চাঁদপুর, রোববার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১৭ রবিউস সানি ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • --
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫৯-সূরা হাশ্‌র


২৪ আয়াত, ৩ রুকু, মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


৯। আর তাহাদের জন্যও, মুহাজিরদের আগমনের পূর্বে যাহারা এই নগরীতে বসবাস করিয়াছে ও ঈমান আনিয়াছে, তাহারা মুহাজিরদিগকে ভালবাসে এবং মুহাজিরদিগকে যাহা দেওয়া হইয়াছে তাহার জন্য তাহারা অন্তরে আকাঙ্খা পোষণ করে না, আর তাহারা তাহাদিগকে নিজেদের উপর অগ্রাধিকার দেয় নিজেরা অভাবগ্রস্ত হইলেও। যাহাদিগকে অন্তরের কার্পণ্য হইতে মুক্ত রাখা হইয়াছে, তাহারাই সফলকাম।


 


নিরাপত্তাবোধ হল ভালো ঘুমের প্রধান ও প্রয়োজনীয় অঙ্গ।


নেথানিয়েল ব্লাইটম্যান।


 


 


বিদ্যা শিক্ষার্থীগণ বেহেশতের ফেরেশতাগণ কর্তৃক অভিনন্দিত হবেন।


 


ফটো গ্যালারি
বিজয়মেলা মঞ্চে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসের আলোচনা সভায় জেলা প্রশাসক
জয়বাংলা শুধু শ্লোগান নয়, এটির একটি মাহাত্ম্য রয়েছে
গোলাম মোস্তফা
১৫ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক মোঃ মাজেদুর রহমান খান বলেছেন, একাত্তরের ১৪ ডিসেম্বর শহীদ বুুদ্ধিজীবী দিবস। পাক হানাদার বাহিনী সেদিন বুঝতে পেরেছিলো তারা পরাজিত হবে। তাই তারা সে সময় তালিকা করে এদেশের মেধাবী সন্তানদের হত্যা করে এবং আজকের এই বুদ্ধিজীবী দিবসের সৃষ্টি করে। তিনি আরো বলেন, জয়বাংলা শুধু শ্লোগান নয়, এটির একটি মাহাত্ম্য রয়েছে। এ শ্লোগানে উজ্জীবিত হয়ে সেদিন বাঙালি জাতি ঐক্যবদ্ধ হয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলো। তিনি বলেন, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে একাত্তরের স্বাধীনতা যুদ্ধে দেশের সকল শ্রেণি-পেশার মানুষ যেভাবে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলো। সেদিন যে জাগরণ সৃষ্টি হয়েছে তা বলার অপেক্ষা রাখে না।



তিনি বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের হত্যা প্রকারান্তরে দেশের স্বাধীনতাকে হত্যা করা। এটিও পাক গোষ্ঠীর ইন্ধনে হয়েছিলো। তারা সেদিন বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ার উপর আঘাত করে চেয়েছিলো এদেশকে একটি অকার্যকর রাষ্ট্রে পরিণত করতে। কিন্তু তাদের সেই স্বপ্ন সফল হয়নি। তিনি বলেন, আজকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শক্ত ও বলিষ্ঠ নেতৃত্বের কারণে দেশ এগিয়ে চলছে। বিশ্বের মধ্যে বাংলাদেশ আজ উন্নত রাষ্ট্র হিসেবে পরিচিতি লাভ করছে। তিনি আগামীর সোনার বাংলা ও অগ্রগতির ডিজিটাল বাংলাদেশ রূপান্তরিত করার জন্যে নতুন প্রজন্মকে মাদক, ইভটিজিং ও সন্ত্রাসমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। তাহলে জাতির মেধাবী সন্তান যারা তাদের জীবন দিয়ে স্বাধীন বাংলাদেশ দিয়ে গেছে, তাদের আত্মা শান্তি পাবে।



জেলা প্রশাসক মোঃ মাজেদুর রহমান খান গতকাল ১৪ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় চাঁদপুরের মুক্তিযুদ্ধের বিজয়মেলা মঞ্চে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) এসএম জাকারিয়ার সভাপ্রধানে এবং বিশিষ্ট কবি ও লেখক ডাঃ পীযূষ কান্তি বড়ুয়ার উপস্থাপনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন চাঁদপুরের পুলিশ সুপার মোঃ মাহবুবুর রহমান পিপিএম (বার), জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু নঈম পাটোয়ারী দুলাল, চাঁদপুর সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. এএসএম দেলোয়ার হোসেন, সাহিত্য একাডেমির মহাপরিচালক ও চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি রোটাঃ কাজী শাহাদাত, বাবুরহাট স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মোশারেফ হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ তাফাজ্জল হোসেন এসডু পাটোয়ারী, বিজয়মেলার স্টিয়ারিং কমিটির মহাসচিব ব্যাংকার মহসীন পাঠান, বিজয়মেলা-২০১৯-এর চেয়ারম্যান অ্যাডঃ বদিউজ্জামান কিরণ। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মাহফুজুর রহমান টুটুল।



আলোচনার পূর্বে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসের উপর ডকুমেন্টারী উপস্থাপন করেন পুরাণবাজার ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ রতন কুমার মজুমদার।



এছাড়া আলোচনা সভার পূর্বে মুক্তিযুদ্ধের বিজয়মেলার পক্ষ থেকে মেলার মহাসচিব হারুন আল রশীদের সঞ্চালনায় প্রদীপ প্রজ্জ্বলনের মাধ্যমে শহীদের স্মরণ করা হয়।



 


এই পাতার আরো খবর -
করোনা পরিস্থিতি
বাংলাদেশ বিশ্ব
আক্রান্ত ৩,৮৭,২৯৫ ৩,৯৬,৩৮,১৮৮
সুস্থ ৩,০২,২৯৮ ২,৯৬,৭৮,৪৪৬
মৃত্যু ৫,৬৪৬ ১১,০৯,৮৩৮
দেশ ২১৩
সূত্র: আইইডিসিআর ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।
আজকের পাঠকসংখ্যা
১২১৭২২
পুরোন সংখ্যা