চাঁদপুর । বৃহস্পতিবার ১৯ জুলাই ২০১৮ । ৪ শ্রাবণ ১৪২৫ । ৫ জিলকদ ১৪৩৯
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • চাঁদপুরে স্কুল শিক্ষিকা জয়ন্তীর চাঞ্চল্যকর হত্যার রহস্য উদঘাটন * হত্যাকারী ডিস ব্যবসায়ী লাইনম্যান জামাল ও আনিসুর রহমান আটক
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৩৯-সূরা আয্-যুমার

৭৫ আয়াত, ৮ রুকু, মক্কী

পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।


৫৫। তোমাদের প্রতি অবতীর্ণ উত্তম বিষয়ের অনুসরণ কর তোমাদের কাছে অতর্কিত ও অজ্ঞাতসারে আযাব আসার পূর্বে।

৫৬। যাতে কেউ না বলে, হায় হায়, আল্লাহ সকাশে আমি কর্তব্যে অবহেলা করেছি এবং  আমি ঠাট্টা-বিদ্রুপকারীদের অন্তর্ভূক্ত ছিলাম।

৫৭। অথবা না বলে, আল্লাহ যদি আমাকে পথপ্রদর্শন করতেন, তবে অবশ্যই আমি পরহেযগারদের একজন হতাম।  

দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন





 


শাসন করা তারই সাজে সোহাগ করে যে গো।

 -রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর।


নারী পুরুষের যমজ অর্ধাঙ্গিনী।

 


ফটো গ্যালারি
ডাকাতিয়ার ভাঙনে বিলীনের অপেক্ষায় হাজরা গ্রাম
সোহাঈদ খান জিয়া
১৯ জুলাই, ২০১৮ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+

চাঁদপুর সদর উপজেলার ৮নং বাগাদী ইউনিয়নের হাজরা গ্রামে ডাকাতিয়ার ব্যাপক ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে গ্রামটিকে ডাকাতিয়া নদী গ্রাস করে চলছে। গত কদিন ধরে নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। বর্তমানে যেভাবে ভাঙ্গন শুরু হয়েছে মানুষজন বসতঘর কোনো রকমে সরিয়ে নিতে পারছে। ভাঙ্গনে গ্রামটি যে কোনো মুহূর্তে বিলীন হয়ে যেতে পারে। পূর্বে ডাকাতিয়ার ভাঙ্গনে গ্রামের বহু ফসলি জমি, বসতঘর, রান্নাঘর ও গোয়ালঘর ডাকাতিয়া নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। অনেক পরিবার সহায়-সম্বলহীন হয়ে পড়েছে। বর্তমানে তারা সম্পত্তি হারিয়ে খেয়ে না-খেয়ে কোনো রকম জীবনযাপন করে বেঁচে আছে। ভাঙ্গন রক্ষায় পাউবোকে স্থানীয় সংসদ সদস্য ডাঃ দীপু মনি ইতিমধ্যেই নির্দেশনা দিয়েছেন।

এ ব্যাপারে পাউবো নির্বাহী প্রধান আবু রায়হান বলেন, এ ব্যাপারে এমপি মহোদয়ের নির্দেশনা আছে। আমরা ভাঙ্গন রক্ষার জন্যে ব্যবস্থা নেবো।

ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সদস্য সচিব ইব্রাহীম খলিল লিটন জানান, ভাঙ্গন রোধে সংসদ সদস্য ডাঃ দীপু মনি এমপি অবগত আছেন। পানি উন্নয়ন বোর্ডও অবহিত আছে। পাউবো কর্তৃপক্ষ সরজমিনে ভাঙ্গনকবলিত স্থান দেখে আসলেও এখন পর্যন্ত ব্যবস্থা নেয়নি। এখন ভাঙ্গনের তীব্রতা পূর্বের চেয়ে অনেক বেশি।

স্থানীয় সাহেব বাজারের ব্যবসায়ী রুহল আমিন পাঠান জানান, এ গ্রামটি দীর্ঘদিন ডাকাতিয়ার ভাঙ্গনের শিকার। ভাঙ্গন বন্ধে কাউকে এগিয়ে আসতে দেখা যায়নি।

ইউপি সদস্য মোঃ মুনছুর খান বলেন, হাজরা গ্রামবাসী খেটে খাওয়া মানুষ। গ্রামবাসীর পক্ষে এ ভাঙ্গন প্রতিরোধ করা সম্ভব না। সরকারি সহযোগিতা পেলেই নিরীহ গ্রামবাসী নদী ভাঙ্গন থেকে রক্ষা পাবে।

এই পাতার আরো খবর -
আজকের পাঠকসংখ্যা
২৮১২৬৪
পুরোন সংখ্যা