চাঁদপুর। সোমবার ১৬ এপ্রিল ২০১৮। ৩ বৈশাখ ১৪২৫। ২৮ রজব ১৪৩৯

বিজ্ঞাপন দিন

jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৩৭- সূরা আস-সাফফাত

১৮২ আয়াত, ৫ রুকু, মক্কী

পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।

২৯। তারা বলবে, বরং তোমরা তো বিশ^াসীই ছিলে না।

৩০। এবং তোমাদের উপর আমাদের কোনো কর্তৃত্ব ছিল না, বরং তোমরাই ছিলে সীমা লংঘনকারী সম্প্রদায়।

৩১। আমাদের বিপক্ষে আমাদের পালনকর্তার উক্তিই সত্য হয়েছে। আমাদেরকে অবশ্যই স্বাদ আস্বাদন করতে হবে।

দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


দারিদ্র্যকে যে মাথা পেতে গ্রহণ করে, সে ব্যক্তিত্বহীন পুরুষ।         


-লংফেলো।




মানুষ মিথ্যাবাদী সাব্যস্ত হবার জন্যে এটাই যথেষ্ট যে, সে যা শোনে (যাচাই না করে) তা-ই বলে বেড়ায়।  

 


ফটো গ্যালারি
নানা আয়োজনে পুরাণবাজারে বাংলা নববর্ষ উদযাপন
মিজানুর রহমান
১৬ এপ্রিল, ২০১৮ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


চাঁদপুর জেলার প্রধান ব্যবসায়িক এলাকা পুরাণবাজারে নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে পহেলা বৈশাখ ১৪২৫ নববর্ষ উদ্যাপিত হয়েছে। নতুন বছরকে বরণ করে নিতে উৎসবপ্রিয় পুরাণবাজারবাসী প্রতি বছরের ন্যায় এবারও বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে। শনিবার সকাল ৮টায় নববর্ষ উদ্যাপন পরিষদ, পুরাণবাজার, চাঁদপুর-এর উদ্যোগে বর্ণিল মঙ্গল শোভাযাত্রা বের করা হয়। এতে চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও মেয়র আলহাজ্ব নাছির উদ্দিন আহমেদ উপস্থিত ছিলেন। বাংলা নতুন বছরকে স্বাগত জানিয়ে এবং সবার শুভ কামনা করে বক্তব্য রাখেন পৌর প্যানেল মেয়র ছিদ্দিকুর রহমান ঢালী, বর্ষবরণ উদ্যাপন পরিষদের সভাপতি রাধা গোবিন্দ গোপ ও মহাসচিব ব্যাংকার মুজিবুর রহমান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উদ্যাপন পরিষদের উপদেষ্টা ফয়েজ আহমদ মন্টু, সহ-সভাপতি মমতাজ উদ্দীন মন্টু গাজী, চেম্বার পরিচালক রোটারিয়ান গোপাল চন্দ্র সাহা, স্বদেশ সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক গোষ্ঠীর অধ্যক্ষ মনোজ আচার্যী, পুরাণবাজার মধুসূদন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক গনেশ চন্দ্র দাস, পুরাণবাজার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মজিবুর রহমান, সাংবাদিক মিজানুর রহমান, সংগঠক শিপন খান, একে আজাদসহ আরো অনেকে। এরপর মধুসূদন হাই স্কুল মাঠে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান শুরু হয়। সেখানে মনোজ আচার্যীর পরিচালনায় স্বদেশ সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সংগঠন বর্ষবরণ অনুষ্ঠান পরিবেশন করে।



মঙ্গল শোভাযাত্রায় শিশু সংগঠন চাঁদের হাটসহ বিভিন্ন সংগঠন ও পুরাণবাজারের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান অংশ নেয়। এছাড়াও পুরাণবাজারের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বিশেষ করে পুরাণবাজার ডিগ্রি কলেজ, মধুসূদন উচ্চ বিদ্যালয়, পুরাণবাজার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, ২নং বালক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পুরাণবাজার মার্চেন্টস্ একাডেমি এবং সাংস্কৃতিক সংগঠন উদয়ন সংগীত বিদ্যালয়, উদয়ন কচি-কাঁচার মেলা এবং ও স্বদেশ সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক গোষ্ঠী স্ব স্ব উদ্যোগে বর্ষবরণ অনুষ্ঠান করে।



সকাল থেকেই হরিসভা সড়কের পাশে পুরাতন ফায়ার সার্ভিস মাঠে প্রতি বছরের ন্যায় এবারও 'গলিয়া' (মেলা) বসে। লোহারপুল চত্বরেও মাটির খেলনা বিক্রির পসরা বসে। পহেলা বৈশাখের বিকেল বেলায় নতুন ও পুরাণবাজার ব্রিজের ওপর বিপুল সংখ্যক তরুণ-তরুণীসহ বিভিন্ন বয়সী মানুষের ঢল নামে। তাদের চোখে-মুখে, পোশাকে বর্ষবরণের আনন্দ-উচ্ছ্বাস ছিলো চোখে পড়ার মতো। হরিসভা ও রণাগোয়াল মেঘনা নদীর পাড় এলাকায় নানা বয়সী মানুষ বৈশাখী আমেজ নিয়ে ঘুরে বেড়িয়েছে।



যখন সরকারিভাবে সবাই পহেলা বৈশাখ উদ্যাপন করছে, তখন ব্যবসায়ীরা ছিলেন চৈত্রসংক্রান্তিতে ব্যস্ত। এদিন স্থানীয় মাছ বাজারে বছরের প্রথম দিন উপলক্ষে এবারও চমক ছিলো বড় বড় রুই-কাতল মাছ বিক্রির দৃশ্য। গতকাল ১৫ এপ্রিল ব্যবসায়ীরা উদ্যাপন করেছে পহেলা বৈশাখ।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৪৩৭১৭৩
পুরোন সংখ্যা