চাঁদপুর, বুধবার ১ জুলাই ২০২০, ১৭ আষাঢ় ১৪২৭, ৯ জিলকদ ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৭১-সূরা নূহ্


২৮ আয়াত, ২ রুকু, মক্কী


৫। সে বলিয়াছিল, হে আমার প্রতিপালক! আমি তো আমার সম্প্রদায়কে দিবারাত্রি আহ্বান করিয়াছি,


৬। 'কিন্তু আমার আহ্বান উহাদের পলায়ন প্রবণতাই বৃদ্ধি করিয়াছে।


 


 


 


 


 


 


 


 


ধনীদের ধন সম্পদ হচ্ছে তাদের স্বাস্থ্যের সবচেয়ে বড় শত্রু।


-জর্জ ওয়েট স্টোন।


 


 


 


 


যে মানুষের প্রতি কৃতজ্ঞ নয়, সে আল্লাহর প্রতি কৃতজ্ঞ নয়।


 


 


 


 


ফটো গ্যালারি
ফরিদগঞ্জের প্রধান দুটি সড়কের দুরবস্থা
০১ জুলাই, ২০২০ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


চাঁদপুর জেলার অন্যতম বৃহত্তম উপজেলা ফরিদগঞ্জ। প্রায় ৫৭ হাজার ২২০ একর জায়গায় ১টি পৌরসভা, ১৫টি ইউনিয়ন ও ১৮০টি গ্রাম নিয়ে এ উপজেলাটি গঠিত। প্রায় ৪ লাখ জনসংখ্যা অধ্যুষিত ফরিদগঞ্জ উপজেলা চাঁদপুর সেচ প্রকল্প (সিআইপি) বেড়িবাঁধ দ্বারা পরিবেষ্টিত বিধায় বন্যামুক্ত। এখানে জনসংখ্যার ঘনত্ব অস্বাভাবিক, প্রতি বর্গ কিলোমিটারে ১৭১৩ জন। চাঁদপুর জেলার চাঁদপুর সদর, হাইমচর, হাজীগঞ্জ এবং লক্ষ্মীপুর জেলার রায়পুর ও রামগঞ্জ উপজেলার সীমানা বেষ্টনীতে ফরিদগঞ্জের অবস্থান। চাঁদপুর-ফরিদগঞ্জ-রায়পুর-লক্ষ্মীপুর-ফেনী আঞ্চলিক মহাসড়ক ছাড়াও ফরিদগঞ্জ উপজেলার প্রধান দুটি সড়ক হচ্ছে ফরিদগঞ্জ-রূপসা সড়ক এবং চাঁদপুর-চান্দ্রা-মুন্সিরহাট-গল্লাক সড়ক। কাকতালীয়ভাবে ফরিদগঞ্জের এ দুটি সড়কের দুরবস্থা নিয়ে সোমবার চাঁদপুর কণ্ঠে পৃথকভাবে প্রকাশিত হয়েছে সচিত্র সংবাদ। একটির শিরোনাম হচ্ছে 'ওয়ার্ক অর্ডার জটিলতায় ফরিদগঞ্জ-রূপসা সড়ক, বর্ষায় জনদুর্ভোগ চরমে রূপ নিচ্ছে' এবং অপরটির শিরোনাম হচ্ছে 'চাঁদপুর-চান্দ্রা-মুন্সিরহাট-গল্লাক সড়কে দুর্ঘটনার আশঙ্কা'।



