চাঁদপুর, বুধবার ২২ মে ২০১৯, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ১৬ রমজান ১৪৪০
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫০-সূরা কাফ্

৪৫ আয়াত, ৩ রুকু, মক্কী

পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।

৩৬। আমি তাহাদের পূর্বে আরও কত মানবগোষ্ঠীকে ধ্বংস করিয়াছি যাহারা ছিল উহাদের অপেক্ষা শক্তিতে প্রবল, উহারা দেশে দেশে ঘুরিয়া বেড়াইত; উহাদের কোনো পলায়নস্থল রহিল কি?

৩৭। ইহাতে উপদেশ রহিয়াছে তাহার জন্য যাহার আছে অন্তঃকরণ অথবা যে শ্রবণ করে নিবিষ্ট চিত্তে।


assets/data_files/web

অপ্রয়োজনে প্রকৃতি কিছুই সৃষ্টি করে না। -শংকর।


 


 


কবর এবং গোসলখানা ব্যতীত সমগ্র দুনিয়াই নামাজের স্থান।


 


 


 


ফটো গ্যালারি
ফরিদগঞ্জে নিজ গায়ে আগুন দিয়ে নববধূর আত্মহনন
প্রবীর চক্রবর্তী
২২ মে, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


মাত্র একমাস তিনদিন পূর্বে বিয়ের পিঁড়িতে বসা তাহমিনা আক্তার (২২) স্বামীর সাথে ঝগড়া করে নিজের গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন দিয়ে আত্মহনন করলো। ফরিদগঞ্জ উপজেলার পাইকপাড়া দক্ষিণ ইউনিয়নের জামালপুর গ্রামে সোমবার রাতে এ ঘটনা ঘটে। মর্মান্তিক এ ঘটনা জেনে চাঁদপুরের ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার মোঃ মিজানুর রহমান ঘটনাস্থলে ছুটে এসেছেন। পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্যে তাহমিনার স্বামী দ্বীন ইসলামকে আটক করলেও পরবর্তীতে তাকে শ্বশুরের জিম্মায় ছেড়ে দেয়া হবে বলে পুলিশ জানায়।



জানা গেছে, উপজেলার পাইকপাড়া দক্ষিণ ইউনিয়নের জামালপুর গ্রামের বদরুদ আলী আমিন বাড়ির মৃত আঃ লতিফের ছেলে দ্বীন ইসলামের সাথে পাইকপাড়া উত্তর ইউনিয়নের নোয়াপাড়া গ্রামের কামাল হোসেনের বড় মেয়ে তাহমিনা আক্তারের একমাস তিনদিন পূর্বে ইসলামী শরীয়াহ মোতাবেক পারিবারিক সম্মতিতে বিয়ে হয়। গত ২০ মে সোমবার সন্ধ্যায় পারিবারিক বিষয় নিয়ে তাহমিনার সাথে স্বামী দ্বীন ইসলামের কলহ হয়। এ ঘটনার জের ধরে তাহমিনা নিজ গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন দেয়। পরে আশপাশের লোকজন তাকে উদ্ধার করে প্রথমে ফরিদগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেঙ্ েও পরে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে এবং সর্বশেষ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে অ্যাম্বুলেন্সযোগে নেয়ার পথে দাউদকান্দি এলাকায় তার মৃত্যু হয়।



তাহমিনার বাবা কামাল হোসেন জানান, সোমবার রাতে তিনি মেয়ে অগি্নদগ্ধ হওয়ার কথা শুনে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে যান। তখন তাহমিনা নিজের গায়ে নিজে আগুন দিয়েছে বলে তাকে জানায়। কামাল হোসেন আরো জানান, তার মেয়ের মানসিক সমস্যা রয়েছে। তাকে নিয়মিত ঔষধ খাওয়াতে হয়। স্বামীর বাড়িতে থাকার কারণে সে ঔষধ খেতে পারেনি।



এদিকে গতকাল মঙ্গলবার সকালে তাহমিনার লাশ দাফনের প্রস্তুতি নেয়ার সময়ে স্থানীয় গ্রামপুলিশ আনোয়ার হোসেন বিষয়টি পুলিশী কেইস বলে থানা পুলিশকে অবহিত করে। পরে সংবাদ পেয়ে থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে। গ্রামপুলিশ পুলিশকে জানানোর কারণে স্থানীয় একদল লোক তাকে মারধর করেছে বলে তিনি থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন।



এ ব্যাপারে ফরিদগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ আবদুর রকিব জানান, তাহমিনার বাবা কামাল হোসেন থানায় অপমৃত্যু মামলা দায়ের করেছেন। লাশ পোস্টমর্টেমের জন্যে চাঁদপুর পাঠানো হয়েছে।



এদিকে ঘটনার সংবাদ পেয়ে চাঁদপুরের ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান, এএসপি (সার্কেল হাজীগঞ্জ) আফজাল হোসেন ও ফরিদগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ আঃ রকিব, পরিদর্শক (তদন্ত) অহিদুল ইসলাম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। পরে ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার দুপুরে থানায় ঘটনার বিষয়ে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন। তিনি জানান, আপাতদৃষ্টিতে মেয়েটি মানসিক রোগী এবং নিজ গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন দিয়েছে বলে জানা গেলেও পুলিশ তদন্ত অব্যাহত রাখবে। পোস্টমর্টেম রিপোর্ট এবং তদন্তে নূতন কিছু পেলে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৫০৪৮৩৮
পুরোন সংখ্যা