চাঁদপুর, সোমবার ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ২৯ মাঘ ১৪২৫, ৫ জমাদিউস সানি ১৪৪০
redcricent
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৪৯-সূরা হুজুরাত


১৮ আয়াত, ২ রুকু, 'মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


৪। যাহারা ঘরের বাহির হইতে তোমাকে উচ্চস্বরে ডাকে, তাহাদের অধিকাংশই নির্বোধ,


৫। তুমি বাহির হইয়া উহাদের নিকট আসা পর্যন্ত যদি উহারা ধৈর্য ধারণ করিত, তাহাই উহাদের জন্য উত্তম হইত। আল্লাহ ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু।


 


 


assets/data_files/web

কোনো বড় কাজই উৎসাহ ছাড়া লাভ হয়নি। -ইমারসন।


 


 


 


নিঃসন্দেহে তিন প্রকার লোকের দোয়া কবুল হয়-পিতার দোয়া, মোসাফিরের দোয়া এবং অত্যাচারিত ব্যক্তির দোয়া।


 


 


ফটো গ্যালারি
মতলব দক্ষিণে চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন ফরম জমা দিলেন মোঃ ইমামুল হক
১১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


মতলব দক্ষিণ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ঢাকায় আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে গত ৭ ফেব্রুয়ারি দলীয় মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ মতলব ডিগ্রি কলেজ শাখার সাবেক সভাপতি মোঃ ইমামুল হক। তিনি জানান, আমার বিশ্বাস আমি মনোনয়ন পাবো। আমার রাজনৈতিক কর্মকা- মূল্যায়ন করা হলে আমি মনোনয়ন পাবো ইনশাআল্লাহ। মোঃ ইমামুল হকের শিক্ষাগত যোগ্যতা স্নাতক। তার পিতা মৃত মোঃ ইদ্রিস আলী প্রধানীয়া, মাতা : মৃত সরুফা খাতুন, গ্রাম : উপাদী পোঃ বোয়ালিয়া, উপজেলা : মতলব দক্ষিণ, জেলা চাঁদপুর।



মোঃ ইমামুল হক ১৯৮৬ সাল থেকে এরশাদ বিরোধী আন্দোলন এবং ১৯৯৬ সালে খালেদা সরকারের প্রহসন নির্বাচন বিরোধী আন্দোলনে অংশ নেন। তিনি ১৯৯১ থেকে ১৯৯৩ সাল পর্যন্ত মতলব ডিগ্রি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি ছিলেন। ১৯৯৩ সালে মতলব কলেজ ছাত্র সংসদ নির্বাচনে ভিপি পদে নির্বাচন করেন। ঐ বছর প্রথম ছাত্রলীগ এককভাবে কলেজ সংসদ নির্বাচনে বিজয়ী হয়। ১৯৯৩ সালে তৎকালীন বিরোধী দলীয় নেত্রী বর্তমান প্রধামন্ত্রীর বাসায় তাকে সংবর্ধনা দেয়া হয়। ১৯৯১-১৯৯৫ সালে মতলব থানা এবং চাঁদপুর জেলা ছাত্রলীগের সদস্য ছিলেন। তিনি এনামুল হক শামীম এবং ইসহাক আলী খান পান্নার কেন্দ্রীয় কাউন্সিলর ছিলেন। অস্ট্রেলিয়ায় অবস্থিত প্রথম বাংলাদেশী ইসলামিক সেন্টার-এর ২০১৩ সাল থেকে বর্তমান পর্যন্ত সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। ২০১৪-২০১৬ সাল পর্যন্ত অস্ট্রেলিয়া বিজনেস কাউন্সিলর মেম্বার এসইএফফি ছিলেন। তিনি মুক্তিযোদ্ধা সংসদের অ্যাসোসিয়েট মেম্বার অস্ট্রেলিয়া, অস্ট্রেলিয়ার টেঙ্ িমালিক ও ড্রাইভার সমিতির মিডিয়া ম্যানেজার ছিলেন (২০১৫-২০১৬ সাল পর্যন্ত), ২০১৯-২০১০ সাল পর্যন্ত অস্ট্রেলিয়া আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয় সম্পাদক ছিলেন। তিনি সর্বদায় আওয়ামী রাজনীতির সাথে সম্পৃৃক্ত ছিলেন। মতলব দক্ষিণে বিভিন্ন স্কুল, মাদ্রাসা ও মসজিদসহ অন্যান্য অনেক ক্ষেত্রে সহযোগিতা অব্যাহত রেখেছেন, বর্তমানে অস্ট্রেলিয়া আওয়ামী লীগ কমিটির নির্বাচিত মেম্বার। তার বড় ভাই আলহাজ্ব মোঃ সিরাজুল হক প্রধান, মতলব দক্ষিণে স্কুল, মাদ্রাসা, মসজিদসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে বড় রকমের অনুদান দিয়ে আসছেন। তার অপর ভাই মোঃ সামছুল হক প্রধান ২০০১ সাল থেকে অদ্যাবধি ৭নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। তিনি একজন আওয়ামী লীগের একনিষ্ঠ কর্মী। অপর ভাই আলহাজ্ব মোঃ ফজলুল হক প্রধান এক সময় ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন। তিনি মতলব দক্ষিণ থানার সামাজিক, রাজনৈতিক বিভিন্ন কর্মকা-ে জড়িত রয়েছেন। ১৯৮৮ এবং ১৯৯৮ সালের বন্যায় তারা দুই ভাই ব্যক্তিগত উদ্যোগে লক্ষ লক্ষ টাকার মালামাল দিয়ে মানুষকে সহযোগিতা করেছেন।



তার বড় মামা আলহাজ্ব এমএ ছামাদ সোনালী, রূপালী, জনতা ব্যাংকের জিএম হিসেবে কাজ করেছেন। তিনি অনেক লোককে চাকুরি দিয়ে সহযোগিতা করেছেন। তার আরেকটি পরিচয় আটরশি (বিশ্ব জাকের মঞ্জিলের) পীর সাহেবের বেয়াই। তার দুই কন্যা হুজুরের দুই সাহাজাদা বিয়ে করেছেন। অপর মোঃ বাদশা মিয়া সোনালী ব্যাংকে ডিজিএম হিসেবে চাকুরি করেছেন। তিনিও অনেক লোককে চাকুরি দিয়ে সহযোগিতা করেছেন এবং সামাজিকভাবে তিনিও চাঁদপুর ও মতলবে অনেক সু-পরিচিত।



উল্লেখ্য, তার বড় বাবা মৃত রোজা গাজী প্রধানীয়া স্কুল, মাদ্রাসা, মসজিদ, ঈদগাহে একসাথে কমপক্ষে ৩০ বিঘা জমি দান করেছেন। শুধু তাই নয়, তখনকার সময় যাদের কোনো ভূমি ছিল না ২০০ বিঘা জমি বিভিন্ন ভূমিহীনদের মাঝে বিনা পয়সায় দান করেছেন। বর্তমানে তারাও সে পদাঙ্ক অনুসরণ করে মসজিদ, মাদ্রাসা, ঈদগাহ এবং সরকারি বর্তমান কমিউনিটি ক্লিনিকের (হাসপাতালের) জন্যে জায়গা প্রদান করেন। তাদের তিন পুরুষের মধ্যে রাজনৈতিক এবং সামাজিকভাবে এমনকি অর্থনৈতিকভাবে কালিমা নেই।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
১৬১৫৭৮
পুরোন সংখ্যা