চাঁদপুর, সোমবার ২১ অক্টোবর ২০১৯, ৫ কার্তিক ১৪২৬, ২১ সফর ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫৭-সূরা হাদীদ


২৯ আয়াত, ৪ রুকু, মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


 


 


০৩। তিনিই আদি, তিনিই অন্ত; তিনিই ব্যক্ত ও তিনিই গুপ্ত এবং তিনি সর্ববিষয়ে সম্যক অবহিত।


৪। তিনিই ছয় দিবসে আকাশম-লী ও পৃথিবী সৃষ্টি করিয়াছেন; অতঃপর 'আরশে সমাসীন হইয়াছেন। তিনি জানেন যাহা কিছু ভূমিতে প্রবেশ করে ও যাহা কিছু উহা হইতে বাহির হয় এবং আকাশ হইতে যাহা কিছু নামে ও আকাশে যাহা কিছু উত্থিত হয়। তোমরা যেখানেই থাক না কেনো_তিনি তোমাদের সঙ্গে আছেন, তোমরা যাহা কিছু করো আল্লাহ তাহা দেখেন।


 


সংশয় যেখানে থাকে সফলতা সেখানে ধীর পদক্ষেপে আসে।


-জন রে।


 


 


যে ব্যক্তি উদর পূর্তি করিয়া আহার করে, বেহেশতের দিকে তাহার জন্য পথ উন্মুক্ত হয় না।


 


যে শিক্ষা গ্রহণ করে তার মৃত্যু নেই।


 


ফটো গ্যালারি
জনবল সঙ্কট চরমে
মন্থর গতিতে চলছে কচুয়া উপজেলার প্রশাসনিক কার্যক্রম
মোহাম্মদ মহিউদ্দিন
২১ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


কচুয়া উপজেলা প্রশাসনে জনবল সঙ্কট চরম আকার ধারণ করেছে। তার উপর রয়েছে দুর্নীতি, অনিয়ম ও অব্যবস্থাপনার অভিযোগ। এ উপজেলা প্রশাসনের তথ্যকেন্দ্র, বনবিভাগ, নির্বাচন অফিস, পুলিশ বিভাগ, পল্লীবিদ্যুৎ ও সাব রেজিস্ট্রি অফিস ব্যতীত বাকি ২৯টি দপ্তরে ৫শ' ৪০জন কর্মকর্তা-কর্মচারীর মধ্যে ২শ' ১৪টি পদই শূন্য। গুরুত্বপূর্ণ কর্মকর্তা-কর্মচারীর পদ বছরের পর বছর শূন্য থাকায় মন্থর গতিতে চলছে কচুয়া উপজেলা প্রশাসনিক কার্যক্রম। বর্তমানে এ উপজেলা প্রশাসনের শীর্ষ কর্মকর্তা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার পদ প্রায় ২ মাস যাবৎ শূন্য রয়েছে। নির্বাহী কর্মকর্তার অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করছেন পার্শ্ববর্তী হাজীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। তিনি স্ব-কর্মস্থলের কার্যক্রম সম্পন্ন করে সপ্তাহে ২/১ দিন কচুয়ায় অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করছেন। কোনো কোনো সপ্তাহে তার কচুয়া আসাও সম্ভব হয় না। অফিসের কর্মচারীরা গুরুত্বপূর্ণ ও জরুরি ফাইল হাজীগঞ্জে নিয়ে স্বাক্ষর করে আনেন।



উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ের ১৯টি পদের মধ্যে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও অফিস সুপারসহ ৯টি পদ শূন্য রয়েছে। উপজেলা ভূমি বিভাগে ৫২টি পদের মধ্যে কানুনগো, ৩জন অফিস সহকারী, ৫জন তহশীলদার ও ২জন সহকারী তহশীলদারসহ মোট ১৬টি পদ শূন্য রয়েছে। উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) একি মিত্র চাকমা বলেন, ভূমি বিভাগে জনবল সঙ্কটের কারণে কর্মকর্তাদের উপর চাপ বেড়েছে। তারপরও যাতে কাজের বিঘ্ন না ঘটে সেদিকে নজর রাখছি।



