চাঁদপুর, রোববার ০৫ এপ্রিল ২০২০, ২২ চৈত্র ১৪২৬, ১০ শাবান ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • চাঁদপুর সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়কসহ আরো ৯ জনের করোনা শনাক্ত, মোট আক্রান্ত ২১৯
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৬৯-সূরা হাক্‌কা :


৫২ আয়াত, ২ রুকু, মক্কী


২৭। 'হায়! আমার মৃত্যুই যদি আমার শেষ হইত!


২৮। 'আমার ধন-সম্পদ আমার কোন কাজেই আসিল না।


২৯। 'আমার ক্ষমতাও বিনষ্ট হইয়াছে।'


 


 


assets/data_files/web

শ্রেষ্ঠ বইগুলি হচ্ছে শ্রেষ্ঠ বন্ধু।


-লর্ড চেস্টারফিল্ড।


 


 


 


 


নম্রতায় মানুষের সৌন্দর্য বৃদ্ধি পায় আর কড়া মেজাজ হলো আয়াসের বস্তু অর্থাৎ বড় দূষণীয়।


 


 


 


ফটো গ্যালারি
মতলবে কলেজ ছাত্রীর পরিবারের ওপর উত্ত্যক্তকারীদের হামলায় আহত ৩
মতলব ব্যুরো ॥
০৫ এপ্রিল, ২০২০ ১৬:২৬:০৬
প্রিন্টঅ-অ+


 মতলব দক্ষিণ উপেজলার মুন্সীরহাট কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী ইসরাত জাহান সেতুকে উত্ত্যক্ত করছিল স্থানীয় বেশ ক’জন যুবক। এ নিয়ে শিক্ষার্থীর মা তাছলিমা বেগম গত ১ এপ্রিল মতলব দক্ষিণ থানায় অভিযোগ দায়ের করেন । থানার মামলা নং- ০১, তারিখ- ০১/০৪/২০২০খ্রিঃ।

শিক্ষার্থীর মা তাসলিমা বেগম জানান, বেশ কয়েক বছর যাবৎ মোবারকদী এলাকায় আসাদ গাজীর ছেলে সাদ্দাম হোসেন (২৮), পারভেজ (২০), লিয়াকত আলীর ছেলে মাহফুজ (২১), সবুজ (১৯), বিষ্ণুপুর এলাকার জাহাঙ্গীর আলমের ছেলে রিয়াদ (২০) কলেজে আসা যাওয়ার পথে আমার মেয়েকে বিভিন্ন সময়ে উত্ত্যক্ত করে। ঘটনার দিন তারা একত্রিত হয়ে আমার বাড়িতে এসে আমার মেয়েকে কু-প্রস্তাবসহ উত্ত্যক্ত করে। পূর্বে এ নিয়ে বিজ্ঞ আদালতে একটি মামলা চলমান থাকা অবস্থায় বিবাদীপক্ষ ভবিষ্যতে এ ধরনের কর্মকা- করবে না বলে আপোষ মিমাংসা হয়। যার মামলা নং-সিআর ২০৬/২০১৯খ্রিঃ। কিছুদিন না যেতেই বিবাদীগণ আরো ক্ষিপ্ত হয়ে আমাকে (তাসলিমা বেগম), আমার মেয়ে ইসরাত জাহান, আমার স্বামী মনির হোসেনকে গাল মন্দ করে। আমার স্বামী প্রতিবাদ করলে সকল বিবাদী একত্রিত হয়ে আমাকে ও আমার পরিবারের লোকজনকে বেধড়ক মারধর করে রক্তাক্ত জখম করে। আমার স্বামীর মাথায় এলোপাতাড়ি আঘাত করে। আমার মেয়ের গলায় থাকা স্বর্ণের চেইন নিয়ে যায়। পরবর্তীতে আমাদের ডাক-চিৎকারে আশেপাশের লোকজন দৌড়ে আসলে তারা বিভিন্ন হুমকি-ধমকি দিয়ে চলে যায়। পরবর্তীতে এলাকার লোকজন আহত অবস্থায় আমাদের উদ্ধার করে চাঁদপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন। আমার স্বামীর মাথায় ১১টি সেলাই লাগে এবং আমার মেয়ে ও স্বামীর অবস্থা আশঙ্কাজনক। চাঁদপুর সদর হাসপাতালের চিকিৎসক তাদেরকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে। বর্তমানে তারা কুমিল্লায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

বেশ কয়েকজন এলাকাবাসী জানান, এলাকার মধ্যে সাদ্দাম, লিয়াকত, মাহফুজ, সবুজ ও রিয়াদ বিভিন্ন ধরনের অপরাধ কর্মকা- পরিচালনা করছে। তারা মাদক সেবনের সাথেও জড়িত রয়েছে। এলাকাবাসী তাদের বিচার দাবি করছে।


এই পাতার আরো খবর -
আজকের পাঠকসংখ্যা
২৭২৫২১
পুরোন সংখ্যা