চাঁদপুর। শনিবার ২০ মে ২০১৭। ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৪। ২৩ শাবান ১৪৩৮

বিজ্ঞাপন দিন

বিজ্ঞাপন দিন

সর্বশেষ খবর :

  • উচ্চ মাধ্যমিকে পাস ৬৮.৯১ শতাংশ
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

২৮-সূরা কাসাস 


৮৮ আয়াত, ৯ রুকু, ‘মক্কী’


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


২৯। মূসা যখন তাহার মেয়াদ পূর্ণ করিবার পর সপরিবারে যাত্রা করিল, তখন সে তূর পর্বতের দিকে আগুন দেখতে পাইল। সে তাহার পরিজনবর্গকে বলিল, ‘তোমরা অপেক্ষা কর, আমি আগুন দেখিয়াছি, সম্ভবত আমি সেথা হইতে তোমাদের জন্য খবর আনিতে পারি অথবা একখন্ড জ্বলন্ত কাষ্ঠ আনিতে পারি যাহাতে তোমরা আগুন পোহাইতে পার।’


দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


 


প্রকৃতি বিধাতার অমূল্য দান।


-টমাস ফুলার।

যার হৃদয়ে বিন্দু পরিমাণ অহঙ্কার আছে সে কখনো বেহেস্তে প্রবেশ করতে পারবেনা।


মামলার সাক্ষীকে কুপিয়ে মারাত্মক জখম করেছে বিবাদী
কামরুজ্জামান টুটুল
২০ মে, ২০১৭ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


হাজীগঞ্জের বাকিলা বাজারে দিনেদুপুরে প্রকাশ্যে মামলার সাক্ষীকে দা দিয়ে কুপিয়েছে বিবাদী। এতে তার জীবন এখন সঙ্কটাপন্ন অবস্থায়। তিনি ঢাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। গত সোমবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। হামলায় মারাত্মক আহত ব্যক্তি হচ্ছেন বাকিলা পশ্চিম বাজারের ওয়ালটন শোরুমের পার্টনার শামীমুর রহমান। আর হামলাকারী ব্যক্তি হচ্ছেন বাকিলা বাজারস্থ ঢাকা হোটেলের মালিক কফু। এ ঘটনার পর এ দিন বিকেলে পুলিশ বাকিলা বাজার থেকে কফুকে আটক করে। শামীম স্থানীয় মহেশপুর মিজি বাড়ির মনু মিয়ার ছেলে আর কফু একই এলাকার মৃত কাশেম মিজির ছেলে। শামীমের মালিকানাধীন ওয়ালটন শো-রুম পোড়ানো মামলার বিবাদী হচ্ছেন কফু আর এ মামলার সাক্ষী হচ্ছেন শামীম। এ মামলাটি বর্তমানে আদালতে চলমান রয়েছে। এ ঘটনায় শামীমের বাবা মনু মিয়া ইতিমধ্যে হাজীগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেছেন, যার নং ১০০/১৬।



মামলার সূত্রে জানা যায়, গত সোমবার শামীম তার নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে (ওয়ালটন শো-রুম) ক্যাশে বসা ছিলেন। এদিন জোহর নামাজের কিছু পূর্বে কফু তার হোটেল থেকে দা নিয়ে এসে শামীমের শো-রুমে ঢুকে তার ঘাড়ে দা দিয়ে কোপ দেয়। তখন শামীম নিজেকে রক্ষা করতে হাত দিয়ে দা'র কোপ ঠেকাতে গিয়ে তার হাতের তিনটি আঙ্গুল ছিন্ন-ভিন্ন হয়ে যায়। শামীমের চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এসে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেঙ্ েভর্তি করায়। হাতের অবস্থা শোচনীয় দেখে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেঙ্রে দায়িত্বরত চিকিৎসক তাকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে, সেখান থেকে কুমিল্লা ট্রমা সেন্টারে এবং সর্বশেষ ঢাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে রেফার করেন।



জানা যায়, বাকিলা পশ্চিম বাজারে অবস্থিত ওয়ালটন শো-রুম নামের একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করে আসছেন স্থানীয় নাজমুল আহসান নয়ন, জসিম উদ্দিন মিজি ও শামীমুর রহমান নামে তিন যুবক। এর আগে এই তিন যুবকের সাথে ব্যবসায়িক অংশীদার ছিলেন পার্শ্ববর্তী ঢাকা হোটেলের মালিক কফু। ব্যবসায়িক দায়-দেনার কারণে কফুর কাছ থেকে ওই তিন যুবক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নিয়ে ভাগ হয়ে যায় বেশ কিছুদিন আগে। ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাগ হয়ে যাবার কদিন পর তাদের ওয়ালটন শো-রুমে আগুন লাগার ঘটনা ঘটে। এ আগুন লাগার ঘটনায় কফুসহ আরো কজনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন তিন যুবকের একজন নয়ন। আর এতে সাক্ষী করা হয় শামীমকে।



শামীমের ব্যবসায়িক অংশীদার জসিম উদ্দিন ও নাজমুল আহসান নয়ন জানান, জামিনে এসেই কফু প্রকাশ্যে আমাদেরকে হুমকি দিতে থাকে। হুমকির বিষয়টি আমরা স্থানীয় মুরুবি্বদের বেশ কবার জানিয়েছি। সর্বশেষ সে তার হুমকির প্রতিফলন ঘটালো শামীমকে দা দিয়ে কুপিয়ে। এদিকে কুমিল্লা ট্রমা সেন্টারে চিকিৎসাধীন শামীমের হাত রক্ষা করতে ইতিমধ্যে দুটি অপারেশন করা হয়েছে। বাকি আরো একটি অপারেশন কাল বা পরশু করতে হবে পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে।



জসিম ও নয়ন ক্ষোভের সাথে জানান, শান্তিপূর্ণভাবে ব্যবসা করে জীবিকা নির্বাহ করবো সে সুযোগ মনে হয় আর থাকছে না। বার বার আমাদের উপর হামলা, আমাদের ব্যবসার উপর নাশকতা কীভাবে মেনে নেবো। সর্বোপরি এ ঘটনায় আমরা আইনের দারস্থ হয়েছি, আমরা আইনের প্রতি আস্থাশীল।



হাজীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ জাবেদুল ইসলাম চাঁদপুর কণ্ঠকে জানান, আটকের পর পর কফু হামলার ঘটনা পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে। আর যেহেতু প্রকাশ্যে ঘটনাটি সে একা করেছে তাই তাকেই একমাত্র আসামী করে মামলা দায়ের করা হয়েছে।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৩৫৬০৫৬
পুরোন সংখ্যা