চাঁদপুর। শনিবার ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮। ৩১ ভাদ্র ১৪২৫। ৪ মহররম ১৪৪০
redcricent
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৪১-সূরা হা-মীম আস্সাজদাহ,

৫৪ আয়াত, ৬ রুকু, মক্কী

পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।

২৯। কাফিররা বলবে : হে আমার প্রতিপালক! যেসব জি¦ন ও মানব আমাদেরকে পথভ্রষ্ট করেছিল তাদের উভয়কে দেখিয়ে দিন, যাতে তারা নি¤œ শ্রেণীর অন্তর্ভুক্ত হয়।

৩০। নিশ্চয়ই যারা বলে : আমাদের প্রতিপালক আল্লাহ, অতঃপর অবিচলিত থাকে, তাদের নিকট অবতীর্ণ হয় ফেরেশ্তা এবং বলে : তোমরা ভীত হয়ো না, চিন্তিত হয়ো না এবং তোমাদেরকে যে জান্নাতের প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়েছিল তার সুসংবাদ পেয়ে আনন্দিত হও।

দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন



 


বন্ধু অপেক্ষা শত্রুকে পাহারা দেওয়া সহজ।

-আলকমেয়ন।




যে ধনী বিখ্যাত হবার জন্য দান করে, সে প্রথমে দোজখে প্রবেশ করবে।



 


ফটো গ্যালারি
৪৫ ফুট উঁচু গাছের চূড়ায় শুয়েছিল এক যুবক চারঘণ্টা পর অজ্ঞান অবস্থায় উদ্ধার
মিজানুর রহমান
১৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


'তোমরা এই গাছটা কাট্ছ না কেন? গাছে আমারে ডাকে' এই কথা স্ত্রীকে বলে সাবি্বর গাজী (২২) নামে এক যুবক রাতের অন্ধকারে শ্বশুর বাড়ির প্রায় ৪৫ ফুট উঁচু একটি রেইন্ট্রি গাছের চূড়ায় উঠে দুই ডালে শুয়ে পড়ে। হতবাক হওয়ার মতো এ খবর পেয়ে পুরাণবাজার ফাঁড়ি পুলিশ ও এলাকার সাহসী লোকজনের সহায়তায় ফায়ার সার্ভিসের একটি দল ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ওই যুবককে ওই গাছের চূড়া থেকে অজ্ঞান অবস্থায় উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্যে হাসপাতালে প্রেরণ করেছে।



১৩ সেপ্টেম্বর রাত সাড়ে নয়টার সময় চাঁদপুর শহরের পুরাণবাজার মধ্য শ্রীরামদীতে চাঞ্চল্যকর এ ঘটনাটি ঘটে। রাত সাড়ে ৯টা থেকে রাত ১২টা ১০ মিনিট পর্যন্ত ওই যুবক গাছের চূড়ায় ডালে শুয়ে ছিলো। ঘটনাটি জানাজানি হলে এলাকার শত শত নারী-পুরুষ সেখানে জড়ো হয়ে ওই যুবককে গাছের উপর শোয়া অবস্থায় স্বচক্ষে দেখেছে। এ সময় উপস্থিত অনেকে আল্লাহকে স্মরণ করে উচ্চস্বরে দোয়া দরুদ পড়েন।



চাঁদপুর বিদ্যুৎ বিভাগের লেডার (মই) যন্ত্রের সাহায্যে দক্ষিণ ফায়ার স্টেশনের ফায়ারম্যান, স্থানীয় জাহিদ, কয়েস ও ফারুকের সহযোগিতায় গাছের উপর শুয়ে থাকা যুবককে জীবিত উদ্ধার করতে সক্ষম হয়। পরে আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে চিকিৎসার জন্যে ঘটনার রাত পৌনে ২টায় চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আহত ছাবি্বর মধ্য শ্রীরামদীর মৃত আবু কালাম গাজীর ছোট ছেলে। প্রত্যক্ষদর্শী অনেকের ধারণা, জ্বীনের আছর বা পেঁচার ডাক শুনে এ ঘটনা ঘটেছে এবং অন্য কোনো দৈব শক্তিতে ওই যুবক গাছে এভাবে শুয়েছিল।



সাবি্বর গাজীর মা জোসনা বেগম জানান, শিশু বয়সে দুই ছেলে সুজন ও সাবি্বরকে রেখে তার স্বামী মারা যান। অনেক কষ্ট করে ছেলেদের বড় করেছেন। ছাবি্বরকে পাশাপাশি এলাকায় ছয় মাস আগে বিয়ে করান। ঈদের আগে সে শ্বশুর বাড়িতে আসে। পেশায় রাজমিস্ত্রির কাজ করত। তার মা আরো জানায়,আগে ছেলের কোনো রোগ ছিল না। কী থেকে এ ঘটনা হলো আল্লাহ জানে।



সাবি্বরের স্ত্রী সীমা জানান, মাগরিবের নামাজের পর থেকে তার স্বামী আবোল-তাবোল কথা বলতেছিল। 'তোদের বাড়ির গাছটা কেটে ফেল, আমারে ডাকে'। এ অবস্থা দেখে ননদ ও বড় ভাই বিল্লালের স্ত্রীকে সাথে নিয়ে সাথী আক্তার তার স্বামী সাবি্বরকে আটকানোর চেষ্টা করে ব্যর্থ হন। কোনো কিছু বুঝে উঠার আগেই বাড়ির রান্না ঘরের উপরে উঠে দ্রুত গাছের উপর ওঠে যায় এবং শার্ট প্যান্ট পরা অবস্থায় গাছের দুই ডালে ভর করে শুয়ে থাকে। এ অবস্থা দেখে আমাদের ডাক চিৎকার শুনে প্রতিবেশীরাসহ আশপাশের লোকজন ছুটে আসে এবং পুলিশ ও ফায়ার স্টেশনে খবর পাঠায়।



পুরাণবাজার পুলিশ ফাঁড়ির ইন্সপেক্টর আঃ রশিদ জানান, 'একজন লোক স্ত্রী ও স্বজনদের সাথে আধ্যাত্মিক কথাবার্তা বলে বাড়ির গাছের উপর উঠে শুয়ে আছে'। এমন ঘটনা লোকজন আমাকে জানালে আমি ফায়ার স্টেশনকে জানাই।



চাঁদপুর দক্ষিণ (পুরাণবাজার) ফায়ার স্টেশনের সিনিয়র স্টেশন অফিসার শহিদুল ইসলাম জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে আমরা দেখি বিপদজনক অবস্থায় অনেক উঁচু একটি গাছের উপর একজন লোক শুয়ে আছে। চাঁদপুর ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট, ফাঁড়ি পুলিশ ও এলাকাবাসীর সহযোগিতায় প্রায় দুই ঘন্টা চেষ্টার পর ওই লোকটিকে জীবিত উদ্ধারে সক্ষম হই।



 


এই পাতার আরো খবর -
আজকের পাঠকসংখ্যা
৫৯৬৫৪৫
পুরোন সংখ্যা