চাঁদপুর, বুধবার ২৩ অক্টোবর ২০১৯, ৭ কার্তিক ১৪২৬, ২৩ সফর ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫৭-সূরা হাদীদ


২৯ আয়াত, ৪ রুকু, মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


 


০৭। তোমরা আল্লাহ ও তাহার রাসূলের প্রতি ঈমান আন এবং আল্লাহ তোমাদিগকে যাহা কিছুর উত্তরাধিকারী করিয়াছেন তাহা হইতে ব্যয় কর। তোমাদের মধ্যে যাহারা ঈমান আনে ও ব্যয় করে, তাহাদের জন্য আছে মহাপুরস্কার।


 


 


মর্যাদা রক্ষার ব্যাপারে আমি নিজের অভিভাবক। -নিকেলাস রান্ড।


 


 


যদি মানুষের ধৈর্য থাকে তবে সে অবশ্য সৌভাগ্যশালী হয়।


 


 


 


ফটো গ্যালারি
ফরিদগঞ্জ এআর উবির চার শিক্ষককে হত্যার হুমকি!
তিন বছরের হিসাব নিরীক্ষায় অডিট কমিটি গঠন
চাঁদপুর কণ্ঠ রিপোর্ট
২৩ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


ক্রমেই অস্থিতিশীল হয়ে উঠছে ফরিদগঞ্জ এ. আর. পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয় ক্যাম্পাস। বিঘি্নত হচ্ছে শিক্ষার মান। রাজনীতির অপচর্চা ও ক্ষমতার অপব্যবহারে দীর্ঘদিন ধরেই প্রতিষ্ঠানটি জিম্মি হয়ে আছে বিশেষ একটি চক্রের কাছে।



সোমবার ৯ মাসের স্কুল অংশের বকেয়া বেতনের দাবিতে স্কুলের শিক্ষকদের পরীক্ষা বর্জন ও প্রধান শিক্ষকের কক্ষে তালা ঝুলানোর ঘটনায় গতকাল মঙ্গলবার প্রধান শিক্ষকের পক্ষে তার রাজনৈতিক সহযোগী শিক্ষক সুলতানা রাজিয়া বিদ্যালয়ের চার সিনিয়র শিক্ষককে প্রকাশ্য খুন করার হুমকি দেন। প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধাচরণ করায় এবং তার অনিয়ম নিয়ে সাংবাদিকদের সাথে কথা বলায় বিদ্যালয়ের সিনিয়র চার শিক্ষককে হত্যার হুমকি দিয়েছেন বলে জানা যায়। অফিস রুমে প্রকাশ্য সুলতানা রাজিয়া বলেন, গতকাল আমি স্কুলে উপস্থিত থাকলে শিক্ষকদের চারটি লাশ পড়ে যেতো, তবুও এ ঘটনা ঘটতো না। সুলতানা রাজিয়া সরাসরি নাম না বললেও উপস্থিত শিক্ষকরা বলেন, যেহেতু বিগত দিনে আমাদের বেতন-ভাতা প্রাপ্তির ক্ষেত্রে সিরাজুল হক পাটওয়ারী, রফিকুল ইসলাম পাঠান, মোঃ জাকির হোসেন এবং হাসান গাজী মুখ্য ভূমিকা পালন করেছেন, তাই তাঁদেরকে ইঙ্গিত করে প্রকাশ্য হত্যার হুমকি দেন তিনি।



সুলতানা রাজিয়া বর্তমানে ফরিদগঞ্জ উপজেলা যুব মহিলা লীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন। রাজনৈতিক পদবী বহন করার পর থেকে স্কুলের এই ক্রীড়া শিক্ষক ক্ষমতার অপব্যবহার করে বিভিন্ন সময় বহু শিক্ষকের বিরুদ্ধে স্বার্থবাদী অবস্থান নিয়েছেন বলে জানা যায়। সাংবাদিকদের স্কুলে যাতায়াত নিয়েও মন্তব্য করেন সুলতানা রাজিয়া। তিনি থাকলে কোনো সাংবাদিককেই স্কুলে ঢুকতে দিতেন না বলে দম্ভোক্তি করেন।



এর পূর্বে সোমবার শিক্ষকদের আন্দোলন চলাকালীন প্রধান শিক্ষকের অপর রাজনৈতিক সহযোগী উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও স্কুলের খ-কালীন শিক্ষক মাহবুব আলম সোহাগ স্কুলের সহকারী শিক্ষক হাসান গাজীকে চাকুরিচ্যুত করার হুমকি দেন। এ বিষয়ে হাসান গাজী সাংবাদিকদের অভিযোগ করে বলেন, মাহবুব আলম সোহাগ আমাকে চাকুরিচ্যুত করার হুমকি দিয়েছেন। তিনি শিক্ষক মিলনায়তনে সকলের সামনে বলেন, পূর্বেও আমাকে তিনি ষড়যন্ত্র করে সাসপেন্ড করেছিলেন, সামনে আবারো সাসপেন্ড করাবেন। এক পর্যায়ে তিনি আমার গায়েও হাত তোলেন। আমি এ বিষয়ে একটি লিখিত অভিযোগ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর সোমবার বিকেলে জমা দেই।



