ঢাকা। রোববার ১৩ জানুয়ারি ২০১৯। ৩০ পৌষ ১৪২৫। ৬ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪০
redcricent
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৪৫-সূরা জাছিয়া :

৩৭ আয়াত, ৪ রুকু, মক্কী

২৯। এই আমার লিপি, ইহা তোমাদের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিবে সত্যভাবে। তোমরা যাহা করিতে তাহা আমি লিপিবদ্ধ করিয়াছিলাম।

৩০। যাহারা ঈমান আনে ও সৎকর্ম করে, তাহাদের প্রতিপালক তাহাদিগকে দাখিল করিবেন স্বীয় রহমতে। ইহাই মহাসাফল্য

 


assets/data_files/web

প্রতিভাবান ব্যক্তিরাই ধৈর্য ধারণ করতে পারে। -ই. সি. স্টেডম্যান।


সেই ব্যক্তি শ্রেষ্ঠ মর্যাদার অধিকারী যে স্বল্পাহারে সন্তুষ্ট থাকে, অল্প হাসে এবং লজ্জাস্থান ঢাকিবার উপযোগী বস্ত্রে পরিতুষ্ট।


 


 


ফটো গ্যালারি
অপহরণকারী গ্রেফতার
পুলিশের চেষ্টায় নাবালিকা মেয়েকে ফিরে পেয়েছে পিতা
স্টাফ রিপোর্টার
১৩ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


চাঁদপুর সদর মডেল থানার এসআই পলাশ বড়ুয়ার আপ্রাণ চেষ্টায় উদ্ধার হওয়া অপহৃত মেয়েকে ফিরে পেয়েছে পিতা। গতকাল ১২ জানুয়ারি শনিবার সকালে চাঁদপুর সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জাহেদ পারভেজ চৌধুরী সাংবাদিকদের দেয়া এক সাক্ষাৎকারে বিষয়টি নিশ্চিত করেন।



তিনি বলেন, গত বছরের ২৩ সেপ্টেম্বর পুরাণবাজার থেকে মাত্র ১৫ বছর বয়সী এক নাবালিকা স্কুল ছাত্রীকে অপহরণ করা হয়। পরে জানা যায় ওই স্কুল ছাত্রীকে অপু সাহা (৩২)সহ কয়েকজন মিলে অপহরণ করে। সে ঘটনায় অপহৃত স্কুল ছাত্রীর বাবা অসহায় অবস্থায় পুলিশের দারস্থ হন। পরে সে ঘটনায় মেয়েটির বাবা অপু সাহাকে প্রধান আসামী করে এবং অজ্ঞাতনামা আরো কয়েকজনকে আসামী করে ২৬ সেপ্টেম্বর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে চাঁদপুর সদর মডেল থানায় মামলা করেন। যার মামলা নং-৭৬। তিনি আরো জানান, এ মামলার ভিকটিম উদ্ধার ও আসামী গ্রেফতারের তদন্তভার তখন দেয়া হয় এসআই পলাশ বড়ুয়াকে। এরপর সে সঙ্গীয় ফোর্সসহ তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে বিভিন্ন স্থান থেকে ঘটনার সাথে জড়িত ২ জনকে আটক করে। পরে আটককৃতদের দেয়া তথ্যে সে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর থানার শ্যামনগর গ্রামে যায়। সেখান হতে ওই নাবালিকা স্কুল ছাত্রীকে উদ্ধার ও অপহরণ মামলার প্রধান আসামী অপু সাহাকেও গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়। তিনি আরো জানান, আসামী অপুর বাবা অজিত সাহা একজন পান ব্যবসায়ী। অপু বেকার অবস্থায় পুরাণবাজারে তার মামার বাড়িতে থাকতো। তিনি আরো জানান, আটক হওয়া আসামী অপুর সহযোগী দিনেশ সাহা ও খোকন সাহা ২ মাস জেল খাটার পর বর্তমানে জামিনে আছে।



এদিকে ওই স্কুল ছাত্রীর অসহায় বাবা সাংবাদিকদের জানান, আমার মেয়েকে যে পুলিশ উদ্ধার করতে পারবে, এ ব্যপারে আমার পুলিশের উপর পুরো আস্থা ও বিশ্বাস ছিলো। আজ পুলিশ তার দায়িত্ব পালন করে আমার মেয়েকে আমাদের নিকট ফিরিয়ে দেয়ায় আমি পুলিশ প্রশাসনের প্রতি কৃতজ্ঞ।



এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন চাঁদপুর সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ নাসিম উদ্দিন, পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মোঃ হারুনুর রশিদ, অপহরণ মামলার তদন্তকারী অফিসার এসআই পলাশ বড়ুয়া প্রমুখ।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৭৩২০৬২
পুরোন সংখ্যা