চাঁদপুর। শুক্রবার ৯ নভেম্বর ২০১৮। ২৫ কার্তিক ১৪২৫। ২৯ সফর ১৪৪০
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৪৩-সূরা যূখরুফ


৮৯ আয়াত, ৭ রুকু, মক্কী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


৫২। 'আমি তো শ্রেষ্ঠ এই ব্যক্তি হইতে, যে হীন এবং স্পষ্ট কথা বলিতেও অক্ষম।


৫৩। 'মূসাকে কেন দেওয়া হইল না স্বর্ণ-বলয় অথবা তাহার সঙ্গে কেন আসিল না ফিরিশ্তাগণ দলবদ্ধভাবে?


৫৪। এইভাবে সে তাহার সম্প্রদায়কে হতবুদ্ধি করিয়া দিল, ফলে উহারা তাহার কথা মানিয়া লইল। উহারা তো ছিল এক সত্যত্যাগী সম্প্রদায়।


দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


 


assets/data_files/web

বাণিজ্যই হলো বিভিন্ন জাতির সাম্য সংস্থাপক। -গ্লাডস্টোন।


 


 


যখন কোনো দলের ইমামতি কর, তখন তাদের নামাজকে সহজ কর।


 


 


 


ফটো গ্যালারি
খাল রক্ষায় কি কারো মাথাব্যথা নেই ?
চাঁদপুর শহরের এসবি খাল দিন দিন সরু হয়ে যাচ্ছে
সোহাঈদ খান জিয়া
০৯ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


চাঁদপুর শহরের এসবি খাল দিন দিন দখল হয়ে সরু হয়ে যাচ্ছে। খাল রক্ষায় মনে হয় কারো মাথাব্যথা নেই। এ খালের এক তৃতীয়াংশের মতো দখল হয়ে গেলেও জোরালো ভাবে কেউ খাল উদ্ধার করতে এগিয়ে আসতে দেখা যাচ্ছে না।



দিনের পর দিন খালটি দখলদাররা দখল করে বসতঘর, রান্নাঘর ও দোকান তৈরি করে যাচ্ছে। দখলদারদের হাত থেকে খাল রক্ষাকল্পে দৈনিক চাঁদপুর কণ্ঠসহ স্থানীয় দৈনিকগুলোতে বহু সংবাদ প্রকাশিত হলেও কর্তৃপক্ষের তেমন টনক নড়তে দেখা যায়নি। আর টনক নড়লেও ৩ থেকে ৬ মাসের অ্যাকশন থাকলেও পরবর্তীতে পূর্বের ন্যায় দখলদাররা ব্যস্ত হয়ে পড়ে দখলদারিত্বে। চাঁদপুর শহরের মধ্য দিয়ে বয়ে যাওয়া ঐতিহ্যবাহী এসবি খাল দখলদারদের দখললীলায় তার অস্তিত্ব প্রায় হারিয়ে ফেলেছে। আর এর ভয়াবহ দুর্ভোগের শিকার হতে হচ্ছে চাঁদপুরবাসীকে। খাল দখল করে সরু হয়ে পড়ায় ময়লা আবর্জনা ও পানি নিষ্কাশনে প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি হচ্ছে। যার ফলে শহরের বিভিন্ন পাড়া মহল্লা, গুরুত্বপূর্ণ সড়ক ও মার্কেটের গলিগুলোতে পানি জমে থাকে। এতে জনদুর্ভোগের শিকার হতে হচ্ছে জনসাধারণকে। এসবি খাল দখলদারদের হাত থেকে রক্ষা করতে না পারলে সামান্য বৃষ্টিতেই জনচলাচল ও যানবাহন চলাচল বিপজ্জনক হয়ে পড়বে। বাসা-বাড়ির নিচতলা পানিতে দেবে দুর্ভোগের পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়বে পরিবারগুলো।



গত ৬ নভেম্বর সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, এসবি খালের গোয়ালগো ব্রিজ নামক স্থানের উত্তর পাশে ও কোড়ালিয়া রোডের পূর্ব পাশে ঘোষ পাড়ার ঘোষ বাড়ির সামনে দিয়ে ইতিমধ্যে প্রায় ৪/৫শ' ফুট লম্বায় খালের ভেতর ফাইলিং করে দখল করা হয়েছে। যার ফলে খালটি এ স্থান দিয়ে পূর্বের চেয়ে আরো বেশি সরু হয়ে পড়েছে।



এ ব্যাপারে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ক'জন সচেতন ব্যক্তি বলেন, দিন দিন প্রভাবশালীরা তাদের নিজ ইচ্ছে মতো খাল দখল করে যাচ্ছে। সরকারি খাল রক্ষায় পৌর মেয়র ও প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ একান্ত জরুরি।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৬৮২৮৯
পুরোন সংখ্যা