চাঁদপুর, রোববার ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ৫ আশ্বিন ১৪২৭, ২ সফর ১৪৪২
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • --
পূর্বের ভুল-ত্রুটি শুধরে হাজীগঞ্জ পৌরসভাকে আধুনিক পৌরসভায় রূপান্তর করবো
------------------সাবেক মেয়র আলহাজ্ব আব্দুল মান্নান খান বাচ্চু
২০ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


হাজীগঞ্জ পৌরসভার ২বারের সাবেক নির্বাচিত মেয়র আলহাজ্ব আব্দুল মান্নান খান বাচ্চু। একাধারে তুখোড় রাজনীতিবিদ, সফল ব্যবসায়ী আর সফল জনপ্রতিনিধি। যেখানে গেছেন সেখানেই পেয়েছেন সফলতা। রাজনীতি, ব্যবসা আর জনপ্রতিনিধিত্বে যুগপৎভাবে সফলতার স্বাক্ষর রেখেছেন। আজকের হাজীগঞ্জ পৌরসভাকে আধুনিক সেবাদানে তৈরি করার অবদান কোনো অংশে কম নেই আলহাজ্ব আব্দুল মান্নান খান বাচ্চুর। পারিবারিক জীবনেও রয়েছে সফলতা। একমাত্র পুত্র সন্তান পুত্রবধূসহ চিকিৎসা ক্ষেত্রে সফল। আসন্ন হাজীগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে নিশ্চিতভাবে প্রার্থী হচ্ছেন মেয়র পদে। পূর্বের ভুল-ত্রুটিগুলো শুধরে পৌরবাসীর চাহিদাগুলো শতভাগ বাস্তবায়ন করবেন বলে একান্ত সাক্ষাৎকারে চাঁদপুর কণ্ঠকে জানিয়েছেন। সাক্ষাৎকার গ্রহণ করেছেন আমাদের হাজীগঞ্জ ব্যুরো ইনচার্জ কামরুজ্জামান টুটুল।



চাঁদপুর কণ্ঠ : কেমন আছেন?



আব্দুল মান্নান খান : আলহামদুলিল্লাহ, পৌরবাসীর আন্তরিকতা, ভালোবাসা আর দোয়ায় ভালো আছি।



চাঁদপুর কণ্ঠ : আপনাকে সবাই সফল মেয়র বলে, তারপরও কেনো আপনি ফের মেয়র পদে নির্বাচন করতে চান?



আব্দুল মান্নান খান : আমার সারাটা জীবন পার করেছি জনগণের সেবা করে। সেই সেবার ধারাবাহিকতা আর জনগণের আরো কাছে যেতে আমি ফের মেয়র প্রার্থী। কারণ, দায়িত্বশীল পদে থাকলে কাজ করতে সহজ হয় এবং চাহিদানুযায়ী মানুষের সেবা ও কল্যাণমূলক কাজগুলো দ্রুত করা সম্ভব হয়।



চাঁদপুর কণ্ঠ : আপনিতো দীর্ঘদিন উপজেলা বিএনপির সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। দলীয় সমর্থনে ৪ বার মেয়র নির্বাচন করেছেন এবং ২ বার নির্বাচিত হয়েছেন। আপনি কি মনে করেন, এবারো আপনাকে দল মনোনয়ন দিবে ?



আব্দুল মান্নান খান : আমি আশাবাদী। কারণ, টানা ১২ বছর স্বচ্ছতা, সততা ও নিষ্ঠার সাথে এবং দলীয় সুনাম অক্ষুণ্ন রেখে পৌরবাসীর সেবা করেছি। তৃতীয় বারেও আমি পৌরবাসীর ভোটে নির্বাচিত হয়েছি, কিন্তু আমাকে হারানো হয়েছে।



চাঁদপুর কণ্ঠ : দলীয় মনোনয়ন না পেলে কী করবেন?