স্বাস্থ্য বিভাগে ১২৭টি পদের মধ্যে ৬১টি পদই শূন্য। ২১জন চিকিৎসকের মধ্যে নেই ১২জন চিকিৎসক। এখানে গাইনী কনসালটেন্টের পদ শূন্য থাকায় নারীদের জটিল রোগের চিকিৎসা দেয়া সম্ভব হচ্ছে না। সার্জারী কনসালটেন্টের পদ শূন্য থাকায় অপারেশন থিয়েটার বন্ধ রয়েছে বছরের পর বছর। ৪টি উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রের একটিতেও নেই মেডিকেল অফিসার, নেই এঙ্-রে ও ল্যাবরেটরী টেকনিশিয়ান। জনবল সঙ্কটের কারণে প্রকট সমস্যা সৃষ্টি হওয়ার সত্যতা স্বীকার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা সালাহ উদ্দিন মাহমুদ বলেন, বিরাজমান সমস্যা দূরীকরণে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্যে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট দফায় দাফায় অনুরোধ জানানো হয়ে আসছে।



পরিবার পরিকল্পনা বিভাগে ১৩৮টি পদের মধ্যে ১ জন সহকারী পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা, ৬জন উপ-সহকারী মেডিকেল অফিসার ও ১৩ জন এফডবিস্নওসহ ৩২টি পদ শূন্য রয়েছে। উপজেলা আইসিটি বিভাগে ৩টি পদের মধ্যে একটি পদ শূন্য রয়েছে।



কৃষি বিভাগে ৪৮ পদের মধ্যে অতিরিক্ত কৃষি কর্মকর্তা, একজন কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা ও ১১জন উপ-সহকারী কর্মকর্তাসহ ১৯টি পদ শূন্য রয়েছে। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আহসান হাবীব এ গুরুত্বপূর্ণ বিভাগে কাজের মন্থর গতি সৃষ্টি হওয়ার সত্যতা স্কীকার করে বলেন, কাজের বিঘ্ন না ঘটানোর লক্ষ্যে কর্মকর্তা-কর্মচারীরা দ্বিগুণ কাজ করে যাচ্ছেন। উপজেলা প্রকৌশল দপ্তরে ১৯ পদের মধ্যে ৫টি পদ শূন্য। এখানে নেই সহকারী প্রকৌশলী, ২জন উপসহকারী প্রকৌশলী, সার্ভেয়ার ও নিরাপত্তা প্রহরী।



উপজেলা শিক্ষা অফিসে (প্রাথমিক) ১৪টি পদের মধ্যে ৯টি পদই শূন্য। এ অফিসে ৫জন সহকারী শিক্ষা অফিসার, ২জন অফিস সহকারী, একজন হিসাব সহকারী ও একজন অফিস সহায়কের পদ শূন্য রয়েছে। উপজেলা শিক্ষা অফিসার শাহরিয়ার রসুল বলেন, জনবল সঙ্কটের কারণে কাজকর্ম পরিচালনায় খুবই হিমশিম খেতে হচ্ছে। তিনি আরো বলেন, এ উপজেলায় ১৭১টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ১৩টি প্রধান শিক্ষকের পদ শূন্য আছে।



উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসে ৭টি পদের মধ্যে দীর্ঘদিন থেকে সহকারী মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের পদ শূন্য রয়েছে। সেটেলমেন্ট দপ্তরে ১৯টি পদের মধ্যে একজন সার্ভেয়ার ও দুইজন চেইনমেন ব্যতীত বাকি ১৬টি পদই শূন্য রয়েছে। এ দপ্তর কার্যত প্রায় অচল হয়ে আছে। নাঙ্গলকোট উপজেলার সেটেলমেন্ট অফিসার এ উপজেলার অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি মাসে ২/১ বার আসেন মাত্র। বিএডিসি অফিসে ৪টি পদের মধ্যে ৪টি পদই খালি। শাহরাস্তি উপজেলার বিএডিসি কর্মকর্তা মোতাহের হোসেন এ উপজেলার অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি বলেন, অফিসের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজসহ সকল কাজ তাকে একাই করতে হয়।



