চাঁদপুর, শুক্রবার ১২ জুলাই ২০১৯, ২৮ আষাঢ় ১৪২৬, ৮ জিলকদ ১৪৪০
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • অনিবার্য কারণে শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনির আজকের চাঁদপুর সফর স্থগিত করা হয়েছে
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫৩-সূরা নাজম


৬২ আয়াত, ৩ রুকু, মক্কী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


 


assets/data_files/web

মর্যাদা রক্ষার ব্যাপারে আমি নিজের অভিভাবক। -নিকেলাস রান্ড।


 


 


যদি মানুষের ধৈর্য থাকে তবে সে অবশ্য সৌভাগ্যশালী হয়।


 


 


 


ফটো গ্যালারি
ফরিদগঞ্জে ছেলেধরা সন্দেহে মানসিক প্রতিবন্ধীকে গণপিটুনির অভিযোগে আটক ৫
ফরিদগঞ্জ ব্যুরো
১২ জুলাই, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


ফরিদগঞ্জে ছেলেধরা সন্দেহে মাহমুদা বেগম (৬০) নামে এক মানসিক প্রতিবন্ধী নারীকে গণপিটুনির অভিযোগে থানা পুলিশ ৫ জনকে আটক করেছে। উপজেলার গুপ্টি পূর্ব ইউনিয়নের নারকেলতলা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। আটককৃতরা হলো সুমন (২৮), জলিল (৫০), ইউছুফ (৩০), ইব্রাহীম (২৮) ও জসিম (২০)। বৃদ্ধা জুলেখা বেগম চাঁদপুর সদর উপজেলার পশ্চিম সকদি গ্রামের বিল্লাল মুন্সীর স্ত্রী।



জানা গেছে, বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলার গুপ্টি পূর্ব ইউনিয়নের নারকেলতলা গ্রামের নোয়া বাড়ির সামনে বৃদ্ধাকে দেখে বাড়ির লোকজনের ডাকচিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে আসে। এক পর্যায়ে তাকে লোকজন বেঁধে রাস্তা দিয়ে নিয়ে যেতে যেতে গণপিটুনি দেয়। গণপিটুনির এক পর্যায়ে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল গণি বাবুল পাটওয়ারীসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিরা বৃদ্ধাকে উদ্ধার করে। পরে তার কাছে থাকা জিনিসপত্র খুঁজে তার পরিচয় নিশ্চিত হয়।



গণপিটুনির ঘটনাটি পরবর্তীতে ভিডিও করে ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে তা ভাইরাল হয়ে যায়। পরে থানা পুলিশ ঘটনার সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে বৃদ্ধাকে উদ্ধার করে। একই সাথে ভাইরাল হওয়া ভিডিওটি দেখে পুলিশ গণপিটুনিতে অংশ নেয়া ৫ জন যথাক্রমে সুমন (২৮), জলিল (৫০), ইউছুফ (৩০), ইব্রাহীম (২৮) ও জসিম (২০)কে আটক করে।



বৃদ্ধা জুলেখা বেগমের ছেলে মাহফুজ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ফরিদগঞ্জ থানায় উপস্থিত হয়ে মাহমুদা বেগম তার মা নিশ্চিত করেন। তিনি জানায়, ২০০৫ সালে তার এক ছোট বোন নিখোঁজের পর থেকে তার মা মানসিক প্রতিবন্ধিত্বের শিকার হন। গত দুদিন পূর্বে তিনি বাড়ি থেকে নিখোঁজ হন। গণপিটুনির ঘটনায় বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছেন।



এ ব্যাপারে ফরিদগঞ্জ থানার এসআই নাছির উদ্দিন জানান, উদ্ধারকৃত বৃদ্ধাকে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। ভিডিও দেখে গণপিটুনি প্রদানকারী ৫ জনকে আটক করা হয়েছে। বাকিদের শনাক্ত করার চেষ্টা চলছে।



ফরিদগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) অহিদুল ইসলাম জানান, ছেলেধরা সন্দেহে এভাবে গণপিটুনি দিয়ে আইন হাতে তুলে নেয়া অপরাধ। নারকেলতলার ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।



 



 


এই পাতার আরো খবর -
আজকের পাঠকসংখ্যা
১৪৯৭৩৫
পুরোন সংখ্যা