চাঁদপুর, বুধবার ১২ জুন ২০১৯, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ৮ শাওয়াল ১৪৪০
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫৭-সূরা হাদীদ


২৯ আয়াত, ৪ রুকু, মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


 


 


০৩। তিনিই আদি, তিনিই অন্ত; তিনিই ব্যক্ত ও তিনিই গুপ্ত এবং তিনি সর্ববিষয়ে সম্যক অবহিত।


৪। তিনিই ছয় দিবসে আকাশম-লী ও পৃথিবী সৃষ্টি করিয়াছেন; অতঃপর 'আরশে সমাসীন হইয়াছেন। তিনি জানেন যাহা কিছু ভূমিতে প্রবেশ করে ও যাহা কিছু উহা হইতে বাহির হয় এবং আকাশ হইতে যাহা কিছু নামে ও আকাশে যাহা কিছু উত্থিত হয়। তোমরা যেখানেই থাক না কেনো_তিনি তোমাদের সঙ্গে আছেন, তোমরা যাহা কিছু করো আল্লাহ তাহা দেখেন।


 


assets/data_files/web

সংশয় যেখানে থাকে সফলতা সেখানে ধীর পদক্ষেপে আসে।


-জন রে।


 


 


যে ব্যক্তি উদর পূর্তি করিয়া আহার করে, বেহেশতের দিকে তাহার জন্য পথ উন্মুক্ত হয় না।


 


যে শিক্ষা গ্রহণ করে তার মৃত্যু নেই।


 


ফটো গ্যালারি
কচুয়া সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়
শিক্ষক সঙ্কটে মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে পাঠদান কার্যক্রম
মোহাম্মদ মহিউদ্দিন
১২ জুন, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+

কচুয়া সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষক সঙ্কটের কারণে মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে শিক্ষার্থীদের পাঠদান। স্টাফ প্যাটার্ন অনুযায়ী শিক্ষকের পদ সংখ্যা ১৬। কিন্তু কর্মরত আছেন ১০ জন মাত্র। সামাজিক বিজ্ঞানের শিক্ষক রিয়াজ হোসেন খান বছরপূর্বে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন নিয়ে উচ্চশিক্ষা গ্রহণের জন্যে চীন চলে গেছেন। গত ৭ মে ভূগোলের শিক্ষক আব্দুল আউয়াল ও ইংরেজি শিক্ষক আবুল কাশেম বদলি হয়েছেন। পরবর্তীতে ২৬ মে স্ট্যান্ড রিলিজ হয়েছেন ইংরেজি শিক্ষক মনির হোসেন ও গণিতের শিক্ষক আবু হেনা মোস্তফা (ইকবাল)। গত ২৬ মের এ স্ট্যান্ড রিলিজ যেনো মরার উপর খাড়ার ঘা।

বর্তমানে স্কুলে সামাজিক বিজ্ঞানের কোনো শিক্ষক নেই। ইংরেজি ও গণিতে একজন করে শিক্ষক আছেন। শিক্ষক সঙ্কটের কারণে শিক্ষার্থীদের পড়াশোনায় চরম ব্যাঘাত ঘটায় অভিভাবকরা উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন। এছাড়া ২০১৮ সালের জুলাই মাসে এ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বদলি হয়ে হয়ে যান। একই মাসে সহকারী প্রধান শিক্ষক মৃত্যুবরণ করেন। এরপর উক্ত প্রধান শিক্ষক ও সহকারী প্রধান শিক্ষক পদে অদ্যাবধি কেউ যোগদান না করায় বিদ্যালয়ের পরিচালনা ও প্রশাসনিক কার্যক্রম ব্যাহত হয়ে আসছে।

এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের বর্তমান ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক কলিম উল্যাহ জানান, বিদ্যালয়ের ছাত্র সংখ্যা ৬ শতাধিক। অষ্টম, নবম ও দশম শ্রেণিতে শাখা রয়েছে। শিক্ষক স্বল্পতার কারণে সুুষ্ঠুভাবে ক্লাস পরিচালনা করা সম্ভব হয়ে উঠছে না। শীঘ্রই শিক্ষক সঙ্কট দূর করা না হলে শিক্ষার্থীদের পাঠদানে চরম বিপর্যয় নেমে আসবে। এছাড়া বিদ্যালয়ের দীর্ঘদিনের সুনাম-সুখ্যাতিও মারাত্মকভাবে ব্যাহত হবে।

আজকের পাঠকসংখ্যা
৬৪৩৩৭৪
পুরোন সংখ্যা