চাঁদপুর, মঙ্গলবার ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২৬ ভাদ্র ১৪২৬, ১০ মহররম ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • চাঁদপুর সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়কসহ আরো ৯ জনের করোনা শনাক্ত, মোট আক্রান্ত ২১৯
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৬৯-সূরা হাক্‌কা :


৫২ আয়াত, ২ রুকু, মক্কী


২৭। 'হায়! আমার মৃত্যুই যদি আমার শেষ হইত!


২৮। 'আমার ধন-সম্পদ আমার কোন কাজেই আসিল না।


২৯। 'আমার ক্ষমতাও বিনষ্ট হইয়াছে।'


 


 


assets/data_files/web

শ্রেষ্ঠ বইগুলি হচ্ছে শ্রেষ্ঠ বন্ধু।


-লর্ড চেস্টারফিল্ড।


 


 


 


 


নম্রতায় মানুষের সৌন্দর্য বৃদ্ধি পায় আর কড়া মেজাজ হলো আয়াসের বস্তু অর্থাৎ বড় দূষণীয়।


 


 


 


ফটো গ্যালারি
মতলবে শিক্ষার্থীকে শ্লীলতাহানির অভিযোগে শিক্ষককে পুলিশে সোপর্দ
রেদওয়ান আহমেদ জাকির
১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


মতলব দক্ষিণে দ্বিতীয় শ্রেণির এক শিক্ষার্থীর শ্লীলতাহানির অভিযোগে এক শিক্ষককে ধরে পুলিশে সোপর্দ করেছে এলাকাবাসী। গত ৮ সেপ্টেম্বর রোববার বিকেলে মতলব দক্ষিণের নারায়ণপুর ইউনিয়নের পদুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার দিন রাতে ছাত্রীর দাদী শেফালী বেগম বাদী হয়ে মতলব দক্ষিণ থানায় মামলা করেছেন।



এলাকাবাসী জানায়, গত দেড় মাস পূর্বে নারায়ণপুর ইউনিয়নের ১১০নং পদুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে প্রলোভন দেখিয়ে ঐ বিদ্যালয়ের শিক্ষক মাসুদ রানা শ্লীলতাহানির চেষ্টা করে। পরবর্তীতে গত ৯ সেপ্টেম্বর এ ঘটনাটি এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে এলাকাবাসী উত্তেজিত হয়ে শিক্ষককে অবরুদ্ধ করে বেদম প্রহার করে। পরে মতলব দক্ষিণ থানা পুলিশকে খবর দিলে অফিসার ইনচার্জ স্বপন কুমার আইচের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে এসে শিক্ষক মাসুদ রানাকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।



উপজেলা শিক্ষা অফিসার শহিদুল হক মোল্লা জানান, গত দুইদিন যাবত আমি উপজেলার বাইরে আছি। তবে এ বিষয়টি আমি অবগত হয়েছি। উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার তানভীর আহমেদ জানান, আমি বিষয়টি অবগত হয়েছি। ঐ শিক্ষককে পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছে। আজকে বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণের কথা জেনেছি।



উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ শাহিদুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি নিয়ে মামলা হয়েছে জেনেছি। যেহেতু শিক্ষককে বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে, তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থাগ্রহণ করা হবে।



মতলব দক্ষিণ থানার অফিসার ইনচার্জ স্বপন কুমার আইচ বলেন, ঐ শিক্ষককে জনতার রোষানল থেকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসি। পরে দুই শিক্ষকের জিম্বায় তাকে চাঁদপুর আদালতে প্রেরণ করি। কিন্তু আদালত না বসায় তাকে আবার থানায় শিক্ষকের জিম্মায় রাখা হয়েছে। ছাত্রীর দাদী শেফালী বেগম বাদী হয়ে থানায় একটি মামলা করেছেন।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৭৭৮৮৩৭
পুরোন সংখ্যা