চাঁদপুর। রোববার ১৪ জানুয়ারি ২০১৮। ১ মাঘ ১৪২৪। ২৬ রবিউস সানি ১৪৩৯
redcricent
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • হাজীগঞ্জে আটককৃত বিএনপি'র ১৭ নেতাকর্মীকে জেলহাজতে প্রেরন
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৩৪-সূরা সাবা


৫৪ আয়াত, ৬ রুকু, মাক্কী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


০৩। কাফেররা বলে আমাদের উপর কেয়ামত আসবে না। বলুন কেন আসবে না? আমার পালনকর্তার শপথ-অবশ্যই আসবে। তিনি অদৃশ্য সম্পর্কে জ্ঞাত। নভোমন্ডলে ও ভূ-মন্ডলে তাঁর অগোচরে নয় অণু পরিমাণ কিছু, না তদপেক্ষা ক্ষুদ্র এবং না বৃহৎ-সমস্তই আছে সুস্পষ্ট কিতাবে।


০৪। তিনি পরিণামে যারা মুমিন ও সৎকর্ম পরায়ণ, তাদেরকে প্রতিদান দেবেন। তাদের জন্য রয়েছে ক্ষমা ও সম্মানজনক রিযিক।


০৫। আর যারা আমার আয়াত সমূহকে ব্যর্থ করার জন্য উঠে পড়ে লেগে যায়, তাদের জন্যে রয়েছে যন্ত্রণাদায়ক শাস্তি।


দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


 


 


ঘুম পরিশ্রমী মানুষকে সৌন্দর্য প্রদান করে। -টমাস ডেককার।


 


 


বিনয় ও সৌজন্য ঈমানের দুই শাখা এবং বৃথা বাক্যালাপ ও জাঁকজমক কপটতার (মুনাফেকির) দুই শাখা।


 


 


ফটো গ্যালারি
গৃহহীনদের ঘর প্রদান : সারাদেশের মধ্যে দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে যাচ্ছে হাজীগঞ্জ
কামরুজ্জামান টুটুল
১৪ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


গৃহহীনদের ঘর প্রদান করার ক্ষেত্রে সারাদেশের মধ্যে দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে যাচ্ছে হাজীগঞ্জ। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনাকে কাজে লাগিয়ে সারাদেশের মধ্যে প্রথম হাজীগঞ্জ উপজেলাকে গৃহহীন মুক্ত ঘোষণা করা হচ্ছে অচিরেই। গত বছর শুরু হওয়া সরকারি উদ্যোগে আর বেসরকারি অর্থায়নে গৃহহীনদের জন্যে নির্মিত ঘরগুলোর মধ্যে ইতঃপূর্বে ১শ' ১১টি ঘর গৃহহীন পরিবারগুলোকে বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে। ২য় ধাপে ২শ' ঘর নির্মাণের টার্গেট নিয়ে বর্তমান হাজীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বৈশাখী বড়ুয়া চলতি জানুয়ারির শুরুতে আরো ৪১টি ঘর নির্মাণ শেষে গৃহহীনদের বুঝিয়ে দিয়েছেন। আরো ৪৮টি ঘর নির্মাণের কাজ এগিয়ে চলছে। এই ঘরগুলো অবশিষ্ট গৃহহীন পরিবারগুলোকে বুঝিয়ে দেয়া হলেই হাজীগঞ্জকে গৃহহীন মুক্ত ঘোষণা করা হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। এদিকে গৃহহীনদের ঘর বুঝিয়ে দেয়ার পর ওই পরিবারগুলোকে বিভিন্ন প্রকল্পের মাধ্যমে আয়ের পথে আনা হবে।



২০১৭ সালের শুরুর দিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জেলা প্রশাসকদের সম্মেলনে তাঁদেরকে নতুন আইডিয়া নিয়ে কাজ করার নির্দেশনা প্রদান করেন। সে আলোকে চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক মোঃ আব্দুস সবুর মন্ডল জেলার উন্নয়ন সমন্বয় সভায় সকল ইউএনওকে নতুন কাজের আইডিয়া প্রদান করেন। সে আইডিয়ার সূত্র ধরে সে সময়ের হাজীগঞ্জের ইউএনও মোহাম্মদ মাহবুবুল আলম মজুমদার গৃহহীনদের তালিকা করে গৃহ নির্মাণের পরিকল্পনা গ্রহণ করেন। স্থানীয় সংসদ সদস্য মেজর (অবঃ) রফিকুল ইসলাম বীর উত্তম, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব অধ্যাপক আব্দুর রশিদ মজুমদার, উপজেলা প্রশাসন, হাজীগঞ্জ বাজার ব্যবসায়ী সমিতি, উপজেলার সকল ইউপি চেয়ারম্যান, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তাসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিগণের সহায়তায় অর্থ সংগ্রহ করে ঘর নির্মাণের ব্যবস্থা করা হয়। গত বছরের মার্চে এ কর্মযজ্ঞ শুরু করে একই বছরের শেষের দিকে উপজেলার ১শ' ১১টি গৃহহীন পরিবারকে ১শ' ১১টি ঘর বুঝিয়ে দেয়া হয়।



