চাঁদপুর। বুধবার ১৬ মে ২০১৮। ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫। ২৯ শাবান ১৪৩৯
redcricent
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • হাজীগঞ্জে পানিতে ডুবে দুই ভাইয়ের মৃত্যু
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৩৭-সূরা সাফ্ফাত

১৮২ আয়াত, ৫ রুকু, মক্কী

পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।

১৫৬। নাকি তোমাদের কাছে সুস্পষ্ট কোন দলিল রয়েছে?

১৫৭। তোমরা সত্যবাদী হলে তোমাদের কিতাব আন।

১৫৮। তারা আল্লাহ ও জ্বিনদের মধ্যে সম্পর্ক সাব্যস্ত করেছে, অথচ জ্বিনেরা জানে যে, তারা গ্রেফতার হয়ে আসবে।

১৫৯। তারা যা বলে তা থেকে আল্লাহ পবিত্র।

দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


যারা যুক্তি মানে না, তারা বর্বর।

-জর্জ বার্নাড শ’।


দেশের শাসনভার আল্লাহতায়ালার নিকট হতে আমানত।


ফটো গ্যালারি
দ্বাদশগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ধানের শীষের প্রার্থীর নির্বাচন বর্জন
হাজীগঞ্জে কৌশলে কেন্দ্র দখলের মধ্য দিয়ে শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ!
কামরুজ্জামান টুটুল
১৬ মে, ২০১৮ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


গতকাল হাজীগঞ্জের দ্বাদশগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে কৌশলের মাধ্যমে কেন্দ্র দখল করেছে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর পক্ষের লোকজন। কমপক্ষে ৩টি কেন্দ্র কৌশলগত দখলের পরেই বিএনপি সমর্থিত ধানের শীষের প্রতীকের প্রার্থী নির্বাচন বর্জন করেন। কেন্দ্র দখলের কৌশল প্রক্রিয়াটা ভিন্ন হলেও মূলত বিষয়টি ঘটেছে প্রশাসনের একেবারে অগোচরে। কেন্দ্র দখল প্রক্রিয়ায় নৌকার পক্ষের লোকজনের সাথে অপর দুই প্রার্থীর লোকজন বাধা হয়ে দাঁড়ায়নি বলেই শান্তিপূর্ণভাবে ভোগগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। তবে অন্য সকল নির্বাচনের চেয়ে এই নির্বাচনে র‌্যাব, বিজিবি, পুলিশ, ম্যাজিস্ট্রেটসহ বিভিন্ন সংস্থার লোকজনের উপস্থিতি ছিলো পর্যাপ্ত।



বিকেল ৩টায় সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে নির্বাচন বর্জন করেছেন ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী আনোয়ারুল ইসলাম বাবুল। এই প্রার্থী অভিযোগ করে বলেন, সকাল ১০টায় নৌকা প্রতীকের আওয়ামী লীগের প্রার্থী খোরশেদ আলম বকাউল বহিরাগতদের দিয়ে ১নং ওয়ার্ড মালাপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রটি দখল করে নেন। এরপর বিভিন্ন কেন্দ্রে আমাদের কর্মী-সমর্থকদের মারধর করে আর একই প্রক্রিয়ায় এক এক করে সব কেন্দ্র দখলে নেয় নৌকার লোকেরা। তিনি আরো বলেন, কেন্দ্রে থাকবে ইউনিয়নের ভোটার আর প্রার্থীর কর্মী-সমর্থক। অথচ কেন্দ্রগুলো উপজেলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগসহ অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ বহিরাগতদের দখলে ছিলো। এতে আওয়ামী লীগের অন্যান্য ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানরাও যোগ দেন। তাই এই দখলের নির্বাচন আমি বর্জন করলাম।



