চাঁদপুর, বৃহস্পতিবার ১৬ মে ২০১৯, ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ১০ রমজান ১৪৪০
jibon dip
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫৩-সূরা নাজম


৬২ আয়াত, ৩ রুকু, মক্কী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


৩৩। তুমি কি দেখিয়াছ সেই ব্যক্তিকে যে মুখ ফিরাইয়া লয় ;


৩৪। এবং দান করে সামান্যই, পরে বন্ধ করিয়া দেয়?


৩৫। তাহার কি অদৃশ্যের জ্ঞান আছে যে, সে প্রত্যক্ষ করে?


 


 


assets/data_files/web

মনের যাতনা দেহের যাতনার চেয়ে বেশি। -উইলিয়াম হ্যাজলিট।


 


বিদ্যা শিক্ষার্থীগণ বেহেশতের ফেরেশতাগণ কর্তৃক অভিনন্দিত হবেন।


 


 


ফটো গ্যালারি
কলকাতার বিশিষ্ট সাংবাদিক দোয়েল দত্ত'র বইয়ের মোড়ক উন্মোচন
'পিতৃভূমিতে নিজের লেখা বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করার অনুভূতিটাই আলাদা
বইটি যে কোনো পাঠককে আকৃষ্ট করবে : সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ
চাঁদপুর কণ্ঠ রিপোর্ট
১৬ মে, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


নিজের জন্ম ভারতের কলকাতা শহরে হলেও পিতৃভূমি বাংলাদেশে। শুধু বাংলাদেশেই নয়, চাঁদপুরে। জন্মের পর বেড়ে ওঠা, পড়াশোনা, কর্ম ও সংসারজীবন সবই কলকাতায়। পেশায় সাংবাদিকতা এবং লেখক। লেখালেখির জীবনে প্রথম বই প্রকাশ। আর প্রথম প্রকাশিত বইটির মোড়ক উন্মোচনের জন্যে নিজের পিতৃভূমিকে বেছে নিয়ে পিতৃত্বকে সম্মানিত করলেন 'দোয়েল দত্ত'।



ফরিদগঞ্জের দেইচর গ্রামের দুলাল চন্দ্র দত্ত'র কন্যা দোয়েল দত্তের দুজন চিকিৎসা বিজ্ঞানীকে নিয়ে লেখা বইয়ের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠান হয়েছে গতকাল বুধবার চাঁদপুর প্রেসক্লাবে। দোয়েল দত্তের কাকাতো ভাই চাঁদপুর শহরের কুমিল্লা রোডস্থ নিতুন ইলেক্ট্রনিঙ্রে স্বত্বাধিকারী নিতুন চক্রবর্তীর মাধ্যমেই মূলত চাঁদপুর প্রেসক্লাবে তার প্রথম বইয়ের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানের আয়োজন।



চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি শহীদ পাটোয়ারীর সভাপ্রধানে ও সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে পরিচিতি পর্বের পর লেখক দোয়েল দত্ত ও সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করেন। বইটি লেখা হয়েছে টেস্টটিউব বেবীর উদ্ভাবক ডাঃ সুভাষ মুখোপাধ্যায় ও কালাজ্বরের প্রতিষেধকের স্রষ্টা ডাঃ উপেন্দ্রনাথ ব্রহ্মচারীকে নিয়ে। এ দুজন চিকিৎসা বিজ্ঞানী এখন বলতে গেলে বিস্মৃতপ্রায়। তাঁদেরকে এ প্রজন্মের কাছে তুলে ধরার প্রয়াসেই দোয়েল দত্তের এই প্রকাশনা।



বইয়ের মোড়ক উন্মোচনের পর সংক্ষিপ্ত প্রতিক্রিয়ায় সাংবাদিক ও লেখিকা দোয়েল দত্ত বলেন, পিতৃভূমিতে নিজের লেখা বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করার অনুভূতিটাই আলাদা। আমার ভীষণ ভালো লাগছে। আমি কলকাতার 'আনন্দবাজার', 'সকালবেলা'সহ বেশ কয়েকটি প্রথম সারির সংবাদপত্রে সাংবাদিকতা করেছি। বর্তমানে 'যুগশঙ্খ' পত্রিকার ফিচার বিভাগের ডেপুটি এডিটর। সেই মহান পেশার তথা সাংবাদিকতা পেশার ভাইদের সাথে আজ চাঁদপুর প্রেসক্লাবে একত্রিত হয়ে সে ভাইদের দ্বারা আমার লেখা প্রথম বইটির আজ মোড়ক উন্মোচন হলো। এটি আমার জন্যে খুবই আনন্দের, খুবই গর্বের। আজকের দিনের স্মৃতিটি আমার মধ্যে আজীবন জাগ্রত থাকবে। সকলের আশীর্বাদ প্রত্যাশা করছি।



সংক্ষিপ্ত প্রতিক্রিয়াস্বরূপ বক্তব্যে সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ বলেন, আমাদের মাঝ থেকে বিস্মৃত প্রায় দুজন চিকিৎসা বিজ্ঞানীকে নিয়ে বই লেখাটা আমরা মনে করি সমকালীন দাবি। সময়ের দাবি পূরণ হলো। অল্প সময়ের মধ্যে বইটি আমরা যতটুকু দেখলাম তাতে আমাদের অনুভূতি হচ্ছে-যে কোনো পাঠককে বইটি আকৃষ্ট করবে। আমরা মনে করি বইটি শুধুমাত্র কাউকে স্মরণ করার জন্যে নয়, চিকিৎসা বিজ্ঞানের উৎকর্ষ সাধনে এ বইটি ভূমিকা রাখতে পারে। আমরা আমাদের বোন দোয়েল দত্তকে অনুরোধ করবো, চাঁদপুরের যারা প্রথিতযশা সাংবাদিক, সাহিত্যিক যাঁরা কলকাতাবাসী (যেমন সাগয়ময় ঘোষ), তাঁদের নিয়ে যেনো তিনি লিখেন। কারণ তারাও প্রজন্মের কাছ থেকে হারিয়ে যেতে বসেছেন।



অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি কাজী শাহাদাত, গোলাম কিবরিয়া জীবন, ইকবাল হোসেন পাটওয়ারী, বিএম হান্নান, শরীফ চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক লক্ষ্মণ চন্দ্র সূত্রধর, সাবেক সাধারণ সম্পাদক গিয়াসউদ্দিন মিলন, মির্জা জাকির ও সোহেল রুশদী। অনুষ্ঠানে আরো বিভিন্ন পর্যায়ের সাংবাদিক ও লেখকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
১৭০৬৭৫
পুরোন সংখ্যা