পল্লী উন্নয়ন দপ্তরে (বিআরডিবি) ১১টি পদের মধ্যে নেই পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা, একজন সহকারী পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা ও একজন হিসাবরক্ষক। সহকারী পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা আবুল হাসনাত ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। উপজেলা হিসাবরক্ষণ বিভাগে ৭টি পদের মধ্যে নেই একজন অডিটর, একজন জুনিয়র অডিটর ও একজন টাইপিস্ট। প্রাণিসম্পদ বিভাগের ১০টি পদের মধ্যে প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার পদসহ ৫টি পদ শূন্য রয়েছে। উপজেলা সমবায় বিভাগে ৫টি পদের মধ্যে একজন সহকারী পরিদর্শক নেই। মৎস্য বিভাগে ৫টি পদের মধ্যে একজন অফিস সহায়ক নেই। সমাজ সেবা বিভাগে ৫টি পদের মধ্যে একজন উচ্চমান সহায়ক ও দুইজন ইউনিয়ন সমাজকর্মীর পদ শূন্য রয়েছে। যুব উন্নয়ন বিভাগে ৭টি পদের মধ্যে একজন ক্যাশিয়ার নেই। মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার কার্যালয়ে ৬টি পদের মধ্যে একজন হিসাব রক্ষক নেই। খাদ্য বিভাগে ৪টি পদের মধ্যে ৩টি পদই শূন্য। এখানে নেই ইন্সপেক্টর, সাব ইন্সপেক্টর ও অফিস সহাকারী। পরিসংখ্যান বিভাগে ৫টি পদের মধ্যে পরিসংখ্যান অফিসার ও একজন অফিস সহকারীর পদ দীর্ঘদিন থেকে শূন্য রয়েছে। জনস্বাস্থ্য বিভাগে ১১টি পদের মধ্যে ২টি মেকানিক ও একটি সিসিটি'র পদ শূন্য রয়েছে।



কচুয়া উপজেলার সদর পোস্ট অফিসসহ দুইটি সাব পোস্ট অফিসে ১৩টি পদের মধ্যে উপজেলা পোস্ট অফিসে দুইজন পোস্টাল অপারেটর ও একজন চেকার নেই। ফায়ার সার্ভিস বিভাগে ২৫টি পদের মধ্যে ৩জন ফায়ারম্যানসহ ৪টি পদ শূন্য রয়েছে। টেলিফোন বিভাগে ৫টি পদের মধ্যে একজন লাইনম্যানের পদ শূন্য। উপজেলা রিসোর্স সেন্টারে ৪টি পদের মধ্যে একজন সহাকারী ইন্সট্রাক্টর নেই। আনসার ভিডিপি বিভাগে ৩টি পদের মধ্যে উপজেলা আনসার-ভিডিপি কর্মকর্তা নেই।



উপজেলা মৎস্য ও বীজ সংরক্ষণ খামার বিভাগে ৪টি পদের মধ্যে একজন অফিস সহকারী ও একজন ফিল্ড অ্যাসিসটেন্ট নেই। 'আমার বাড়ি আমার খামার' বিভাগে ২৭টি পদের মধ্যে দুজন মাঠ সহকারী নেই।



কচুয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ ওয়ালী উল্যাহ জানান, পুলিশ বিভাগে শূন্যপদ না থাকলেও কচুয়া থানার উত্তরে বায়েক থেকে দক্ষিণে জগতপুর পর্যন্ত প্রায় ৪০ কিলোমিটার সড়কে (কচুয়া-গৌরীপুর ও কচুয়া-কালিয়াপাড়া-জগতপুর) রাতভর ৬টি মোবাইল টিম দ্বারা টহল ডিউটি অব্যাহত রেখে চুরি, ছিনতাই, মাদক সেবন ও মাদক ব্যবসা এসব নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে। এ কাজে অন্তত ৪টি পিকআপ প্রয়োজন। অথচ আছে মাত্র ২টি পিকআপ।



 



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
১০২৬৬৩৬
পুরোন সংখ্যা