এদিকে উপজেলাব্যাপী গৃহহীনদের তালিকা তৈরি শেষে ১শ' ১১ পরিবারকে ঘর বুঝিয়ে দেয়ার পর আরো অনেক গৃহহীন পরিবার বাকি থাকায় পূর্বের ইউএনওর কাজের ধারাবাহিতা ধরে গত বছরের শেষদিকে ফের গৃহহীনদের জন্যে ঘর নির্মাণের ২য় ধাপে পরিকল্পনা গ্রহণ করেন বর্তমান ইউএনও বৈশাখী বড়ুয়া। মেজর (অবঃ) রফিকুল ইসলাম বীর উত্তম এমপির পরামর্শক্রমে ২য় ধাপের পরিকল্পনায় পূর্বের ধারাবাহিকতায় অর্থ ও মালামাল সংগ্রহ করে ৪১টি ঘর নির্মাণ শেষে গত বছরের শেষের দিকে ৪১টি গৃহহীন পরিবারকে ঘর বুঝিয়ে দিয়েছেন ইউএনও বৈশাখী বড়ুয়াসহ সংশ্লিষ্টরা। এদিকে ২শ' ঘর নির্মাণের টার্গেট নিয়ে ২য় ধাপের পরিকল্পনার বাকি ঘরগুলো নির্মাণের কর্মযজ্ঞ দ্রুত এগিয়ে চলছে। এরপরেই হাজীগঞ্জ উপজেলাকে গৃহহীন মুক্ত করার সরকারি ঘোষণা দেয়া হবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র নিশ্চিত করেছে।



উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, ঘর প্রদানের পর সরকারি ব্যবস্থপনায় গৃহহীনদের বিভিন্ন রাষ্ট্রীয় সুবিধার আওতায় আনা হচ্ছে। এর মধ্যে যারা মাঠে জমি চাষাবাদ করে তাদেরকে সার-কীটনাশক, একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পের সুবিধা, সুপেয় পানির জন্যে টিউবয়েল, স্যানিটেশনের জন্যে টয়লেট, সোলার সুবিধা, বিদ্যুৎ সংযোগ সুবিধা, ৪০ দিনের কর্মসূচিতে অন্তর্ভুক্ত, পরিবার পরিকল্পনায় অন্তর্ভুক্ত, ভিজিএফ, ভিজিডি সুবিধাসহ বিভিন্ন প্রশিক্ষণ দিয়ে তাদেরকে সামাজিক নিরাপত্তার আওতায় আনা হবে।



হাজীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বৈশাখী বড়ুয়া চাঁদপুর কণ্ঠকে জানান, 'সারাদেশে কোনো মানুষ বা পরিবার গৃহহীন থাকবে না' মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এমন বক্তব্যকে প্রধান্য দিয়ে জেলা প্রশাসক মহোদয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী তালিকার সূত্র ধরে হাজীগঞ্জে ২য় ধাপের পরিকল্পনা হাতে নিয়ে গৃহনির্মাণ অচিরেই শেষ হয়ে গেলে আমরা উপজেলাকে গৃহহীন মুক্ত ঘোষণা করবো। এ কাজে স্থানীয় সংসদ সদস্য মেজর (অবঃ) রফিকুল ইসলাম বীর উত্তম, জেলা প্রশাসক মহোদয়, উপজেলা পরিষদ, উপজেলা প্রশাসন, স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানগণ, সাংবাদিকসহ সকলের সহযোগিতায় অনেক সহজ হচ্ছে। এরপরেই আমরা ফের ভূমিহীন তালিকা তৈরি করে সরকারি খাস জমিতে ভূমিহীনদের ভূমি বন্দোবস্ত করে দেয়া হবে।



 



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
১৭৩৪০৮
পুরোন সংখ্যা