চাঁদপুর, রোববার ০৫ এপ্রিল ২০২০, ২২ চৈত্র ১৪২৬, ১০ শাবান ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • চাঁদপুর সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়কসহ আরো ৯ জনের করোনা শনাক্ত, মোট আক্রান্ত ২১৯
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৬৯-সূরা হাক্‌কা :


৫২ আয়াত, ২ রুকু, মক্কী


২৭। 'হায়! আমার মৃত্যুই যদি আমার শেষ হইত!


২৮। 'আমার ধন-সম্পদ আমার কোন কাজেই আসিল না।


২৯। 'আমার ক্ষমতাও বিনষ্ট হইয়াছে।'


 


 


assets/data_files/web

শ্রেষ্ঠ বইগুলি হচ্ছে শ্রেষ্ঠ বন্ধু।


-লর্ড চেস্টারফিল্ড।


 


 


 


 


নম্রতায় মানুষের সৌন্দর্য বৃদ্ধি পায় আর কড়া মেজাজ হলো আয়াসের বস্তু অর্থাৎ বড় দূষণীয়।


 


 


 


ফটো গ্যালারি
কিছু ডাক্তারের আচরণ প্রসঙ্গে
০৫ এপ্রিল, ২০২০ ১৬:২৮:০৫
প্রিন্টঅ-অ+


১৯৭৭ সালে মুক্তি পাওয়া বাংলা ও হিন্দি ভাষায় নির্মিত ‘আনন্দ আশ্রম’ ছবিটি দর্শকদের মন ছুঁয়ে যায়। শৈলজানন্দ মুখোপাধ্যায়ের রচিত কাহিনীর ওপর নির্ভর করে ভারতের খ্যাতিমান পরিচালক শক্তি সামন্তের এই ছবিটি ভারত ও বাংলাদেশ জুড়ে ব্যাপক সাড়া জাগায়। এ ছবিতে উত্তম কুমার ডাঃ দীপকের ভূমিকায় এবং শর্মিলা ঠাকুর উক্ত ডাক্তারের স্ত্রী আশার ভূমিকায় অভিনয় করেন। ডাঃ দীপক নিজ কর্তব্যপরায়ণতার পরিচয় দিতে গিয়ে হাসপাতালে সদ্য প্রসূত এক নবজাতকের পরিচর্যায় এতো বেশি সময় দেন যে, নিজ স্ত্রীর সন্তান প্রসবজনিত জটিলতা নিরসনে খবর পেয়েও যথাসময়ে যেতে পারেননি। ফলে তার স্ত্রী পুত্র সন্তান জন্ম দিতে পারলেও নিজে আর বেঁচে থাকতে পারেন নি। এ ছবিটি দেখলে দর্শকমাত্রেরই মনে ডাক্তারদের প্রতি অপরিসীম শ্রদ্ধা জেগে উঠে।