এদিকে সরজমিনে ঘুরে ও স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, সকাল ১০টার মধ্যে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর পক্ষে মালাপাড়া কেন্দ্র দখলে নেয় বহিরাগতরা। এই কেন্দ্রের ভোটাররা অভিযোগ করে জানান, যারা ভোট দিয়েছে তারা পার্শ্ববর্তী রাজারগাঁও ইউনিয়নের লোকজন। অপরদিকে ইছাপুরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রটি মূলত আনারস প্রতীকের প্রার্থীর নিজ এলাকা হিসেবে পরিচিত। কিন্তু এই কেন্দ্রের ৫শ' গজ পশ্চিমে রয়েছে রাজারগাঁও ইউনিয়নের সীমানা। এই সীমানায় বসে রাজারগাঁও এলাকার বেশ কিছু লোকজন নৌকার পক্ষ হয়ে সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত চকলেট টাইপের বোমা ফাটিয়ে ইছাপুরা কেন্দ্রের পাশে আতঙ্ক সৃষ্টি করে। এ সময় এই বহিরাগতরা মহিলা ভোটারদেরকে ভোট দিতে আসার পথে গালমন্দ, দেশীয় অস্ত্র প্রদর্শন করে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে। এমন উত্তেজনা থামাতে গিয়ে পুলিশ বাহিনীর একটি দল ঐ সীমানা এলাকায় সার্বক্ষণিক সতর্ক প্রহরায় থাকতে হয়েছে। পুলিশ সুপার শামসুন্ন্নাহার দুপুরের দিকে উক্ত কেন্দ্রে গিয়ে সকল বহিরাগতকে আটক করার নির্দেশ দিলে বহিরাগতরা রাজারগাঁও ইউনিয়নের সীমানার দিকে চলে যায়। তবে কেন্দ্র অভ্যন্তরে শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়।



দুপুর আনুমানিক ১টার দিকে কাপাইকাপ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে একদল বহিরাগত ঢুকে নৌকা প্রতীকের পক্ষে ভোট দেয়ার চেষ্টা করে। এ সময় ম্যাজিস্ট্রেটের শক্ত অবস্থানের কারণে সুবিধা করতে পারেনি বহিরাগতরা। অপরদিকে বিকেল ৩টায় নাসিরকোট উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে বহিরাগতরা ভোট দেয়াবস্থায় ম্যাজিস্ট্রেট ত্বরিৎগতিতে ব্যবস্থা নিলে কেন্দ্র দখলদাররা তেমন একটা সুবিধা করে উঠতে পারেনি।



স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা গেছে, মূলত এখানে যে কয়টা কেন্দ্র দখল হয়েছে তা ছিলো একতরফা দখল। এক পক্ষ কেন্দ্র দখলে গিয়ে অপর পক্ষের বাধার সম্মুখীন হয়নি বলেই মারামারি বা হানাহানির মতো ঘটনা ঘটেনি। সর্বসাকুল্যে যে কয়টি কেন্দ্র দখল হয়েছে তা ছিলো কৌশলী প্রক্রিয়ায় আর অপর প্রার্থীদের লোকজন ছিলো দুর্বল বা আতঙ্কিত।



এদিকে বিকেল ৩টায় ধানের শীষের প্রতীকের প্রার্থী আনোয়ারুল ইসলাম বাবুল তার নিজ বাড়িতে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে তার উপর ও তার এজেন্ট, ভোটার ও কর্মীদের উপর হামলার ফিরিস্তি তুলে ধরে বলেন, এ নির্বাচনে নৌকার পক্ষের লোকেরা কমপক্ষে আমার দলের ৮ জনকে মারধর করে আহত করেছে। এ সময় বাকিলা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান নাফের শাহ্সহ হাজীগঞ্জ প্রেসক্লাবের নেতৃবৃন্দ এবং প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার সংবাদকর্মী ও ধানের শীষ সমর্থিত বিএনপির কর্মী-সমর্থকরা উপস্থিত ছিলেন।



উল্লেখ্য, নির্বাচনে ৪জন চেয়ারম্যান প্রার্থী অংশগ্রহণ করেন। যার মধ্যে দু'জন স্বতন্ত্র প্রার্থী রয়েছেন। এ ছাড়া ৩৪ জন ইউপি সদস্য ও ১১ জন সংরক্ষিত নারী সদস্য নির্বাচনে অংশ নেন। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার্থে ৬জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ টিম এবং র‌্যাব ও বিজিবি স্ট্রাইকিং ফোর্সের দায়িত্ব পালন করে।



 


এই পাতার আরো খবর -
আজকের পাঠকসংখ্যা
১৩৬১৯৩
পুরোন সংখ্যা