আব্দুল মান্নান খান : আমি দলের সাথে কখনো বেঈমানি করিনি। সারাজীবন বিএনপির স্বার্থে রাজনীতি করেছি। আমার কারণে দলের কোনো বদনাম হয়নি। এসব দিক বিবেচনা করলে আমি নিশ্চিত, দল আমাকে মনোনয়ন দিবে। এ ছাড়া রাজনীতিতে শেষ কথা বলে কিছু নেই। তাই সময় বলে দিবে আমাকে কী করতে হবে।



চাঁদপুর কণ্ঠ : দলীয় মনোনয়ন পেলে পৌরবাসী কি আপনাকে ভোট দিবে?



আব্দুল মান্নান খান : ইনশআল্লাহ, আমি শতভাগ আশাবাদী এবং আমার দৃঢ় বিশ্বাস, দলীয় মনোনয়ন পেলে আমি 'মেয়র' নির্বাচিত হবো। কারণ, সম্মানিত পৌরবাসী তাদের অধিকারের বিষয়ে সচেতন।



চাঁদপুর কণ্ঠ : মেয়র হিসেবে ১২ বছর দায়িত্ব পালনকালীন সময়ে আপনার সফলতা?



আব্দুল মান্নান খান : ঘুষ ও দুর্নীতমুক্ত এবং স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতামূলক কার্যক্রম পরিচালনা, পৌর ভবন নির্মাণ, পৌর কবরস্থান, খেয়াঘাট, ট্রাকঘাট ও ট্রাকরোড নির্মাণ, ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্লান্ট অনুমোদন ও অর্থায়নের ব্যবস্থা, সড়কে সোডিয়াম লাইট স্থাপন, সড়কবাতির এভারেজ বিদ্যুৎ বিলের পরিবর্তে মিটার স্থাপন, সেতুতে বিদ্যুতায়ন প্রভৃতি।



চাঁদপুর কণ্ঠ : মেয়র থাকাকালীন ১২ বছরে আপনার ব্যর্থতাগুলো বলবেন কি?



আব্দুল মান্নান খান : সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগের জটিলতার কারণে হাজীগঞ্জ বাজারের চৌরাস্তায় স্বাধীনতা স্তম্ভ নির্মাণ ও পৌর এলাকায় পর্যাপ্ত ভূমি (৪/৫ একর সম্পত্তি) না পাওয়ার কারণে শিশুপার্ক করতে পারিনি। এই দুটি ব্যর্থতা আমাকে পীড়া দেয়।



চাঁদপুর কণ্ঠ : আপনার দৃষ্টিতে বর্তমানে পৌর এলাকার উল্লেখযোগ্য সমস্যা কী কী?



আব্দুল মান্নান খান : আবর্জনা ডাম্পিং, ওয়ার্ড ভিত্তিক জলাবদ্ধতা, ৫নং ওয়ার্ডে প্রাথমিক বিদ্যালয় না থাকা, হাজীগঞ্জ বাজারের যানজট, হকার পুনর্বাসনসহ বেশ কিছু সমস্যা রয়েছে। তবে আমি নির্বাচিত হলে এগুলোর আগ্রাধিকার ভিত্তিতে সমাধান করবো।



চাঁদপুর কণ্ঠ : আপনি নির্বাচিত হলে কোন্ বিষয়ে সবচে' বেশি অগ্রাধিকার দিবেন?



আব্দুল মান্নান খান : পৌরবাসীর সহযোগিতায় দৈনন্দিন চলমান সেবা ও উন্নয়নের পাশাপাশি আমি আবর্জনা ডাম্পিংয়ের ব্যবস্থা, ওয়ার্ড ভিত্তিক জলাবদ্ধতা নিরসনে নতুন ড্রেন নির্মাণে গুরুত্বারোপ, ৫নং ওয়ার্ডে প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপন, হাজীগঞ্জ বাজারের যানজট নিরসন, শিশুপার্ক নির্মাণ, হকারদের পুনর্বাসনের চেষ্টাকে অগ্রাধিকার দেবো।



চাঁদপুর কণ্ঠ : ১০, ১১ ও ১২নং ওয়ার্ডে জনগণ সাপ্লাইয়ের পানি থেকে বঞ্চিত। এ বিষয়ে আপনার মতামত কী?



