক্ষার হলে নকল, শিক্ষকদের সহযোগিতা গ্রহণসহ বহুবিধ অপতৎপরতায় লিপ্ত হবার প্রবণতায় ভুগতে দেখা যায়। এমনটি করতে গিয়ে অনেক বাবা-মা তাদের সন্তানদেরকে ধর্মীয় শিক্ষা প্রদান কিংবা নৈতিকতা শিক্ষার প্রয়োজন আদৌ অনুভব করেন না।

আমরা মনে করি, শুধু জিপিএ-৫ প্রাপ্তি নয়, সকল বিবেচনায় ভালো শিক্ষার্থীকে মূল্যায়ন করার সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগ বাস্তবায়ন করা না গেলে ভালো মানুষ হবার মৌখিক তাগিদ নিতান্তই কথার কথা হিসেবে বিবেচিত হবে। এমন কথা নিয়ে এক সময় সচেতন মানুষদের উপহাস-পরিহাসের শিকার যে কোনো বক্তা হবেন না, সেটা হলফ করে কেউ যে বলতে পারবেন না তা বিনা ক্লেশেই ধারণা করা যায়।

এই পাতার আরো খবর -
আজকের পাঠকসংখ্যা
১১৪৩৫
পুরোন সংখ্যা