প্রথম সংবাদে যে সড়কটির বিষয়ে লিখা হয়েছে, সে সড়কটি হচ্ছে দেশের অন্যতম প্রসিদ্ধ জমিদার 'রূপসার জমিদার বাড়ি' অভিমুখী সড়ক। প্রায় আড়াইশ' বছর আগে তৎকালীন বংশাল বর্তমান খাজুরিয়া গ্রামের হিন্দু জমিদারদের পতন হলে তাদের জমিদারি ব্রিটিশদের কাছ থেকে কিনে নেন রূপসার আহম্মদ রাজা। তিনি কিংবা তাঁর ছেলে মোহাম্মদ গাজী রূপসা জমিদার বাড়ি প্রতিষ্ঠা করেন, যেটি পরিণত হয়েছে পর্যটন আকর্ষণে। এই জমিদাররা খাজনার জন্যে কখনো প্রজাদের ওপর অত্যাচার না করে উল্টো তাদের দুঃখ-দুর্দশায় সাহায্য করতেন। সেজন্যে তাঁরা অদ্যাবধি প্রজাহিতৈষী জমিদার হিসেবে সুপরিচিত। এই জমিদার পরিবারকে যিনি খ্যাতির চরম শিখরে নিয়ে যান, তিনি হচ্ছেন খান বাহাদুর আবিদুর রেজা চৌধুরী। তিনি ব্রিটিশ আমলে নামকরা রাজনীতিবিদ ও সমাজসেবক ছিলেন। প্রজা হিতৈষণাসহ বহুবিধ সমাজকর্মের জন্যে তিনি ব্রিটিশ সরকার কর্তৃক 'খান বাহাদুর' উপাধি লাভ করেন। তিনি একাধারে ত্রিশ বছর কুমিল্লা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব অতুলনীয় সুনামের সাথে পালন করে গেছেন। তাঁর অবদানেই তৎকালীন চাঁদপুর মহকুমা সদর থেকে জেলা সদর কুমিল্লা পর্যন্ত একটি সড়ক নির্মিত হয়, যেটিকে বলা হতো ডিস্ট্রিক্ট বোর্ডের রাস্তা। কালক্রমে বর্তমানে যেটি চাঁদপুর-কুমিল্লা আঞ্চলিক মহাসড়কে উপনীত হয়েছে। অথচ খুবই দুঃখজনক বিষয় এই যে, খান বাহাদুর আবিদুর রেজা চৌধুরীদের জমিদার বাড়ি অভিমুখে ফরিদগঞ্জ উপজেলা সদর থেকে রূপসা পর্যন্ত যে সড়কটি চলে গেছে, সেটি গত প্রায় এক দশক ধরে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে। এই সড়কের ৫ দশমিক ৭৪ কিলোমিটার অংশ সংস্কার ও মেরামতের অভাবে এতোটাই ঝুঁকিপূর্ণ যে, জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কেউ এই সড়ক দিয়ে চলাচল করতে চায় না। ৮ কোটি টাকা ব্যয়ে এ সড়কটির সংস্কার বা উন্নয়ন কাজ সম্পাদনে গৃহীত প্রকল্প টেন্ডার জটিলতায় অতিক্রম করেছে এক বছর। তারপর কাজ শুরু হলেও ওয়ার্ক অর্ডার জটিলতায় সে কাজ বন্ধ হয়ে আছে আপাতত, যেটি জুলাই মাসে পুরোদমে চলার সম্ভাবনা আছে। এই সম্ভাবনা বাস্তবতায় গিয়ে ঠেকে কিনা সেটাই এখন দেখার বিষয়।



ফরিদগঞ্জের অপর প্রধান সড়ক চাঁদপুর-চান্দ্রা-মুন্সিরহাট-গল্লাক সড়কটি মূলত চাঁদপুর সেচ প্রকল্প বেড়িবাঁধ নির্ভর সড়ক। এ সড়কটি খুব প্রশস্ত নয়। মাঝে মধ্যে প্রশস্ত করার নামে এই সড়কের শোল্ডারেই মূলত হয়েছে পিচঢালাই। বাঁধের নিচের জমি থেকে মাটি কেটে সড়ক প্রশস্ত করার কথা থাকলেও দুর্নীতিবাজ ঠিকাদার বাঁধ থেকে মাটি কেটেই শোল্ডারে ফেলেছে ও পিচঢালাই করেছে। সেজন্যে টেকসই হয়নি এ কাজ। বৃষ্টির পানি নামতে গিয়ে সড়কের পিচঢালাই অংশকে গ্রাস করে সৃষ্টি করেছে অসংখ্য গর্ত। এই গর্তই এখন তৈরি করেছে দুর্ঘটনার ঝুঁকি। এ ঝুঁকি নিরসনে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের জরুরি ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের বিকল্প আছে বলে আমরা মনে করি না।



 



 



 



 


এই পাতার আরো খবর -
করোনা পরিস্থিতি
বাংলাদেশ বিশ্ব
আক্রান্ত ১,৯০,০৫৭ ১,৩০,৪২,৩৪০
সুস্থ ১,০৩,২২৭ ৭৫,৮৮,৫১০
মৃত্যু ২,৪২৪ ৫,৭১, ৬৮৯
দেশ ২১৩
সূত্র: আইইডিসিআর ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।
আজকের পাঠকসংখ্যা
৭০৩০১৩
পুরোন সংখ্যা