একজন খ-কালীন শিক্ষক কোন্ ক্ষমতাবলে একজন এমপিওভুক্ত সহকারী শিক্ষকের গায়ে হাত তোলেন এবং তাকে চাকরিচ্যুত করার হুমকি দেন তা নিয়ে অনেকের মুখেই এখন প্রশ্ন।



হত্যার হুমকির বিষয়ে সিনিয়র শিক্ষক মোঃ জাকির হোসেন বলেন, উপজেলা শিক্ষা অফিসার মহোদয় আমাদের ৯ মাসের বেতন প্রাপ্তির বিষয়ে আশ্বস্ত করলে আমরা সোমবার যথারীতি ক্লাসে ফিরে যাই। বেতন প্রাপ্তির ক্ষেত্রে সকল শিক্ষক একদিকে অবস্থান থাকলেও স্কুলের ক্রীড়া শিক্ষক সুলতানা রাজিয়া গতকাল প্রধান শিক্ষকের পক্ষ নিয়ে আমাদের সিনিয়র শিক্ষকদের গাল-মন্দ করেন এবং প্রকাশ্য আমাদের চার শিক্ষককে খুন করার হুমকি দেন। বর্তমানে স্কুলে আমরা সিনিয়র শিক্ষকরা প্রধান শিক্ষকের রোষানলের শিকার। তিনি তার সহযোগীদের দিয়ে যে কোনো সময় আমাদের যে কোনো ক্ষতি করতে পারে বলে আমরা আতঙ্কিত। এ বিষয়ে আমরা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি ও সহযোগিতা কামনা করছি।



সোমবারের এ ঘটনায় গতকাল বিকেল সাড়ে ৪টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত উপজেলা শিক্ষা অফিসারের কার্যালয়ে দীর্ঘ সাড়ে ৩ ঘণ্টা মিটিং চলে শিক্ষা অফিসারের সাথে প্রধান শিক্ষকসহ সকল সহকারী শিক্ষকদের। শিক্ষা অফিসার একে একে সকলের কথা শুনেন। সোমবারের ঘটনার জন্য তিনি সহকারী শিক্ষকদের সাথে প্রধান শিক্ষকের সুসম্পর্ক গড়ার বিষয়ে কথা বলেন। ঘটনার সূত্রপাত যে বেতন ভাতা নিয়ে তার বিষয়ে দীর্ঘ আলোচনা শেষে উপজেলা শিক্ষা অফিসার সিদ্ধান্ত দেন, আপাতত যে টাকা কালেকশান আছে তা থেকে প্রথম তিন মাসের বেতন পূর্বের নিয়মে শিক্ষকগণ গ্রহণ করবেন এবং স্কুলের অর্থনৈতিক লেনদেনে গত তিন বছরে কোনো অনিয়ম আছে কিনা তা চিহ্নিত করার লক্ষ্যে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি অডিট এবং ফান্ড ক্রিয়েট কমিটি করে দেন। এ কমিটি আগামী ১৫ দিনের মধ্যে স্কুলের অর্থনৈতিক যাবতীয় অনিয়ম যদি থাকে তা চিহ্নিত করে উপজেলা শিক্ষা অফিসার বরাবর লিখিতভাবে জমা দেবে। অডিট কমিটির আহ্বায়ক স্কুলের সহকারী প্রধান শিক্ষিকা হাসিনা আক্তার এবং সদস্য সিনিয়র শিক্ষক আনছার উদ্দিন হাওলাদার ও সহকারী শিক্ষক কামরুন্নাহার সুমী।



এ বিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আলী রেজা আশরাফী চাঁদপুর কণ্ঠকে জানান, শিক্ষকদের বেতন প্রাপ্তি নিয়ে দীর্ঘদিনের যে অভিযোগ তার স্থায়ী সমাধানের জন্যে আমরা একটি অডিট কমিটি করে দেই। কমিটি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে নিশ্চিত করবেন গত তিন বছরে অর্থনৈতিক আয়-ব্যয়ে কোনো অসামঞ্জস্য আছে কিনা, ভাউচার সঠিক আছে কিনা বা ব্যাংক থেকে অর্থ উত্তোলনে বা খরচে প্রশাসনিক অনুমোদন আছে কিনা। আমরা আশা করি এর মধ্য দিয়ে সমস্যাটির একটি স্থায়ী সমাধান ঘটবে।



 



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
১০০৯৮৫০
পুরোন সংখ্যা