আব্দুল মান্নান খান : আমি নির্বাচিত হলে ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্লান্টের পরিশোধিত পানি ১০, ১১ ও ১২নং ওয়ার্ডে সাপ্লাইয়ের ব্যবস্থা করবো।



চাঁদপুর কণ্ঠ : আপনার কাজ নিয়ে কিছু বলবেন কি?



আব্দুল মান্নান খান : আমি দায়িত্ব পালনকালীন সময়ে ইউজিপিপি ও বিএমডিএফ নামক প্রকল্পে ওয়ার্ল্ড ব্যাংক থেকে প্রাপ্ত অনুদান দিয়ে পৌর এলাকায় ব্যাপক উন্নয়ন কাজ করেছি। কিন্তু আমি চলে আসার পর, জানি না কেনো বা কার ব্যর্থতায় এই দুটি প্রজেক্ট থেকে অনুদান পাওয়া বন্ধ হয়ে গেছে। যার ফলে পৌরবাসী অন্তত ৫০ কোটি টাকার অনুদান থেকে বঞ্চিত হয়েছে বলে আমি মনে করি। এছাড়াও পৌরসভা ভবনের তৃতীয়তলা নির্মাণ কাজের টেন্ডার দিয়ে এসেছিলাম, সেটাও হয়নি।



চাঁদপুর কণ্ঠ : আপনাকে ধন্যবাদ।



আব্দুল মান্নান খান : আপনাকেও ধন্যবাদ। সবশেষে পৌরবাসীর কাছে দোয়া চেয়ে বলতে চাই, মেয়র থাকাকালীন এবং বিগত ৫ বছর মেয়র পদে না থেকেও আপনাদের পাশে ছিলাম, আছি এবং কথা দিলাম, আমৃত্যু আপনাদের সাথেই থাকবো। সেই সাথে আগামী দিনে দলীয় মনোনয়ন পেলে এবং মেয়র নির্বাচিত হলে পৌরবাসীর শতভাগ চাহিদা পূরণ করবো।



 


এই পাতার আরো খবর -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৭৬-সূরা দাহ্র বা ইন্সান


৩১ আয়াত, ২ রুকু, মক্কী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


১৪। সনি্নহিত বৃক্ষচায়া তাদের উপর থাকিবে এবং উহার ফলমূল সম্পূর্ণরূপে তাহাদের আয়ত্তাধীন করা হইবে।


১৫। তাহাদিগকে পরিবেশন করা হইবে রৌপ্যপাত্রে এবং স্ফটিকের মত স্বচ্ছ পানপাত্রে-


 


 


সৌভাগ্য ও প্রেম নির্ভীকের সঙ্গী।


-ফ্রাশ।


 


 


 


ক্ষমতায় মদমত্ত ও জালেমের জুলুমবাজির প্রতিবাদে সত্য কথা বলাও মতের প্রচারই সর্বোৎকৃষ্ট জেহাদ ।


 


 


ফটো গ্যালারি
করোনা পরিস্থিতি
বাংলাদেশ বিশ্ব
আক্রান্ত ৩,৮৭,২৯৫ ৩,৯৬,৩৮,১৮৮
সুস্থ ৩,০২,২৯৮ ২,৯৬,৭৮,৪৪৬
মৃত্যু ৫,৬৪৬ ১১,০৯,৮৩৮
দেশ ২১৩
সূত্র: আইইডিসিআর ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।
আজকের পাঠকসংখ্যা
৭৪৭২৭০
পুরোন সংখ্যা