চাঁদপুর। সোমবার ১৯ জুন ২০১৭। ৫ আষাঢ় জ্যৈষ্ঠ ১৪২৪। ২৩ রমজান ১৪৩৮
ckdf

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

২৮-সূরা কাসাস 


৮৮ আয়াত, ৯ রুকু, ‘মক্কী’


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


৬০। তোমাদিগকে যাহা কিছু দেওয়া হইয়াছে তাহা তো পার্থিব জীবনের ভোগ ও শোভা এবং যাহা আল্লাহর নিকট আছে তাহা উত্তম ও স্থায়ী। তোমরা কি অনুধাবন করিবে না?


দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


 


অন্ধভাবে কাউকে ভালোবেসো না তার ফল শুভ হবে না।


                -কারলাইন।

যে মানুষের প্রতি কৃতজ্ঞ নয়, সে আল্লাহর প্রতি কৃতজ্ঞ নয়। 


ফরিদগঞ্জ দলিল লিখক সমিতি অফিসের তিনটি ফটকে তালা ছবি তুলতে গিয়ে সংবাদকর্মী লাঞ্ছিত
ফরিদগঞ্জ ব্যুরো
১৯ জুন, ২০১৭ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


ফরিদগঞ্জ দলিল লিখক সমিতি অফিসের তিনটি ফটকে তালা দেয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে সাংবাদিক লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। গতকাল রোববার সকালে এ ঘটনা ঘটে। এদিকে তালা ভাঙ্গার ছবি তুলতে গিয়ে সমিতির সদস্য নয় এমন একজন দ্বারা সাংবাদিক লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনায় ফরিদগঞ্জ প্রেসক্লাব নিন্দা জ্ঞাপন করেছে। একই সাথে তারা সাব-রেজিস্ট্রার ও দলিল লিখক সমিতি কর্তৃপক্ষকে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য দাবি জানিয়েছেন।



জানা গেছে, ফরিদগঞ্জ দলিল লিখক সমিতিতে লুটপাটের অভিযোগ তুলে অফিস খোলার দিন গতকাল রোববার সকালে দলিল লিখক সমিতির এক সদস্য নূরে আলম কর্তৃক সমিতির অফিসের তিনটি ফটকে তালা মারে। সংবাদ পেয়ে সমিতির সভাপতি ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ ও সাধারণ সম্পাদক আবুল হোসেন গাজী উপস্থিত হয়ে তালা ভাঙ্গার ব্যবস্থা করেন।



এদিকে সংবাদ পেয়ে সংবাদকর্মীরা ঘটনাস্থলে ছুটে যান। প্রথমে তালাবদ্ধ ও পরে তালা ভাঙ্গার ছবি তোলার সময় সমিতির লোক দাবি করে জনৈক মাহবুবুর রহমান দৈনিক সকালের খবরের ফরিদগঞ্জ সংবাদদাতা ও দৈনিক ইলশেপাড়ের নিজস্ব সংবাদদাতা নারায়ণ রবিদাসকে ছবি তুলতে বাধা প্রদান এবং এক পর্যায়ে লাঞ্ছিত করা ছাড়াও সাংবাদিকদের অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজ ও হুমকি দেয়। এ সময় আশপাশের লোকজন হতবাক হয়ে দৃশ্য অবলোকন করে। পরে আরো কজন সাংবাদিক ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে নিবৃত্ত করার চেষ্টা করে।



এদিকে সমিতির অফিসের ফটকে তালা মারার নেতৃত্বদানকারী ও সাংবাদিক লাঞ্ছিত করার ঘটনার বিষয়ে সমিতির সদস্য নূরে আলম জানান, ২০০৯ সালের পর থেকে ফরিদগঞ্জ দলিল লিখক সমিতির আর কোনো সাধারণ সভা ও কমিটি হয়নি। ফলে সমিতির মধ্যে অর্থের লুটপাট ছাড়াও নৈরাজ্য চলছে। তাই তিনিসহ সমিতির বেশ কজন সদস্য বাধ্য হয়ে তালাবদ্ধ করেছেন। সাংবাদিক লাঞ্ছিত করার ঘটনায় নূরে আলম জানান, মাহবুব রহমান নামে এ লোক বহিরাগত। সে তাদের কেউ নয়।



অন্যদিকে ফরিদগঞ্জ দলিল লেখক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবুল হোসেন গাজী জানান, কে বা কারা তালা দিয়েছে আমরা জানি না, এমনকি পাহারাদারকেও খুঁজে পাচ্ছি না। আজ সাপ্তাহিক অফিসের প্রথমদিন সবাই বাইরে অপেক্ষা করছে। তাই হাতুড়ি দিয়ে তালা ভাঙ্গার নির্দেশ দিয়েছি। এছাড়াও তিনি বলেন, আমি যতটুকু জানি সমিতির সদস্য নূরে আলম সমিতির অফিসের ভেতরে মোটরসাইকেল রাখে। নূরে আলম নির্দিষ্ট সময়ে মোটরসাইকেল বের করতে না পারায় এ ঘটনা ঘটিয়েছে। মাহবুবুর রহমান ও সাংবাদিক লাঞ্ছনার বিষয়ে তিনি জানান, সে আমাদের দলিল লেখক সমিতির কেউ না। এমনকি তার দলিল লেখার কোনো সনদও নেই। কীভাবে দলিল লেখে কার মাধ্যমে লেখে তা আমার বোধগম্য নহে। সে বহিরাগত মাস্তান ছাড়া কিছু নয়। সে সাংবাদিকদের সাথে খারাপ ব্যবহার করবে এটা অত্যন্ত দুঃখজনক। সমিতির নেতৃবৃন্দ বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে দেখবে বলে তিনি আশ্বস্ত করেন।



এ বিষয়ে উপজেলা সাব রেজিস্ট্রার মোঃ মফিজুল ইসলাম জানান, সমিতির অফিসে তালা ও সংবাদ কর্মীদের সাথে দুর্ব্যবহার খুবই দুঃখজনক। বিষয়টি আমি সমিতির সভাপতি ও সম্পাদককে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিয়েছি।



এদিকে সাংবাদিক লাঞ্ছিতের ঘটনায় ফরিদগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি মামুনুর রশিদ পাঠান, সম্পাদক নুরুন্নবী নোমান ও নবনির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক প্রবীর চক্রবর্তী তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করেছেন। একই সাথে সাব রেজিস্ট্রার ও দলিল লিখক সমিতি কর্তৃপক্ষকে অবিলম্বে ওই বহিরাগতের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানিয়েছেন।



 


এই পাতার আরো খবর -
আজকের পাঠকসংখ্যা
১৫৯৩০৭৪
পুরোন সংখ্যা