চাঁদপুর, মঙ্গলবার ১৪ জানুয়ারি ২০২০, ৩০ পৌষ ১৪২৬, ১৭ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • চাঁদপুর শহরে গৃহপরিচারিকার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৬১-সূরা সাফ্‌ফ


১৪ আয়াত, ২ রুকু, মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


৭। যে ব্যক্তি ইসলামের দিকে আহূত হইয়াও আল্লাহ সম্বন্ধে মিথ্যা রচনা করে তাহার অপেক্ষা অধিক যালিম আর কে? আল্লাহ যালিম সম্প্রদায়কে সৎপথে পরিচালিত করেন না।


 


ব্যবসায়ীদের নিজস্ব কোনো দেশ নেই। - জেফারসন।


 


 


যদি মানুষের ধৈর্য থাকে তবে সে অবশ্য সৌভাগ্যশালী হয়।


ফটো গ্যালারি
ফরিদগঞ্জে ভুয়া কাগজপত্র দেখিয়ে ৪১ বছর বয়সে চাকুরি!
শওকত আলী
১৪ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


ফরিদগঞ্জে একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরি-কাম প্রহরী নূরুজ্জামান তপাদার ভুয়া জন্মনিবন্ধন, ভোটার আইডি ও শিক্ষাগত যোগ্যতার সার্টিফিকেট দেখিয়ে ৪১ বছর বয়সে চাকুরি পেয়ে দায়িত্ব পালনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে সরেজমিনে গেলে গত রোববার এলাকাবাসী ও বিদ্যালয়ের অভিভাবকরা বহু বছর যাবৎ দপ্তরি-কাম প্রহরী পদে নূরুজ্জামান তপাদারের ভুয়া চাকরি করার বিষয়ে অভিযোগ জানান।



ঘটনাটি ঘটেছে ফরিদগঞ্জ উপজেলার ২নং বালিথুবা ইউনিয়নের ৯নং দেবীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। এ বিদ্যালয়ের দপ্তরি কাম প্রহরী নূরুজ্জামান তপাদার সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরে ভুয়া কাগজপত্র জমা দিয়ে চাকুরি করে সরকারের কোষাগার থেকে বছরের পর বছর লাখ লাখ টাকা বেতন ভাতা উত্তোলন করে নেয়ার অভিযোগ করেছেন বিদ্যালয়ের একাধিক অভিভাবক।



এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে বিদ্যালয়ের অভিভাবকরা একাধিকবার অভিযোগ করার পরও কর্তৃপক্ষ এ ব্যাপারে তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থাগ্রহণ না করে নীরব ভূমিকা পালন করছে বলেও এলাকাবাসী ও অভিভাবকদের অভিযোগ।



ঘটনার বিবরণে জানা যায়, ২০১৩ সালে সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সারা বাংলাদেশের সরকারি প্রাইমারী বিদ্যালয়গুলোতে চুক্তিভিত্তিক দপ্তরি নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছিল অংশগ্রহণকারী প্রার্থীকে ৩০ বছরের কম বয়স হতে হবে এবং শিক্ষাগত যোগ্যতা অষ্টম শ্রেণী পাস হতে হবে। ৯নং দেবীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের সিদ্ধান্ত মোতাবেক ৪১ বছর বয়সে ভুয়া কাগজপত্র দিয়ে নিয়োগ দেওয়া হয় চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলার ২নং বালিথুবা ইউনিয়নের ৯নং দেবীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরি নূরুজ্জামান তপাদারকে।



এক অনুসন্ধানে দেখা যায়, নূরুজ্জামান তপাদারের জাতীয় পরিচয়পত্র অনুযায়ী তার জন্ম ১০ জুলাই ১৯৭২ সাল। নিয়োগকালীন সময় ২০১৩ সালে তার বয়স ছিলো ৪১ বছর ৬মাস ১০দিন। ৪১ বছর বয়সে তিনি কী করে চাকুরি পেলেন তা জানতে চাইলে নুরুজ্জামান তপাদার বলেন, ভোটার আইডি কার্ডে ভুল জন্ম তারিখ উঠে, তার সঠিক জন্ম তারিখ হলো ১ জানুয়ারি ১৯৮৬ সাল। জন্ম নিবন্ধনে তার সঠিক বয়স উল্লেখ রয়েছে। নূরুজ্জামান তপাদারের ১ ফেব্রুয়ারি ২০০১ সালে ১৬০০ নং কাবিননামা অনুযায়ী বিয়ের বয়স ২৫ বছর ছিল। এখন জন্ম নিবন্ধন যদি সঠিক হয় তাহলে বিয়ের সময় বয়স হলো ছিল ১৫ বছর ১১ মাস। এখন প্রশ্ন হলো, তাহলে কাবিনে কেন ২০০১ সালে ২৫ বছর? দেখা যাচ্ছে যে, জাতীয় পরিচয়পত্রে ভোটারের জন্ম ১০.০৭.১৯৭২, জন্ম নিবন্ধনে জন্ম তারিখ ০১.০১.১৯৮৬ এবং বিয়ের কাবিননামানুযায়ী ২০০১ সালে তার বয়স ছিল ২৫ বছর।



শিক্ষাগত যোগ্যতা অনুযায়ী নুরুজ্জামান তপাদার ইসলামপুর শাহ ইয়াসিন মাদ্রাসা থেকে অষ্টম শ্রেণী পাসের একটি সার্টিফিকেট সংগ্রহ করে। সার্টিফিকেটে দেখা যায়, তিনি ১৯৯৮ সালে অষ্টম শ্রেণি পাস করেছেন। মাত্র ১২ বছর বয়সে কিভাবে অষ্টম শ্রেণি পাস করলেন তা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। নিয়োগকালীন বিদ্যালয়ে যে সার্টিফিকেট ও বিদ্যালয়ে ছাড়পত্র জমা দেন, সেখানে দেখা যাচ্ছে যে সার্টিফিকেটে ও ছাড়পত্রে বিদ্যালয়ের ক্রমিক নাম্বার উল্লেখ করেননি।



৯নং দেবীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা দিলরুবা খানমের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি কাগজপত্র সঠিক পেয়েছি। তাই নিয়োগ দিয়েছি। আর যদি কোনো ভুল থাকে তাহলে সেটা বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির দায়িত্বের অবহেলা ছিল।



স্থানীয় এলাকাবাসী জানান, নূরুজ্জামান তাপাদার কোনো পড়াশোনা করেনি। বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তার সিল ও সাইন নকল করে ভুয়া কাগজপত্র করতেন। এছাড়াও দীর্ঘ কয়েক বছর চাঁদপুর আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে তিনি পাসপোর্টের দালালি করতেন। পরে ভুয়া কাগজপত্র দিয়ে লক্ষ টাকার বিনিময়ে ম্যানেজিং কমিটির সদস্যদের ম্যানেজ করে প্রাইমারি বিদ্যালয়ে সরকারি চাকুরিতে নিয়োগ পান। এ ব্যাপারে প্রকৃত তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা একান্ত প্রয়োজন হয়ে পড়েছে।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৫৮১০২৩
পুরোন সংখ্যা