চাঁদপুর। মঙ্গলবার ১৪ নভেম্বর ২০১৭। ৩০ কার্তিক ১৪২৪। ২৪ সফর ১৪৩৯

বিজ্ঞাপন দিন

বিজ্ঞাপন দিন

সর্বশেষ খবর :

  • ---------
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৩১-সূরা লোকমান


৩৪ আয়াত, ৪ রুকু, ‘মক্কী’


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


৩৪। কিয়ামতের জ্ঞান কেবল আল্লাহর নিকট রহিয়াছে, তিনি বৃষ্টি বর্ষণ করেন এবং তিনি জানেন যাহা গর্ভাশয়ে আছে। কেহ জানে না আগামীকাল সে কি অর্জন করিবে এবং কেহ জানে না কোন স্থানে তাহার মৃত্যু ঘটিবে। নিশ্চয়ই আল্লাহ্ সর্বজ্ঞ, সর্ববিষয়ে অবহিত।


দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


 

অতিরিক্ত ঔষধ রোগ বৃদ্ধি করে।  -ভার্জিল।


মায়ের পদতলে সন্তানদের বেহেশত।


এ কেমন ধরনের অভিযোগ!
কামরুজ্জামান টুটুল
১৪ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


হাজীগঞ্জের বড়কুল পূর্ব ইউনিয়নের মধ্য বড়কুলে একটি খড়ের গাদা আগুনে পুড়িয়ে দেয়ার ঘটনা নিয়ে এলাকাবাসীর মধ্যে ভিন্ন ধারণা জন্মাতে শুরু করেছে। এলাকার দুই পরিবারের মধ্যে সম্পত্তিগত বিরোধ রয়েছে কয়েক বছর ধরে। এর মধ্যে সম্প্রতি বিরোধীয় একটি পরিবারের গো-খাদ্য খড়ের গাদায় আগুন লাগে। এ ঘটনায় বিরোধীয় অপর পরিবারের একজনকে আসামী করে থানায় অভিযোগ দায়ের করে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের গৃহকর্তা। এদিকে বাদী অভিযোগপত্রে উল্লেখ করেন পূর্ব বিরোধের জের ধরে বিবাদীরা এমন কা- ঘটাতে পারে। বিষয়টি নেহায়েত সম্পত্তিগত বিরোধ কিন্তু অভিযোগ খড়ের গাদায় আগুন। এমন বিষয়টি তদন্তপূর্বক সঠিক বিচার দাবি করেছেন শান্তিপ্রিয় এলাকাবাসী।



খোঁজ নিয়ে ও থানায় অভিযোগের সূত্রে জানা যায়, মধ্য বড়কুল ইউসুফ আলী বেপারী বাড়ির মৃত ছেফায়েত উল্লার ছেলে মিজানুর রহমানের পরিবারের সাথে পার্শ্ববর্তী মুসলিম বেপারীর ছেলে আঃ রহমানের ওয়ারিশ সম্পত্তি নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। এ নিয়ে মিজানুর রহমান স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদে একটি অভিযোগ দাখিল করেন যা চলামান রয়েছে। এরই মধ্যে গত ৭ নভেম্বর দিনে দুপুরে কে বা কারা আঃ রহমানের খড়ের গাদায় আগুন লাগায়। ঘটনাটি দিনের বেলায় হওয়ায় চারদিক থেকে মানুষজন এসে খড়ের গাদা আগুনে পুড়ে যাবার আগেই আগুন নিভিয়ে ফেলা হয়। এ ঘটনায় আঃ রহমান একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন হাজীগঞ্জ থানায়। এতে বিবাদী করা হয় মিজানুর রহমান ও তার দুই ছেলেকে।



অভিযোগে আঃ রহমান বলেন, তার সাথে মিজানুর রহমানের সম্পত্তিগত বিরোধ রয়েছে। ঘটনার দিন কে বা কারা তার খড়ের পারায় আগুন দিয়ে প্রায় ২০ হাজার টাকার ক্ষতিসাধন করে। অভিযোগের বিবাদীরা (মিজানুর রহমান ও তার ছেলেরা) পূর্ব বিরোধের জের ধরে এমন কা- (খড়ের গাদা) ঘটাতে পারে।



এ বিষয়ে বাদী আঃ রহমান চাঁদপুর কণ্ঠের কাছে বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, মিজানুর রহমান আগুন দিয়েছে তা আমি নিজে দেখিনি তবে তার পরিবারের সাথে আমার বিরোধ রয়েছে।



বিবাদী মিজানুর রহমান বলেন, খড়ের গাদায় আগুন লাগার বিষয়টি আমি পরে শুনেছি । তার সাথে আমার বিরোধ রয়েছি বলে আমি আর বিষয়টি নিয়ে জানার চেষ্টা করিনি। আমার সম্পত্তির হিস্যা বুঝে নিতে মামলা দায়ের করার কারণে আমাকে সাজানো ঘটনায় আসামী করা হয়েছে।



এদিকে বড়কুল এলাকার স্থানীয়রা বলছেন ঘটনা এক, অভিযোগ আরেক, এটা কেমন হলো? আমরা এলাকাবাসী চাই সুষ্ঠু তদন্তের ভিত্তিতে সুষ্ঠু সমাধান। আর কোনো কিছুর সাক্ষী প্রমান না দেখে কারো বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ যাতে না হয়।



এ বিষয়ে অভিযোগের তদন্ত কর্মকর্তা থানার উপ-পরিদর্শক সামছুজ্জামান বলেন, বাদী ধারণাবশত তিন জনের নাম উল্লেখ করে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। তদন্ত সাপেক্ষে ঘটনার সত্যতা জানা যাবে।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৫২৪০০১
পুরোন সংখ্যা