চাঁদপুর, শনিবার ১৮ জানুয়ারি ২০২০, ৪ মাঘ ১৪২৬, ২১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • --
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৬১-সূরা সাফ্ফ


১৪ আয়াত, ২ রুকু, মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


১১। উহা এই যে, তোমরা আল্লাহ ও তাঁহার রাসূলে বিশ্বাস স্থাপন করিবে এবং তোমাদের ধন-সম্পদ ও জীবন দ্বারা আল্লাহর পথে জিহাদ করিবে। ইহাই তোমাদের জন্য শ্রেয় যদি তোমরা জানিতে!


 


 


দুঃখীদের মনের জোর কম থাকে।


-রবার্ট হেরিক।


 


 


যে ব্যক্তি বিদ্যার জন্য জীবন উৎসর্গ করেছেন, তিনি মৃত্যুঞ্জয়ী।


 


 


ফটো গ্যালারি
ফরিদগঞ্জে তিনদিন থেকে গেলেন রাষ্ট্রপতির ছেলে তুহিন
গ্রামবাসী রাষ্ট্রপতি পুত্রের আচরণে মুগ্ধ
এমকে মানিক পাঠান
১৮ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


তিনি তার পিতার মতোই সাদা মাটা মানুষ। নেই অহংকার, নেই দাম্ভিকতা। সাথে নেই কোনো পুলিশ কিংবা মোটরসাইকেল বা গাড়ি বহর। তাকে দেখে কিংবা তার আচার-আচরণে মনেই হয়নি তিনি বাংলাদেশের মহামান্য রাষ্ট্রপ্রতি সর্বজন শ্রদ্ধেয় অ্যাডঃ আব্দুল হামিদের সুযোগ্য সন্তান রাসেল আহমেদ তুহিন। তাঁর আচরণ ও ব্যবহারে মুগ্ধ সবাই। এই সাদামাটা মানুষটি ফরিদগঞ্জের প্রত্যন্ত অঞ্চল ৫নং গুপ্টি ইউনিয়নের গল্লাক এলাকায় থেকে গেলেন তিনদিন। যা আগে থেকে কেউই জানে না। তিনি এসেছেন গল্লাক এলাকায় একটি মসজিদ নির্মাণ কাজ উদ্বোধন করতে। রাষ্ট্রপতির ছেলে তুহিন তাঁর এক বন্ধুর আমন্ত্রণে এসেছেন ফরিদগঞ্জের প্রত্যন্ত এই গ্রামাঞ্চলে।



এলাকাবাসী ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে, তিনদিন যাবৎ উপজেলার গল্লাক এলাকার মানুষের সাথে খোশগল্প করে সময় কাটান রাষ্ট্রপতি পুত্র তুহিন। সারাদিন বড়শি বেয়ে মাছ ধরেছেন। ঘুরে ঘুরে বিভিন্ন টংয়ের চায়ের দোকানে সাধারণ মানুষের সাথে বসে চা পানে আনন্দ উল্লাসে সময় দিয়েছেন। ওই এলাকার গল্লাক বাজারে ৪তলা বিশিষ্ট একটি জামে মসজিদ নির্মাণ কাজের শুভ উদ্বোধন করেন তিনি।



উক্ত মসজিদের নির্মাণ কাজ আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন উপলক্ষে গত বুধবার বিকেলে গল্লাক বাজারে এক আলোচনা সভায় আয়োজন করা হয়। সমাজসেবক ও শিক্ষানুরাগী মসজিদ কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব ফয়েজ আহাম্মেদ মোল্লার সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন মহামান্য রাষ্ট্রপতির সুযোগ্য সন্তান মোঃ রাসেল আহমেদ তুহিন। তিনি তাঁর বক্তব্যে ফরিদগঞ্জবাসীর আতিথেয়তায় মুগ্ধ হওয়ার কথা উল্লেখ করে বলেন, এখানে ফয়েজ আহাম্মেদ মোল্লার মহতি উদ্যোগে অত্যাধুনিক মানের মসজিদ নির্মাণের জন্যে আমার মতো ক্ষুদ্র মানুষকে দিয়ে এই মসজিদ নির্মাণের শুভ উদ্ভোধন করা হবে, এটা আমি কখনো স্বপ্নেও ভাবিনি। এটা আমার জীবনের জন্যে শ্রেষ্ঠ অর্জন বলে আমি মনে করি। তিনি উপস্থিত জনতার কাছে তার বাবা ও মায়ের জন্যে দোয়া প্রার্থনা করেন। তিনি এই মসজিদটির প্রথমতলার কাজ শেষে এখানে এসে জুমার নামাজ আদায় করার ইচ্ছে পোষণ করেছেন।



উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজসেবক হুমায়ুন আহাম্মেদ কবির, প্রবীণ রাজনীতিবিদ আব্দুর রশিদ পাটওয়ারী, অ্যাডঃ মোহাম্মদ আলী মজুমদার, খোকন আখন্দ, আওয়ামী গুণীজন স্মৃতি সংসদের সভাপতি আবুল হাসনাত প্রমুখ।



 



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৭৪৯২৪৫
পুরোন সংখ্যা