চাঁদপুর। মঙ্গলবার ১৭ এপ্রিল ২০১৮। ৪ বৈশাখ ১৪২৫। ২৯ রজব ১৪৩৯
redcricent
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • হাজীগঞ্জে পানিতে ডুবে দুই ভাইয়ের মৃত্যু
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৩৭- সূরা আস-সাফফাত


১৮২ আয়াত, ৫ রুকু, মক্কী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


৩২। আমরা তোমাদেরকে পথভ্রষ্ট করেছিলাম। কারণ আমরা নিজেরাই পথভ্রষ্ট ছিলাম।


৩৩। তারা সবাই সেদিন শান্তিতে শরীক হবে।


৩৪। অপরাধীদের সাথে আমি এমনি ব্যবহার করে থাকি।


৩৫। তাদের যখন বলা হত, আল্লাহ ব্যতীত কোন উপাস্য নেই, তখন তারা ঔদ্ধত্য প্রদর্শন করত।


দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


 


 


উৎকৃষ্ট বীজ থেকেই উত্তম বৃক্ষ জন্ম নেয়।


-জনগে।


 


 


 


 


পিতার আনন্দে খোদার আনন্দ এবং পিতার অসন্তুষ্টিতে খোদার অসন্তুষ্টি


 


 


ফটো গ্যালারি
আল-আমিন একাডেমিতে ব্যাপক রদবদল। অনেকটা শাস্তিমূলক ব্যবস্থা
চাঁদপুর কণ্ঠ রিপোর্ট
১৭ এপ্রিল, ২০১৮ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


চাঁদপুর আল-আমিন সোসাইটি পরিচালনাধীন আল-আমিন একাডেমির প্রধান শাখাসহ সকল শাখায় ব্যাপক রদবদল করা হয়েছে। সম্প্রতি আল-আমিন একাডেমিতে আন্দোলন, বিক্ষোভ ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিতে নেপথ্যে থেকে যেসব শিক্ষক নেতৃত্ব দিয়েছেন তাদের শীর্ষ কয়েকজনকে পদাবনতি করে এক শাখা থেকে অন্য শাখায় বদলি করা হয়েছে। এ পদক্ষেপকে অনেকটা শাস্তিমূলক ব্যবস্থা হিসেবেই দেখছেন অনেকে। এছাড়া একাডেমির ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ ড. আবদুল গাফফার তাঁর মায়ের চিকিৎসার জন্যে প্রায় এক মাসের ছুটি নিয়েছেন কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে। তিনি তাঁর মাকে নিয়ে সহসা ভারত যাচ্ছেন বলে জানা গেছে। আল-আমিন সোসাইটি এবং আল-আমিন একাডেমি স্কুল এন্ড কলেজের গভর্নিংবডির সভায় শিক্ষক রদবদলের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।



সংশ্লিষ্ট সূত্র থেকে জানা যায়, গত ১৩ এপ্রিল শুক্রবার ঢাকায় আল-আমিন সোসাইটি এবং আল-আমিন একাডেমি স্কুল এন্ড কলেজ গভর্নিংবডির সভা হয়। ট্রাস্ট এবং গভর্নিংবডির চেয়ারম্যান, সাবেক এমপি প্রফেসর এম আবদুল্লাহর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ওই সভায় সোসাইটি এবং গভর্নিংবডির সকল সদস্য উপস্থিত ছিলেন। সভায় সোসাইটির নানা হিসাব-নিকাশের পর সম্প্রতি একাডেমিতে ঘটে যাওয়া বিষয় নিয়ে ব্যাপক আলোচনা হয়। এসব ঘটনার নেপথ্য কারণ ও রহস্য উদ্ঘাটনে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির তিনজন হচ্ছেন একাডেমির সাবেক অধ্যক্ষ মাহবুবুর রহমান, গভর্নিংবডির সদস্য অ্যাডঃ শাহজাহান মিয়া ও জামায়াতের মজলিশে শুরার সদস্য অধ্যক্ষ আবদুর রবের ছেলে। তবে এ কমিটির ব্যাপারে একাডেমির অনেক শিক্ষক আপত্তি তুলেছেন। তারা বলেছেন, গঠিত তদন্ত কমিটির দ্বারা নিরপেক্ষ তদন্ত এবং রিপোর্ট আশা করা যায় না। কারণ, তিনজনই একই ঘরানার।



এদিকে ওই সভায় সম্প্রতি আন্দোলনে নেপথ্যে যারা নেতৃত্ব এবং উস্কানি দিয়েছেন তাদের শীর্ষ কয়েকজনকে এক শাখা থেকে অন্য শাখায় বদলি করা হয়েছে। আর এ বদলি অনেকটা শাস্তিমূলক এবং পদাবনতি। একাডেমির মূল ক্যাম্পাসের শিক্ষক সমন্বয়কারী (টিআর) ও প্রাথমিক শাখার প্রধান শিক্ষক বিল্লাল হোসেন মিয়াজী (জেলা জামায়াতের সেক্রেটারী)কে বর্তমান কর্মস্থল থেকে বাবুরহাট শাখার ইনচার্জ হিসেবে বদলি, একাডেমির ছাত্রী শাখার ইনচার্জ ফেরদৌসী সুলতানাকে গুণরাজদী শাখার ইনচার্জ, গুণরাজদী শাখার ইনচার্জ নাসির উদ্দিন নসুকে প্রধান শাখায় সহকারী শিক্ষক হিসেবে বদলি, গুণরাজদী শাখার সহকারী শিক্ষক নজরুল ইসলামকে বাবুরহাট শাখায়, বাবুরহাট শাখার ইনচার্জ মোঃ আক্তার হোসেনকে গুণরাজদী শাখার সহকারী শিক্ষক এবং কলেজ শাখার শিক্ষক মকবুল হোসেনকে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ ড. আবদুল গাফফার ছুটিতে থাকা পর্যন্ত টিচার্স ইনচার্জ হিসেবে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। আর ছাত্রী শাখার সিনিয়র শিক্ষিকা ইসরাত জাহানকে ছাত্রী শাখার ইনচার্জের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। গতকাল ১৬ এপ্রিল এই রদবদল সংক্রান্ত চিঠি সংশ্লিষ্টদের কাছে পেঁৗছানো হয়েছে। ১৮ এপ্রিল থেকে এটি কার্যকর হবে।



উল্লেখ্য, আল-আমিন একাডেমির ইতিহাসে এই প্রথম বড় ধরনের রদবদল। রদবদলকৃত শিক্ষকরা একেকজন বর্তমান কর্মস্থলে ২০/২৫ বছর যাবৎ আছেন। এই রদবদল প্রতিষ্ঠানের জন্যে ভালো হবে বলে মনে করেন সাধারণ শিক্ষকরা।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৬২১০৮৫
পুরোন সংখ্যা