    এই শ্রদ্ধেয় ডাক্তারগণই সারাবিশ^ জুড়ে বর্তমানে বিশেষভাবে আলোচিত তাদের সর্বোচ্চ ত্যাগ ও নিষ্ঠার কারণে। করোনা ভাইরাসে সৃষ্ট বৈশি^ক মহামারীতে দেশে দেশে যে মানবিক বিপর্যয় তৈরি হয়েছে, সে বিপর্যয় ঠেকাতে প্রথম সারির যোদ্ধাই হচ্ছেন ডাক্তারসহ সকল প্রকার স্বাস্থ্য কর্মীরা। সেজন্যে তারাও এই ভাইরাসে আক্রান্ত হচ্ছেন এবং প্রাণ হারাচ্ছেন। আমাদের দেশে ইতঃমধ্যে ৭০জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন, তন্মধ্যে ৮জন মৃত্যুবরণ করেছেন। আক্রান্তদের মধ্যে চিকিৎসকসহ স্বাস্থ্যকর্মীরাও রয়েছেন। এমতাবস্থায় আমাদের দেশের চিকিৎসকদের মধ্যে একটা অংশ প্রাইভেট চেম্বার বন্ধ করে দিয়েছেন। তাদের মধ্যে যারা সরকারি হাসপাতালে চাকুরি করেন তারা নানা ছলছুতোয় অনুপস্থিত থাকছেন এবং উপস্থিত থাকলেও সর্দি-জ¦র-কাশে আক্রান্ত কোনো রোগী দেখতে চান না। শুধু তা-ই নয়, হাসপাতালে উপস্থিত থেকেও অনেকে চেম্বার ছেড়ে ঘোরাঘুরি করে যেনো রোগীদের সাথে লুকোচুরি খেলেন। এমতাবস্থায় সরকারি হাসপাতালে বহির্বিভাগের টিকেট কেটে কিছু রোগী ডাক্তারের নাগাল না পেয়ে হতাশা নিয়ে বাড়ি ফিরেন। আর যেসব ডাক্তার শুধুমাত্র প্রাইভেট প্র্যাকটিস করেন এবং সরকারি চাকুরি করেন না, তাদের একাংশ বর্তমানে শুধু নিজেদের চেম্বারে রোগী দেখা বন্ধ করেননি, কোনো ধরনের কলে প্রাইভেট হাসপাতাল বা ক্লিনিকেও যেতে চাচ্ছেন না। তারা রোগীর সংস্পর্শে করোনায় আক্রান্ত হন কিনা সে আশঙ্কায় সাম্প্রতিক সময়ে এমন আচরণ করছেন বলে জানা গেছে। তাদের কথা একটাই : আমাদেরও জীবনের মূল্য আছে, পরিবার আছে, সেজন্যে বাঁচার সখ আছে। তাদের এমন আচরণ ও মানসিকতা যে তার পেশার জন্যে অবশ্য পালনীয় নীতি-নৈতিকতার সাথে সাংঘর্ষিক, সেটা তিনি বেঁচে থাকার প্রয়োজনে বেমালুম ভুলে যাচ্ছেন।

    গত শুক্রবার বাংলাদেশের অন্যতম প্রাচীন দৈনিক ইত্তেফাকের প্রথম পৃষ্ঠায় ডাক্তারদের নিয়ে প্রকাশিত হয়েছে একটি সংবাদ, যার শিরোনাম হয়েছে ‘নিরাপত্তার অজুহাতে নির্দয় আচরণ চিকিৎসকদের’। এ সংবাদে লিখা হয়েছে, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ^বিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি ও প্রখ্যাত ইএনটি বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডাঃ প্রাণ গোপাল দত্ত এবং প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য চিকিৎসক অধ্যাপক ডাঃ এবিএম আবদুল্লাহ নিয়মিত নিজস্ব নিরাপত্তা নিয়েই প্রাইভেট চেম্বার ও হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা দিয়ে আসছেন। তাঁরা বলেন, আমরা চিকিৎসক। আমরা নিরাপত্তা ঠিক রেখেই সেবা দেবো, সেবা না দিয়ে ঘরে বসে থাকা রোগীদের সাথে মুনাফেকি করা। একই দিনে চাঁদপুর কণ্ঠের প্রথম পৃষ্ঠায় প্রকাশিত হয়েছে অনুরূপ উপজীব্য নিয়ে একটি সংবাদ। যার শিরোনাম হয়েছে, ‘চাঁদপুর শহরে প্রাইভেট হাসপাতালগুলো সীমিত আকারে চলছে। অনেক ডাক্তারের প্রাইভেট চেম্বার বন্ধ।’ অথচ আল্লাহর অশেষ রহমতে চাঁদপুরে একজনও করোনা ভাইরাস সংক্রমিত রোগীর সন্ধান এখনও মিলেনি।

    আমরা     করোনার কারণে দেশের ক্রান্তিলগ্নে ডাক্তারদের নিকট থেকে নির্দয় আচরণ নয়, মানবিক আচরণই প্রত্যাশা করি। ্অবশ্য অধিকাংশ ডাক্তার মানবিক আচরণই করছেন, আর কিছু ডাক্তার সেটি না করে নির্দয় আচরণ করছেন। স্থানীয়ভাবে এনএসআই, ডিএসবি, ডিজিএফআই তথা গোয়েন্দা সংস্থার মাধ্যমে এমন ডাক্তারদের আচরণ পর্যবেক্ষণ করে তাদেরকে প্রথমত যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে সতর্ক করা হোক। এতে কাজ না হলে এমন ডাক্তারদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদানের নিমিত্তে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাগ্রহণের জোর সুপারিশ করছি।


এই পাতার আরো খবর -
আজকের পাঠকসংখ্যা
৩০৭৩৯৮
পুরোন সংখ্যা