চাঁদপুর, বুধবার ২০ নভেম্বর ২০১৯, ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ২২ রবিউল আউয়াল ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫৮-সূরা মুজাদালা


২২ আয়াত, ৩ রুকু, মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


০৫। যাহারা আল্লাহ ও তাহার রাসূলের বিরুদ্ধাচরণ করে, তাহাদিগকে অপদস্থ করা হইবে যেমন অপদস্থ করা হইয়াছে তাহাদের পূর্ববর্তীদিগকে; আমি সুস্পষ্ট আয়াত অবতীর্ণ করিয়াছি; কাফিরদের জন্যে রহিয়াছে লাঞ্চনাদায়ক শাস্তি।


 


 


 


 


কোনো কোনো সময় প্রকৃতি বিদ্রোহ করলে মানুষ তার সুযোগ গ্রহণ করে। -ইয়ং।


 


 


দাতার হাত ভিক্ষুকের হাত অপেক্ষা উত্তম। যে ব্যক্তি স্বাবলম্বী ও তৃপ্ত হতে চায়, আল্লাহ তাকে স্বাবলম্বন ও তৃপ্তি দান করেন।


 


 


ফটো গ্যালারি
স্কুলের ভবন নির্মাণে কবরস্থানে ভেকু মেশিনের ভাংচুরে মতলব উত্তরে উত্তেজনা
মোঃ রোবেল হোসেন
২০ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


স্কুলের ভবন নির্মাণের জন্যে প্রায় ৫০টি কবর অনৈতিকভাবে ভাংচুর করা হয়েছে। মতলব উত্তর উপজেলার বিনন্দপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। স্কুলের পর্যাপ্ত জায়গা থাকা সত্ত্বেও কবরস্থান দখল হওয়ার কারণে এলাকায় চরম উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে। যেকোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশঙ্কা করছে এলাকাবাসী।



গত সোমবার সকালে বিনন্দপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে গিয়ে দেখা গেছে, ভবন নির্মাণ করার জন্যে পুরাতন টিনশেড ভবনটি ভেঙ্গে ফেলা হয়েছে। ওই স্থানে নতুন ভবন নির্মাণ করার কথা থাকলেও তা হচ্ছে না। নতুন ভবন করার লক্ষ্যে পাইলিংয়ের জন্যে উত্তর ও পূর্ব পাশে অবস্থিত কবরস্থান ঘেঁষে প্রায় ৫০টি কবর ভেকু মেশিন দিয়ে ভেঙ্গে ফেলা হয়েছে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকাবাসীর মধ্যে চরম উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। লাঠিসোটা নিয়ে সংঘর্ষে জড়ানোর মত অবস্থা তৈরি হয়। কাজ স্থাগিত রাখার দাবিতে এলাকার শত শত নারী পুরুষ জড়ো হয়। পরে কাজ স্থগিত করার পর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।



স্থানীয় এলাকার বাসিন্দা মিজানুর রহমান মানিক, চায়না বেগম, মাহমুদা, স্বপ্না, রফিকুল ইসলাম ঢালী, জামশেদ, দবির হোসেন, দুলাল, সুমন, রোজিনা, দিপু সরকারসহ অন্যরা বলেন, স্কুলের জন্য নির্দিষ্ট ৩৩ শতাংশ জায়গা রয়েছে। সেই জায়গায় ভবন না করে একটি মহল ষড়যন্ত্র করে রাতের অাঁধারে কবরগুলো ধ্বংস করেছে। স্কুলের উন্নয়ন হোক তা আমরাও চাই। কিন্তু স্কুলের পর্যাপ্ত জায়গা থাকতে কেনো কবরস্থানে ভবন করতে হবে? আমাদের দাদা-দাদী, নানা-নানী ও পিতা-মাতার কবর ধ্বংস করে ফেলেছে তারা। তারা আরও জানান, স্কুলের কিছু জায়গা খালে পড়ে আছে। সেখানেই মাটি পরীক্ষা করা হয়েছে। কিন্তু ঠিকাদারের লাভের জন্য ওই খাল ভরাট না করে কবরস্থান দখল করেছে। আমরা কবরস্থানে ভবন হতে দিবো না। জায়গা পরিমাপ করে স্কুলের জায়গায়ই ভবন নির্মাণ করার দাবি জানান এলাকাবাসী।



সাইফুল, জসিম ও মজনু বলেন, আমাদের জানামতে ভবন যেখানে হওয়ার কথা সেখানেই কাজ চলছে। তবে উপর থেকে নির্দেশ এসেছে, তাই কাজ স্থগিত রাখা হয়েছে। পরবর্তী সিদ্ধান্ত আসলে কাজ শুরু হবে।



এ ব্যাপারে উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ ইকবাল হোসেন ভূঞা জানান, ওই স্কুলে একটি ভবন হবে সেটা আমাদের কাছে তথ্য আছে। ভবনের জন্য পর্যাপ্ত জায়গা রয়েছে, সেখানেই ভবন হবে, কবরস্থানে তো হওয়ার কথা নয়। এ বিষয়টি প্রকৌশল বিভাগকে অবহিত করার মাধ্যমে ব্যবস্থা নেয়া হবে।



উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শারমিন আক্তার বলেন, আমি খবর পাওয়ার সাথে সাথে এলাকার লোকজনকে আসতে বলেছি। তারা আসলে উভয় পক্ষের সাথে আলোচনা সাপেক্ষে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।



 



 



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৪২৯২৯১
পুরোন সংখ্যা