চাঁদপুর। মঙ্গলবার ১৪ নভেম্বর ২০১৭। ৩০ কার্তিক ১৪২৪। ২৪ সফর ১৪৩৯

বিজ্ঞাপন দিন

বিজ্ঞাপন দিন

সর্বশেষ খবর :

  • ---------
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৩১-সূরা লোকমান


৩৪ আয়াত, ৪ রুকু, ‘মক্কী’


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


৩৪। কিয়ামতের জ্ঞান কেবল আল্লাহর নিকট রহিয়াছে, তিনি বৃষ্টি বর্ষণ করেন এবং তিনি জানেন যাহা গর্ভাশয়ে আছে। কেহ জানে না আগামীকাল সে কি অর্জন করিবে এবং কেহ জানে না কোন স্থানে তাহার মৃত্যু ঘটিবে। নিশ্চয়ই আল্লাহ্ সর্বজ্ঞ, সর্ববিষয়ে অবহিত।


দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


 

অতিরিক্ত ঔষধ রোগ বৃদ্ধি করে।  -ভার্জিল।


মায়ের পদতলে সন্তানদের বেহেশত।


চাঁদপুর শহরে দু'যুবককে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা আটক ৩
সোহাঈদ খান জিয়া
১৪ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+

গত ১২ নভেম্বর রাতে চাঁদপুর পৌরসভাস্থ আখন্দ মার্কেটের সামনে সাদ্দাম হোসেন ও রাসেল বেপারী নামে দু'যুবককে সন্ত্রাসীরা অতর্কিত হামলা চালিয়ে রক্তাক্ত জখম করেছে। এ ঘটনায় চাঁদপুর মডেল থানায় ১০জনকে আসামী করে সাদ্দামের বড় ভাই শরীফ হোসেন বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছে। পুলিশ ঘটনার দিন রাতেই ৩ জনকে আটক করেছে।

চাঁদপুর মডেল থানায় দায়েরকৃত মামলায় জানা যায়, সাদ্দাম হোসেন ও তার সাথে থাকা রাসেল বেপারী পালবাজারস্থ ফোর স্টার হোটেলে খাবার খেয়ে বাসার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়। এ সময় পিন্টু পাটওয়ারীর নির্দেশে বকুলতলার রানা, গুয়াখোলার আরমান, চৌধুরী কলোনীর মিশু, রেলওয়ে ১৪ কোয়ার্টারের শরীফ সরকার, গুয়াখোলার মোঃ দেশ, স্ট্র্যান্ড রোডের শামীম, গুয়াখোলার পাখি, দীনু মাল ও পুরাণবাজার পালপাড়ার আমিন হোসেনসহ আরো ৫/৬ জন সন্ত্রাসী চাপাতি, ছেনী, ছুরি ও লোহার রড নিয়ে সাদ্দাম হোসেন ও রাসেল বেপারীর পথরোধ করে। এ সময় তারা দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করলে সন্ত্রাসীরা পৌরসভাস্থ আখন্দ মার্কেটের সামনে সড়কের উপর সাদ্দাম হোসেনকে হত্যার উদ্দেশ্যে তার গলার বাম পাশে ও বাম হাতের বাহুতে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে রক্তাক্ত জখম করে। সেখান থেকে রাসেল বেপারী সাদ্দাম হোসেনকে নিয়ে পালবাজারের দিকে যাওয়ার সময় ফল বিতানের সামনে পুনরায় সন্ত্রাসীরা সাদ্দাম হোসেন ও রাসেল বেপারীর উপর দেশীয় অস্ত্র নিয়ে হামলা চালায় এবং দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সাদ্দাম হোসেনের পিঠে মারাত্মক জখম করলে সে জ্ঞান হারিয়ে মাটিতে পড়ে যায়। রাসেল বেপারীর বাম হাতের কনুইর উপর রক্তাক্ত জখম করে। এ সময় সাদ্দাম হোসেনের সাথে থাকা ইন্টারনেট কালেকশনের নগদ ৫০ হাজার টাকা, স্যামস্যাং ৬০ হাজার টাকা মূল্যের ১টি মোবাইল সেট নিয়ে যায়। আশপাশের লোকজন ঘটনাস্থলে চলে আসলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। পরে আহত সাদ্দামের ভাই শরীফ আশপাশের লোকজনের সহযোগিতায় আহত সাদ্দাম হোসেন ও রাসেল বেপারীকে উদ্ধার করে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে নিলে দায়িত্বরত চিকিৎসক সাদ্দাম হোসেনের অবস্থা আশঙ্কাজনক দেখে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করে।

এ ব্যাপারে আহত সাদ্দাম হোসেনের পিতা চাঁদপুর রেলওয়ে শ্রমিকলীগ চাঁদপুর শাখার সাধারণ সম্পাদক আঃ হান্নান বলেন, শরীফ সরকার একজন সন্ত্রাসী প্রকৃতির লোক, সে চাঁদাবাজি ও মাদক ব্যবসাসহ সকল ধরনের অপরাধের সাথে জড়িত। এ হামলার ঘটনার মূল হোতা হচ্ছে শরীফ সরকার। সন্ত্রাসী কর্মকা-ের জন্যে পূর্বে শরীফ সরকারকে চাঁদপুর পৌরসভার মেয়র আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে।

আজকের পাঠকসংখ্যা
৫২৪১৫৮
পুরোন সংখ্যা