চাঁদপুর, বৃহস্পতিবার ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২৮ ভাদ্র ১৪২৬, ১২ মহররম ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫৫-সূরা রাহ্মান


৭৮ আয়াত, ৩ রুকু, মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


৬৬। উভয় উদ্যানে আছে উচ্ছলিত দুই প্রস্রবণ।


৬৭। সুতরাং তোমরা উভয়ে তোমাদের প্রতিপালকের কোন্ অনুগ্রহ অস্বীকার করিবে?


৬৮। সেথায় রহিয়াছে ফলমূল -খর্জুর ও আনার।


 


 


 


assets/data_files/web

বাণিজ্যই হলো বিভিন্ন জাতির সাম্য সংস্থাপক। -গ্লাডস্টোন।


 


 


যখন কোনো দলের ইমামতি কর, তখন তাদের নামাজকে সহজ কর।


 


 


 


ফটো গ্যালারি
হাজীগঞ্জে স্থায়ী বন্দোবস্তকৃত সম্পত্তি হতে উচ্ছেদের পাঁয়তারার অভিযোগ
১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


হাজীগঞ্জ পৌর এলাকায় সরকারিভাবে স্থায়ী বন্দোবস্ত পাওয়া সম্পত্তি হতে দখলদারদের জোরপূর্বক উচ্ছেদ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। হাজীগঞ্জ উপজেলার ২১৩নং মকিমাবাদ মৌজার সাবেক ৫৯৫ দাগের হালে ১৫১৪ অন্দরে ১ শতক সম্পত্তি মৃত মোঃ সাদেক আলী পিতা মৃত হাফিজ উদ্দিন, সাং-খাটরাবিলওয়াই থানা হাজীগঞ্জ জেলা চাঁদপুর ১৯৯৬-৭০ সালে সরকার হতে স্থায়ী বন্দোবস্ত নিয়ে নিজ নামে নাম জারি ও খারিজ খতিয়ান করে মালিক ও দখলদার হয়ে দীর্ঘ ৫০ বছরের অধিক সুনামের সাথে ব্যবসা পরিচালনা করেন। পরবর্তীতে সাদেক আলীর মৃত্যুর পর তার ওলিওয়ারিশগণ উক্ত ভূমিতে বর্তমানে ২টি দোকানঘর নির্মাণ করে সুনামের সাথে ব্যবসা করছেন। তিনি অভিযোগ করেন, উক্ত ভূমির চৌহুদ্দীর বাইরে পূর্ব পার্শ্ববর্তী ৬৩৪/৩৫নং দাগে জেলা পরিষদ কর্তৃক বহুতল মার্কেট ভবন নির্মাণের কাজ চলাবস্থায় ঠিকাদার তার লোকজন সহ জেলা পরিষদের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের মাধ্যমে বিভিন্ন হুমকি-ধমকি দিয়ে উক্ত ভূমির দখল নিতে পাঁয়তারা করছে। জেলা পরিষদ ও ঠিকাদারের লোকজনের হাত থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্যে সাদেক আলীর অলিওয়ারিশগণ বিজ্ঞ আদালতে বাদী হয়ে বিজ্ঞ সিনিয়র সহকারী জজ হাজীগঞ্জ আদালত চাঁদপুরে দেওয়ানী স্বত্ব নং ৪৭/২০১৯ মামলা দায়ের করেন। তিনি বলেন, স্থানীয় প্রশাসন অবগত হওয়া সত্ত্বেও জেলা পরিষদের কর্মকর্তা ও স্থানীয় জেলা পরিষদের ঠিকাদার ও তার লোকজন দোকানঘর ভাঙ্গা ও দোকানঘর দখলের পাঁয়তারা করছে। এ ব্যাপারে জায়গার মালিক ওলিওয়ারিশগণ জানায়, বর্তমানে সম্পত্তির বিএস প্রিন্টিং পর্চা তৈরি হয়, যার খতিয়ান নং ১৩৩২ এবং হাল দাগ ১৫১৪ এবং বিএস মৌজা ম্যাপ তৈরি হয় আমাদের পক্ষে উক্ত ১ শতক ভূমির উপর আমাদের নামে ট্রেড লাইসেন্স, পৌরহোল্ডিং ও বিদ্যুৎ সংযোগ বহু বছর থেকে আছে। এরপরও সকল আইন কানুন অবজ্ঞা করে জাল, জালিয়াতির মাধ্যমে জোরপূর্বক জেলা পরিষদ এবং ঠিকাদার ও তার লোকজন কিভাবে তাদের দোকান ঘর ভাংচুরের হুমকি দেয় এবং দখলের পাঁয়তারা করছে সেটাই প্রশ্ন। বিষয়টি নিষ্পত্তিতে আদালতে মামলা চলমান অবস্থায় আছে। এ ব্যাপারে সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।



 



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
১৩০৬০২
পুরোন সংখ্যা