চাঁদপুর। বৃহস্পতিবার ১৭ আগস্ট ২০১৭। ২ ভাদ্র ১৪২৪। ২৩ জিলকদ ১৪৩৮
redcricent
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

২৯-সূরা আনকাবূত


৬৯ আয়াত, ৭ রুকু, ‘মক্কী’


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


৩১। যখন আমার প্রেরিত ফিরিশ্তাগণ সুসংবাদসহ ইব্রাহীমের নিকট আসিল, তাহারা বলিয়াছিল, ‘আমরা এই জনপদবাসীকে ধ্বংস করিব, ইহার অধিবাসীরা তো যালিম।  


দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


 


জীবনে শুধু একবার বিবাহ করা যায়, সে উৎসবের পুনরাবৃত্তি অসুন্দর।                     


                            -অন্নদাশঙ্কর।


 


মুসলমান ভাইয়ের সাথে ঝগড়া ফ্যাসাদ করিও না, ওয়াদা ভঙ্গ করিও না।


 

ফটো গ্যালারি
মতলব উত্তরে 'ফলদ বৃক্ষ মেলা'র উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী
প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলায় সরকার সর্বদা প্রস্তুত
মাহবুব আলম লাভলু
মোঃ ফারুক চৌধুরী
১৭ আগস্ট, ২০১৭ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


গতকাল বুধবার ১৬ আগস্ট মতলব উত্তর উপজেলার ছেঙ্গারচর মডেল উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে 'ফলদ বৃক্ষ মেলা-২০১৭-এর উদ্বোধন করা হয়েছে। মেলার উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীর বিক্রম এমপি। উদ্বোধনকালে তিনি বলেছেন, বর্তমান সরকার কৃষি বান্ধব সরকার। কৃষকের চাহিদা মেটাতে সকল ব্যবস্থা নিয়েছে সরকার। এ লক্ষ্যে সরকার ভর্তুকিসহ নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। সারাদেশে ফলদ ও বনজ গাছ লাগানোর জন্য যথাযথ ব্যবস্থা নিয়েছে সরকার। আমাদের আগে যে খাদ্যের অভাব ছিলো, তা এখন আর নেই। আধুনিক প্রযুক্তি ও গবেষণার মাধ্যমে আমরা এ সফলতা অর্জন করেছি। আমাদের জনসংখ্যা বাড়ছে, কৃষি জমির পরিমাণ কমেছে। তারপরও বাংলাদেশ কৃষিক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখছে।



অনুষ্ঠানে তিনি আরো বলেন, দেশে যে কোনো ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলায় সরকার সর্বদা প্রস্তুত রয়েছে। বন্যা ও দুর্যোগ মোকাবেলায় পর্যাপ্ত সাইক্লোন সেন্টার গড়ে তোলা হবে। ইতোমধ্যে মানুষের জীবনযাত্রার মানোন্নয়নে নানা পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে বর্তমান সরকার। মন্ত্রী বন্যাদুর্গত এলাকার জনগণের জন্য প্রয়োজনীয় সকল পদক্ষেপ গ্রহণে আশ্বাস দিয়ে বলেন, কেউ খাদ্য ও আশ্রয় সংকটে পড়বে না। সরকার ওএমএস কর্মসূচির পাশাপাশি ভিজিএফ কর্মকা- সম্প্রসারণ করবে। দলগত প্রচেষ্টার মাধ্যমে কাজ করা হলে দুর্যোগ মোকাবেলায় সুফল পাওয়া যায়। এ জন্যে জনপ্রতিনিধি এবং সরকারের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাদের সমন্বয়ের মাধ্যমে কাজ করতে হবে।



মন্ত্রী বলেন, আগে ফলসহ বিভিন্ন ফসলের স্টক বিদেশ থেকে আনা হতো। এখন আমরা নিজেরাই তৈরি করছি। এটা সম্ভব হয়েছে আমাদের গবেষণা ও আধুনিক প্রযুক্তি গ্রহণের কারণে। খাদ্যে পুষ্টির বিষয়ে বিশেষ নজর দেয়ার বিষয় উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, আমাদের দেশে এখনো যথেষ্ট পুষ্টির অভাব রয়েছে। আমাদের নতুন প্রজন্ম তাদের উদ্ভাবনী প্রযুক্তি দিয়ে এ পুষ্টি চাহিদা পূরণ করবে। আমরা আস্তে আস্তে উন্নত রাষ্ট্রে পরিণত হচ্ছি, আমরা আমাদের খাদ্যে ও ফলে স্বয়ংসম্পূর্ণতা বজায় রেখেই এগিয়ে যাব। ফলের সরবরাহ সারা বছর নিশ্চিতকরণে কৃষির অগ্রযাত্রাকে অব্যাহত রাখার জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানান। এবারের মেলার প্রতিপাদ্য বিষয় 'অর্থ পুষ্টি স্বাস্থ্য চান, দেশী ফল বেশি খান'। এ শ্লেস্নাগানকে সামনে রেখে এবারের ফলদ বৃক্ষ মেলা ০৪ থেকে ১৭ আগস্ট পর্যন্ত আয়োজন করা হয়েছে। মেলার আয়োজকরা কৃষকদের বেশি করে দেশী ফলের চারা লাগানোর জন্য পরামর্শ দেন। ১১ টি স্টল নিয়ে মেলা শুরু হয়েছে।



মেলা ঘুরে দেখা যায়, বিভিন্ন প্রজাতির ফল গাছের চারা উঠেছে। উন্নতমানের দেশী উচ্চ জাতের আম, পেয়ারা, জামবুরা, লেবু, ডালিম, করমচা, লটকন, আতা, লিচুসহ প্রায় ৪০-৫০ জাতের ফল গাছের চারা দেখা যায়।



উপজেলা নির্বাহী অফিসার শারমিন আক্তারেরর সভাপতিত্বে ও উপজেলা কৃষি অফিসার মোহাম্মদ সালাউদ্দিনের সঞ্চালনায় সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মনজুর আহমদ, ছেংগারচর পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব রফিকুল আলম জর্জ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এমএ কুদ্দুস। আরো উপস্থিত ছিলেন ছেংগারচর ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ এসএম আবুল বাশার, কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা সহিদুল ইসলাম, ওসি আনোয়ারুল হক কামাল, মন্ত্রীর এপিএস মুক্তিযোদ্ধা তমিজ উদ্দিন আহমদ, সহকারী কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা বীর মুক্তিযোদ্ধা তফাজ্জল হোসেন সরকার প্রমুখ।



 


এই পাতার আরো খবর -
আজকের পাঠকসংখ্যা
৬৪৮০৪১
পুরোন সংখ্যা