চাঁদপুা। শনিবার ১০ নভেম্বর ২০১৮। ২৬ কার্তিক ১৪২৫। ১ রবিউল আউয়াল ১৪৪০
redcricent
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • --
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৪৩-সূরা যুখ্রুফ


৮৯ আয়াত, ৭ রুকু,' মক্কী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


৭৩। সেথায় তোমাদের জন্যে রহিয়াছে প্রচুর ফলমূল, তাহা হইতে তোমরা আহার করিবে।


৭৪। নিশ্চয় অপরাধীরা জাহান্নামের শাস্তিতে থাকিবে স্থায়ীভাবে;


৭৫। উহাদের শাস্তি লাঘব করা হইবে না এবং উহারা উহাতে হতাশ হইয়া পড়িবে।


 


 


assets/data_files/web

বীরত্বের নির্যাস হলো আত্মবিশ্বাস। -ইমারসন।


 


 


বিদ্যা শিক্ষার্থীগণ বেহেশতের ফেরেশতাগণ কৃর্তক অভিনন্দিত হবেন।


 


 


 


ফটো গ্যালারি
আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন-২০১৮
চাঁদপুর জেলার ১৮ লক্ষাধিক ভোটারের প্রতিনিধিত্ব কারা করবেন তা নিয়ে চলছে জল্পনা-কল্পনা
এএইচএম আহসান উল্লাহ
১০ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তোড়জোড় শুরু হয়ে গেছে। এ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর পরই চাঁদপুরসহ সারাদেশে ভোট নিয়ে শুরু হয়ে গেছে নানা হিসাব-নিকাশ। আওয়ামী লীগ নির্বাচনের প্রস্তুতি নিয়ে মাঠে সরব থাকলেও বিএনপি আন্দোলন ও নির্বাচন দুটোই মাথায় নিয়ে এগুচ্ছে। আওয়ামী লীগের হয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার লক্ষ্যে দলীয় মনোনয়ন ফরম বিক্রি গতকাল থেকে শুরু হয়ে গেছে। এ দিক দিয়ে অবশ্য বিএনপি অনেকটা পিছিয়ে। অনেক আসনে তাদের এখনো বলতে গেলে প্রার্থী সঙ্কট চলছে। এর মধ্যে চাঁদপুর জেলারও কয়েকটি আসনে এমন নাজুক অবস্থায় আছে বিএনপি।



আগামী ২৩ ডিসেম্বর রোববার একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ। ১৯ নভেম্বর সোমবার হচ্ছে মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার শেষদিন। চাঁদপুর জেলায় এবার সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী মোট ভোটার হচ্ছে ১৮ লাখ ৫ হাজার ৯শ' ২৬ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৯ লাখ ১৬ হাজার ৪শ' ৭৩জন, আর নারী ভোটার ৮ লাখ ৮৯ হাজার ৪শ' ৫৩ জন। এই ১৮ লক্ষাধিক ভোটারের প্রতিনিধিত্ব জাতীয় সংসদে কারা করবেন তা নিয়ে এখন চলছে সর্বমহলে জল্পনা-কল্পনা। আওয়ামী লীগ এবং বিএনপি এ দুটি বৃহৎ দলের মনোনয়ন সর্বশেষ কারা পাচ্ছেন তা নিয়েও চলছে সর্বমহলে নানা জল্পনা-কল্পনা।



২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চাঁদপুরের পাঁচটি আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হলেও ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয়েছে সবগুলো আসনেই। বিশেষ করে বড় দুটি দল আওয়ামী লীগ-বিএনপির প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয়েছে হাড্ডাহাড্ডি। এবারো নির্বাচন প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণই হবে, এমনটাই ধারণা করছেন জনগণ।



চাঁদপুরের পাঁচটি আসনের কয়েকটিতেই এবার বিএনপির প্রার্থী পরিবর্তন হওয়ার (২০০৮ সালে যারা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন) সম্ভাবনা থাকলেও আওয়ামী লীগে এ সম্ভাবনা অনেকটা ক্ষীণ। বিএনপির এবার প্রার্থী হিসেবে পাঁচটি আসনের মধ্যে ২/১টি ছাড়া অন্যগুলোতে নতুন মুখ আসারই সম্ভাবনা বেশি। আর আওয়ামী লীগে প্রার্থী পরিবর্তনের সম্ভাবনা অনেকটাই কম। অর্থাৎ বর্তমান এমপিরাই আবার দলীয় মনোনয়ন পাচ্ছেন এমনই শোনা যাচ্ছে। তারপরও কিছুটা ঝুঁকিতে আছে চাঁদপুর-১ (কচুয়া), চাঁদপুর-২ (মতলব উত্তর ও মতলব দক্ষিণ) এবং চাঁদপুর-৪ (ফরিদগঞ্জ) আসন। শেষ পর্যন্ত এ তিনটি আসনে হয়ত চমক আসতে পারে অর্থাৎ দলীয় প্রার্থী হিসেবে নতুন মুখ আসতে পারেন এমনটাই অনেকে ধারণা করছেন। তবে অন্য আসনেও যে চমক থাকবে না সেটাও নিশ্চিত করে বলা মুশকিল। তবে এর জন্যে চূড়ান্ত অপেক্ষা করতে হবে ১৮ এবং ১৯ নভেম্বর পর্যন্ত।



 



 


এই পাতার আরো খবর -
আজকের পাঠকসংখ্যা
৪৯৬০৯২
পুরোন সংখ্যা